1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ০৮:২৬ অপরাহ্ন

চলে গেল ২০১৯

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১২৪ বার পড়া হয়েছে

বাংলার কাগজ ডেস্ক : আর একটি বছর কেটে গেল আমাদের জীবন থেকে। এই বছরটি নানা ঘটনার ঘাত-প্রতিঘাতে আমরা ঘুরপাক খেয়েছি। কিছুই কি অগ্রগতি হয়নি। হয়েছে বটে, যেমন হতদরিদ্র অনাহারক্লিষ্ট সৃষ্টিহীন শিশুও যেমন বড় হয়ে ওঠে, সংসার করে, সন্তানের জন্ম দেয় অনেকটা তেমনই।

বছরটা শুরুই হয়েছে এক অকল্পনীয় ভোটারবিহীন নির্বাচন এবং নীতি-নৈতিকতাহীন রাজনৈতিক অভিঘাতের মধ্য দিয়ে। যে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার জন্য আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম সেই ব্যবস্থার কাঠামোটাই গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন হচ্ছে কালোটাকা ও সামরিক-বেসামরিক প্রশাসকদের সরকার, ওদের দ্বারাই গঠিত এবং ওদের জন্যই ক্ষমতায়।

শেখ হাসিনা নিজে ইচ্ছাকৃতভাবে দেশকে ফ্যাসিবাদের দিকে ঠেলে দিয়েছেন এ কথা আমি বলতে চাই না। আসলে তিনি গণতান্ত্রিক রীতিনীতি লঙ্ঘন করে একের পর এক যে পদক্ষেপগুলো নিচ্ছেন তার ফলে দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও ফ্যাসিবাদ আজ ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত সর্বব্যাপী সর্বগ্রাসী। যাচ্ছে বছরই দুর্নীতির আর এক রূপ যেন হঠাৎ করে প্রকাশিত হলোÑ ক্যাসিনোকা-। সরকারের বড় বড় রুই-কাতলা এর সঙ্গে জড়িত। কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে সরকারের সেই বিখ্যাত ‘রেটরিক’ ‘জিরো টলারেন্স’ প্রমাণ করার চেষ্টা হলো। কিন্তু সরকারের ‘অভিযান’ ওই জিরোতেই থমকে গেল। দূরদৃষ্টিসম্পন্ন সরকার দেখতে পেল এই অভিযান চলতে থাকলে তাদের অনেক মন্ত্রী-এমপি আটকা পড়বেন। সরকারই জিরো হয়ে যাবে।

বেশ হইচই করে ব্যাংক ঋণখেলাপির তালিকা প্রকাশ করা হলো বটে কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে তেমন কোনো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলো না বরং রিশিডিউল করা হলো এবং ব্যাংকঋণের সুদ কমিয়ে দেওয়া হলো।

পাঁচ-সাতটি ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গিয়েছিল। তাদের জনগণের কোটি কোটি টাকায় উদ্ধার করা হলো।

এ বছর কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের শুধু গাড়িচাপা দিয়ে হত্যা নয়, নানাভাবে খুন করা হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ডাকসুর ভিপির ওপর হামলা বছরজুড়েই অব্যাহত ছিল। ছাত্রলীগ এর হোতা। তারা নানা ছদ্মবেশ ধারণ করে এসব হামলা চালাচ্ছে। ভবিষ্যতেও এমনই হামলা ও হত্যাকা- চলতেই থাকবে।

দক্ষিণ এশিয়ায় শিক্ষা খাতে তুলনামূলকভাবে বাংলাদেশে বরাদ্দের হার সবচেয়ে কম। আমাদের প্রতিরক্ষা খাতে তুলনামূলকভাবে প্রকৃত ব্যয় কত বেশি সে কথা প্রকাশ্যে বলতে কেউ সাহস পায় না। সামরিক খাতে ব্যয় কম করে দেখানোর জন্য সেখানে নানা প্রশিক্ষণের ব্যয় ও শিক্ষা খাতে দেখানো হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রলীগ ও অন্য সন্ত্রাসীদের ওপর হামলা, এমনকি শিক্ষকদের ওপর হামলা আমরা এ বছর প্রত্যক্ষ করেছি। সরকার এসব সমস্যার সমাধান করতে পারে না এমন নয়। ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়। সরকার প্রশ্নপত্র ফাঁস প্রায়ই বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছে। তবে কি সরকার ইচ্ছা করেই শিক্ষাক্ষেত্রে নৈরাজ্য চলতে দিচ্ছে, যাতে শিক্ষাক্ষেত্রে নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে ছাত্র সমাজের শক্তিশালী আন্দোলন গড়ে উঠতে না পারে!

