1. banglarkagoj@gmail.com : admi2018 :

বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:৫৯ অপরাহ্ন

নকলায় কাজে আসছে না কোটি টাকার অপ্রয়োজনীয় তিন প্রকল্প, বেড়েছে দূর্ভোগ

নকলায় কাজে আসছে না কোটি টাকার অপ্রয়োজনীয় তিন প্রকল্প, বেড়েছে দূর্ভোগ

নকলা (শেরপুর) : নামমাত্র কাজ করে সরকারের টাকা লুটপাট করতেই গ্রহণ করা হয়েছে প্রায় ৯৩ লাখ টাকার তিন প্রকল্প। অপ্রয়োজনীয় এসব প্রকল্প কোন কাজেই আসছে না স্থানীয় জনগণের। উপরন্তু রক্ষণাবেক্ষণ তথা প্রয়োজনীয় বাঁধ কাম এপ্রোচ সড়কের অভাবে কিছুদিন যেতে না যেতেই প্রকল্পগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। দূর্ভোগ বেড়েছে এলাকাবাসীর। শেরপুরের নকলা উপজেলার চরমধুয়া নামাপাড়া গ্রামে ব্রহ্মপুত্র শাখা নদের তীরঘিরে এমন প্রকল্প খোদ এলাকাবাসীর কাছেই উপহাস ও দূর্ভোগের বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে।
জানা গেছে, ২০১১-১২ অর্থবছরে চরমধুয়া নামাপাড়া আলমাছের বাড়ির পেছনে ব্রহ্মপুত্রের শাখা নদের বিধ্বস্ত তীর কাম রাস্তায় ২২ লাখ ৪৭ হাজার ৮১৭ টাকা ব্যয়ে ৩৩ ফুট দীর্ঘ ব্রীজ নির্মাণ করা হয়। এর কিছুদিন পর একই স্থানে প্রায় একশ-দেড়শ গজের ব্যবধানে প্রায় ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় দ্বিতীয় আরেকটি ব্রিজ। এরপর আরও প্রায় একশ-দেড়শ গজের ব্যবধানে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে ৩০ লাখ ৫৭ হাজার ৬৫৭ টাকা ব্যয়ে ৪০ ফুট দীর্ঘ তৃতীয় ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়। ত্রাণ ও পুনর্বাসন অধিদপ্তরের সেতু/কালভার্ট নির্মাণ কর্মসূচীর আওতায় নির্মাণ করা হয় এ তিনটি ব্রিজ। এভাবে একই জায়গায় সামান্য দূরত্বের ব্যবধানে নদীর তীর রক্ষা বাঁধ তথা এলাকাবাসীর প্রয়োজনীয় রাস্তাটি মেরামতের পরিবর্তে বাঁধের বিধ্বস্ত অংশগুলোতে অপ্রয়োজনীয় ব্রিজ নির্মাণ করে লুপাট করা হয়েছে সরকারের প্রায় ৯৩ লাখ টাকা।

বলা বাহুল্য যে, বাঁধ তথা রাস্তার বিধ্বস্ত অংশগুলোতে ব্রিজ নির্মাণ করা হলেও ব্রিজের দুইপাশে মাটি ভরাট না করায় স্থানীয়দের চলাচলে সুবিধার পরিবর্তে দূর্ভোগ বেড়েছে। অন্যদিকে প্রয়োজনীয় মাটি ভরাট না করায় ডেবে গিয়ে বিধ্বস্ত হয়ে ব্যবহার উপযোগিতা হারিয়েছে ব্রিজগুলো।
ভোক্তভোগী স্থানীয়রা জানান, আগে নদীর পাড় দিয়ে চলাচল করতে পারলেও সংযোগ বিহীন ব্রিজ থাকার কারনে তাদের উৎপাদিত ফসল বাজারে নেয়া যায় না। দূর্ভোগর্পূণ রাস্তা দিয়ে কোনোরকমে রিক্সা-ভ্যান যাতায়াত করলেও ব্রিজের সংযোগ সড়ক না থাকায় এবং ব্রিজগুলো ভেঙ্গে যাওয়ায় পায়ে হেটে চলাচল করাই কঠিন হয়ে দাড়িয়েছে। এতে চরমধুয়া নামাপাড়ার প্রায় ৫ হাজার মানুষের যাতায়াতে দূর্ভোগের পাশাপাশি আশপাশের আরও ৬/৭টি গ্রামের ২০ হাজার মানুষ দূর্ভোগে পড়েছেন।
সূত্র জানায়, প্রকল্পের টাকা ফেরত যাওয়ার ভয়ে অপ্রয়োজনীয় এই ব্রিজগুলো নির্মাণ করে টাকা উত্তোলন করাই ছিল মূল লক্ষ্য। প্রয়োজনীয় স্থানে ব্রিজ নির্মাণ না করে একই যায়গায় তিনটি ব্রিজ করে সরকারি অর্থ আত্মসাত করা হয়েছে বলেও অভিযোগ এলাকাবাসীর।
এ বিষয়ে স্থানীয় চন্দ্রকোনা ইউপি চেয়ারম্যান সাজু সাইদ সিদ্দিকী জানান, রাস্তা নির্মাণে প্রকল্প প্রণয়ন করে বরাদ্দের জন্য পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ এলেই কাজটি শেষ করা হবে।
নকলা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি পরে কথা বলবেন বলে জানান।

– মনিরুল ইসলাম মনির

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2018 BanglarKagoj.Net
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!