1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:৩২ পূর্বাহ্ন

৯ বছরে একবারও সংস্কার হয়নি মধুটিলা ইকোপার্ক সড়ক : চরম ভোগান্তি

৯ বছরে একবারও সংস্কার হয়নি মধুটিলা ইকোপার্ক সড়ক : চরম ভোগান্তি

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : গেল নয় বছরে একবারও সংস্কার হয়নি অতিগুরুত্বপূর্ণ শেরপুরের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র মধুটিলা ইকোপার্ক সড়ক। ফলে ওই সড়কে যাতায়াতকারী অন্তত ৫-৬ গ্রামের মানুষ ছাড়াও পার্কে বেড়াতে আসা লাখো দর্শনার্থী চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছেন।
সূত্র জানায়, শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার পূর্ব সমেশ্চুড়া গ্রামের মধুটিলা নামক স্থানে ১৯৯৯ সালে ৩৮০ একর আয়তন নিয়ে প্রকৃতির নৈসর্গিক কোলে তৎকালীন কৃষিমন্ত্রী ও বর্তমান স্থানীয় সংসদ সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরীর প্রচেষ্টায় ময়মনসিংহ বন বিভাগ ইকোপার্ক নির্মাণ করে। ইকোপার্ককে ঘিরে সমেশ্চুড়া এলাকা পর্যটন এলাকায় পরিণত হয়। ওই সময় থেকেই অধিক জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় পরিণত হয় নন্নী থেকে সমেশ্চুড়া সড়কটি। স্থানীয় কয়েক হাজার বাসিন্দা ছাড়াও ওই সড়কে প্রতিবছর দূর-দূরান্ত থেকে লাখো দর্শনার্থী যাতায়াত করে। প্রতিবছর পার্ক ইজারা দিয়ে সরকার লাখ লাখ টাকা রাজস্ব আয় করে। কিন্তু অতিজনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি মেরামতে কোন উদ্যোগ গ্রহণ করে না।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, গত ২০১০ সালে এলজিইডি’র তত্ত্বাবধানে থাকা রাস্তাটির সবশেষ সংস্কার করা হয়। এরপর আর কোন সংস্কার করা হয়নি। ফলে ২০১৪ সাল থেকে রাস্তাটি বেহাল দশায় পড়েছে। বর্তমানে নন্নী গ্রামীণ ব্যাংক এলাকা থেকে (তিন রাস্তার মোড়) ইকোপার্ক পর্যন্ত ৪.৯২ কিলোমিটার দীর্ঘ ও ৩.৭ মিটার প্রস্থ (১২ ফুট) এ সড়কটি মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। খানাখন্দে ভরে গিয়ে পুরো রাস্তাজুড়ে অসহনীয় দূর্ভোগে পড়ছেন চলাচলকারীরা। কখনও কখনও ছোটখাটে যান উল্টে ঘটছে দুর্ঘটনা। এ দূর্ভোগ অন্তত ছয় বছর ধরে।

সমেশ্চুড়া গ্রামের গৃহীনি মিতালি জানান, যোগাযোগ ব্যবস্থা খারাপ হওয়ায় আমরা এখন খুব জরুরী না হলে নালিতাবাড়ী যাই না। নিত্যপ্রয়োজনীর হাট-বাজার এখানে করা গেলেও কাপড়-চোপড়, নির্মাণসামগ্রী ইত্যাদি অন্যান্য প্রয়োজনে পার্শ্ববর্তী ঝিনাইগাতি সদরে চলে যাই।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া জানান, কয়েক বছর যাবত রাস্তাটির কোনপ্রকার সংস্কার হয়নি। ফলে স্থানীয় ৫-৬টি গ্রামের হাজার হাজার মানুষের চলাচল ছাড়াও পার্কে বেড়াতে আসা দর্শনার্থীরা চরম দূর্ভোগে পড়ছেন প্রতিনিয়ত।
মধুটিলা রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল করিম জানান, রাস্তাটি সংস্কার না হওয়ায় প্রায় ৫ কিলোমিটার সড়কে দর্শনার্থীরা চরম দূর্ভেগে পড়েন। ফলে ২০ কিলোমিটার ঘুরে বারমারী বটতলা হয়ে সীমান্ত সড়ক দিয়ে আসতে হয় তাদের। এতে সময়ের অপচয়ের পাশাপাশি পরিবহন ব্যয়ও বেড়ে যায়। তাই দর্শনার্থীদের মুখে বিরক্তের ছাপ লেগে থাকে।
এদিকে রাস্তাটির গুরুত্বের কথা বিবেচনায় এনে ও এলাকাবাসীর দাবীর মুখে গেল কয়েক বছরে দুইবার রাস্তাটি মেরামতে জিওবি’র বরাদ্দ চেয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়। কিন্তু ওই প্রকল্পে সম্ভাব্য ব্যয় সংকুলান না হওয়ায় দুই দফায় প্রস্তাবটি বাতিল হয়ে যায়। সবশেষ এক বছর আগে ৫.৫ মিটার বা ১৮ ফুট চওড়া পাকা এবং মাটিসহ মোট ২৪ ফুট চওড়া করে রাস্তাটি পুননির্মাণে নর্দান বাংলাদেশ ইন্টিগ্রেটেড ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট এ প্রস্তাব পাঠানো হয়। প্রায় দেড় মাস আগে প্রায় ৫ কোটি টাকা সম্ভাব্য ব্যয় ধরে ইস্টিমেট তৈরি করেও পাঠানো হয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, দুইবার জিওবি থেকে প্রস্তাবনা বাতিলের পর নর্দান বাংলাদেশ ইন্টিগ্রেটেড ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট-এ প্রস্তাব ও ইস্টিমেট পাঠানো হয়েছে। আশা করছি, দুই থেকে তিন মাসের মধ্যেই বরাদ্দ পেয়ে যাব। বরাদ্দ পেলে দরপত্র আহবান করে ঠিকাদার নিয়োগ করে নতুন বছরে কাজ শুরু করা যেতে পারে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!