সড়ক পরিবহনে নতুন আইন জারি করা হয়েছে। আইন সংশোধন করার কোনো প্রস্তাবনাই পরবর্তীকালে গ্রহণ করা হয়নি। সরকার বলল, ছাড় দেওয়া যাবে না, চাঁদাবাজ-সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা হবে। কিছুই হলো না। বরং ‘শ্রমিকদের’ শীর্ষ নেতা ও সাবেক মন্ত্রীকে ‘বিশুদ্ধ’ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বার করে পুরস্কৃত করা হয়েছে।

সরকার যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও সৌদি আরবের সঙ্গে সামরিক চুক্তিসহ নানা চুক্তিতে আবদ্ধ হয়ে পড়ছে। এসব নিয়ে সংসদেও কোনোরকম আলোচনা করা হচ্ছে না। হ্যাঁ, ফেসবুকে ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয়ের এক মেধাবী ছাত্র যথেষ্ট যুক্তি ও তথ্য দিয়ে ভারতের সঙ্গে চুক্তির সমালোচনা করায় তাকে ছাত্রলীগের ‘গেস্টাপো’ বাহিনী নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে। ভারতের হিন্দুত্ববাদী সরকার নতুন নাগরিকত্ব আইন করেছে। সেই আইনের বিরুদ্ধে সারা ভারতে তোলপাড় চলছে। বিক্ষোভকারী কয়েকজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। বাংলাদেশেও বামপন্থিরাসহ বিরোধীরা সোচ্চার। সরকার টুঁ শব্দটি করছে না। তবে সরকার ভারতের হয়ে আশ্বাস দিয়েছে, নতুন নাগরিকত্ব আইন বাংলাদেশের কোনো ক্ষতি করবে না। যেমনটি মোদি আশ্বাস দিয়েছিলেন, বাংলাদেশ তিস্তার পানির ন্যায্য ভাগ পাবে।

এই বছরের শেষদিকে এসে সরকার আর এক কা- করল। বহু প্রতীক্ষিত রাজাকারের তালিকা প্রকাশ হলো। সেই তালিকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধ্বজাধারী সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের গালে চপেটাঘাত করল। আওয়ামী লীগ সরকারের বহু কুকীর্তি আছে। স্বাধীনতার পর দুর্নীতি ও লুটপাট, সিক্সটিনথ ডিভিশনের তা-ব, মুক্তিযোদ্ধাদের সঠিক তালিকা প্রণয়নে ব্যর্থতা, হানাদার বাহিনীর বন্দিসেনাদের পাকিস্তানের কাছে প্রত্যর্পণ, বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পরপর প্রতিরোধ গড়ে তোলায় ব্যর্থতা। স্বৈরাচারী সামরিক শাসক এরশাদের সঙ্গে আঁতাত, যুদ্ধাপরাধীদের শাস্তির দাবিতে জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে বিশাল আন্দোলনের পিঠে ছুরিকাঘাত করে হঠাৎ করে জামায়াতের সঙ্গে ‘কৌশলগত ঐক্য’, খেলাফতের সঙ্গে ৫ দফা মৌলবাদী চুক্তি ইত্যাদি। শেখ হাসিনা প্রায়ই পাকি বলে বিরোধীদের সম্বোধন করেন। তার সরকারের এসব কর্মকা-ের জন্য তাদেরও পাকি বলে সম্বোধন করাটা কি ভুল হবে!

পাটকল শ্রমিকরা অনশন করছে আইন অনুসারে ন্যূনতম মজুরির জন্য, শিক্ষকরা আন্দোলনরত। সরকারের টনক নড়ে না। মিথ্যা মামলা, গ্রেপ্তার, ছাঁটাই, ব্ল্যাকলিস্ট করে শ্রমিক আন্দোলনকে দমন করা হচ্ছে, শ্রমিক নেতাদের কিনে নেওয়া হচ্ছে।

পরিবেশের অবক্ষয় অব্যাহত আছে। এসব বন্ধ করার জন্য বিদেশি অর্থ কোথায় হাওয়া হয়ে গেছে কেউ জানে না। আন্তর্জাতিক পরিবেশ সম্মেলনে জোর প্রতিবাদ সত্ত্বেও সুন্দরবনে পরিবেশ বিধ্বংসী রামপাল বিদ্যুৎসহ অন্যান্য প্রকল্প অব্যাহত রয়েছে। উন্নয়নের জন্য মেগা প্রজেক্টগুলোতে মেগা দুর্নীতি চলছে। কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধির অজুহাতে প্রকল্পগুলোতে অর্থ বরাদ্দ কয়েকগুণ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে দুর্নীতিও কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

দেশে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে অগ্রগতি নিয়ে কোনো সংশয় নেই। কিন্তু সনাতন পুঁজিবাদী নীতির কারণে ধনবৈষম্য ভয়ঙ্করভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমরা বারুদের স্তূপের ওপর বসে আছি। যে কোনো সময় বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।

দেশে এখন গণতন্ত্র নেই। বাংলাদেশ ও অন্যান্য দেশের ইতিহাস যদি আমরা দেখি, আমরা দেখব যখনই গণতন্ত্রের পথ রুদ্ধ হয়ে গেছে তখনই শেষ পর্যন্ত এক সংঘাতময় পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে গণতন্ত্র নিজের পথ করে নিয়েছে। সেই সংঘাতের পথ কারও জন্যই মঙ্গলজনক নয়।

দেশের বিরোধী দলগুলো জনগণকে নিয়ে গণতান্ত্রিক পন্থায় যদি আন্দোলন এগিয়ে নেয়, জনমত যদি শক্তিশালী হয় এবং শাসক দল আওয়ামী লীগ যদি অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেকে সংশোধন করে তা হলেই আগামী বছরগুলোতে আমরা গণতান্ত্রিক ধারায় ফিরে যেতে পারব।

– সংগৃহীত

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews