1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০৪:১৭ পূর্বাহ্ন

নিরাপত্তার অভাবে নালিতাবাড়ী হাসপাতালের পরিবেশ বিপর্যয়

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৩৯০ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল না থাকা ও অরক্ষিত নিরাপত্তা বেষ্টনীর ফলে চরম দুর্দশায় পৌছেছে নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর পরিবেশ। সিএনজি-অটো স্ট্যান্ড, ময়লার ভাগাড়, গণটয়লেট, গরু-ঘোড়া চড়ার মাঠ আর মাদকসেবনের আস্তানায় পরিণত হয়েছে প্রায় পৌণে তিন লাখ লোকের স্বাস্থ্যসেবাদানকারী সরকারী এ প্রতিষ্ঠানটি।
ভোক্তভোগী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও সেবাগ্রহীতারা জানান, উপজেলার প্রায় পৌণে তিন লাখ মানুষের স্বাস্থ্যসেবার একমাত্র সরকারী এ প্রতিষ্ঠানটিই ভরসা। প্রতিদিন প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে শুরু করে শহরের অসংখ্য রোগী এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। ইতিপূর্বে চিকিৎসক সংকটসহ কর্তৃপক্ষের নানা সীমাবদ্ধতা থাকলেও এ বছরের শুরুতে নতুন করে চিকিৎসক নিয়োগে অনেকটাই কেটে গেছে সেবা প্রাপ্তির জটিলতা। ওষুধপত্রের সরবরাহও বলাচলে যথেষ্ঠ। এরপরও শুধুমাত্র স্থানীয়দের সহযোগিতার অভাব, চতূর্থ শ্রেণির পদে জনবল সংকট ও নিরাপত্তা বেষ্টনীর রক্ষণাবেক্ষণ সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হওয়ার অভাবে হাসপাতালটির পরিবেশ কোনভাবেই নিয়ন্ত্রনে আনা সম্ভব হচ্ছে না।
দীর্ঘদিন যাবত অপ্রয়োজনীয় দ্বিতীয় গেইটটি বিশেষ মহলের প্রভাবে খোলা রাখা হয়। ফলে ওই পথে প্রবেশ করে প্রতিদিন অসংখ্য সিএনজি-অটো হাসপাতালের স্টাফ কোয়ার্টারের সামনের রাস্তার দুইপাশে পার্কিং করা হয়। এতেকরে হাসপাতাল ক্যাম্পাসটি স্ট্যান্ডে পরিণত হয়েছে। দ্বিতীয় এ গেইটটির দুইপাশের স্থানকে গণটয়লেট হিসেবে ব্যবহার করছে প্রতিদিন শতশত পথচারী। ফটকের দুইপাশে বাইরে থেকে আবর্জনা ফেলে পরিণত করা হয়েছে ময়লার ভাগাড়ে। ফলে দূর্গন্ধ এখানে নিত্যসঙ্গী। এছাড়াও দিনের বেলায় গরু-ঘোড়া নির্বিঘ্নে চড়ে বেড়ায় হাসপাতালের ভিতরে। রাতের বেলায় স্টাফ কোয়ার্টারের অলিগলি পরিণত হয় মাদকসেবীদের নিরাপদ আখড়ায়। এমতাবস্থায় হাসপাতালের পরিবেশ নষ্টের পাশাপাশি উদ্যেগ আর বিব্রতর পরিস্থিতির শিকার হন বসবাসকারী চিকিৎসকসহ অন্যান্যরা। বারবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দ্বিতীয় গেটটি অপ্রয়োজনীয় বলে বন্ধের চেষ্টা করলেও বিশেষ মহলের প্রভাবে খোলা রাখতে বাধ্য হচ্ছেন।

স্টাফ কোয়ার্টারে বসবাসকারী চিকিৎসকরা জানান, এ গেটটির কোন প্রয়োজন নেই। বরং এটি বন্ধ রাখলে হাসপাতালটি কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে থাকে। জেলার অন্যান্য হাসপাতালের মতো একটিমাত্র গেইট খোলা রেখে সার্বক্ষণিক পাহাড়ার ব্যবস্থা রাখলে হাসপাতাল কম্পাউন্ডটির পরিবেশ সুরক্ষা করা সম্ভব বলে তারা জানান। এসময় তারা নিরাপত্তার কারণে প্রধান ফটকে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানোরও দাবী জানান।
এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রেহমা সারওয়াত সালাম জানান, হাসপাতালের সার্বিক উন্নতির জন্য আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাবো। এ জন্য আমি আশা করবো এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি আমার পাশে দাড়াবেন। তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, এখানকার ইউএনও, উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র এবং অন্যান্যদের কাছ থেকে যে সহযোগিতা পেয়েছি আগামীতেও সকল কাজে তাদের পাশে পাব।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোকছেদুর রহমান লেবু জানান, জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমি বদ্ধ পরিকর। এ জন্য যেসব ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী সেসব বিষয়ে জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews