1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ১২:৫৩ অপরাহ্ন

শ্রীবরদীতে রাস্তা ভেঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২০
  • ১৫০ বার পড়া হয়েছে

শ্রীবরদী (শেরপুর) : শ্রীবরদী সীমান্তবর্তী পাহাড়ি জনপদ বাবেলাকোনা, হাড়িয়াকোনা ও চন্দাপাড়া যাওয়ার রাস্তা ভেঙ্গে উপজেলার সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। পাহাড়ি নদীর ঢলে ও গেল বর্ষায় ভারী বর্ষণের ফলে রাস্তাটি ভেঙ্গে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। বাধ্য হয়ে প্রায় ৩ কিলোমিটার ঘুরে পাহাড়ি টিলা দিয়ে সীমাহীন দূর্ভোগে পড়েছে এলাকাবাসী।
জানা যায়, আদিবাসী সম্প্রদায় ও বাঙ্গালী মিলে প্রায় ওই এলাকাগুলোতে ১০ হাজার লোক বসবাস করে। শ্রীবরদী সীমান্তবর্তী মেঘাদল চৌরাস্তা বাজার (শয়তান বাজার) থেকে হাড়িয়াকোনা পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তার বেহাল দশা। বিভিন্ন জায়গায় অসংখ্য ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। গেল বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে বাবেলাকোনা এলাকা সংলগ্ন ঢেউফা নদীর তীরবর্তী রাস্তা ভেঙ্গে উপজেলার সাথে ওই এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে নিরুপায় হয়ে এলাকাবাসী প্রায় ৩ কিলোমিটার পাহাড়ি টিলা ঘুরে পায়ে হেঁটে, বাইসাইকেল ও ভ্যান দিয়ে গন্তব্যে যাতায়াত করছে। কেউ অসুস্থ হলেও হাসপাতালে নেওয়ার জন্য ওই এলাকায় এম্বুলেন্স নিয়েও যাওয়া যায় না।
এই দুই গ্রামে রয়েছে কমিউনিটি ক্লিনিক, বাবেলাকোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আদিবাসী উচ্চ বিদ্যালয়, বাবেলাকোনা ব্যাপিস্ট চার্চ, ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন, শিশুদের নিয়ে কারিতাস পরিচালিত আলো শিক্ষা কেন্দ্র, সহানুভূতি কম্প্রেশন, বাবেলাকোনা চাইল্ড স্পন্সারশিপ প্রোগ্রাম ও কারিতাসসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের সময় প্রতিদিনই পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে।
এছাড়াও এলাকার আদিবাসীরা পাহাড়ে ধান, করলা, চিচিঙ্গা, শিমুল আলু, লটকন ও আপেলকুলসহ বিভিন্ন ফসল আবাদ করে থাকেন। রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় পণ্য নিয়ে ভোগান্তিতে পড়েছেন তারা।
ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান প্রাঞ্জল এম সাংমা জানান, উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটি ভেঙ্গে নদীগর্ভে বিলীন হওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে পাহাড়ি টিলা ও ধান ক্ষেত দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এতে করে দৈনন্দিন কাজে মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটছে। বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ ও উপজেলা প্রশাসন থেকে রাস্তাটি মেরামতের প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবে রুপান্তরিত হয়নি।
উপজেলা প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, রাস্তাটি পাহাড়ি নদীর তীরবর্তী হওয়ায় বৃষ্টির পানি ও পাহাড়ি ঢলে ভোঙ্গ গেছে। এতে করে ওই এলাকার লোকজন ভোগান্তিতে পড়েছে। রাস্তাটি মেরামতের জন্য প্রকল্পের তালিকায় নাম পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
– ফরিদ আহম্মেদ রুবেল

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews