1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ০৯:১৭ পূর্বাহ্ন

নিবন্ধন সনদ জালিয়াতি: চাকুরী থেকে দুই শিক্ষকের স্বেচ্ছায় অব্যাহতি

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১১৭৫ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : নিবন্ধন সনদ জাল বলে প্রমাণিত হওয়ায় নিজেদের দোষ স্বীকার করে আইনী ঝামেলা এড়াতে বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) স্বেচ্ছায় চাকুরী থেকে অব্যাহতি নিলেন জেলার নালিতাবাড়ী শহরের তারাগঞ্জ সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী দুই শিক্ষক। এরা হলেন- সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি) আনোয়ার কবির জুয়েল ও সহকারী শিক্ষক (হিন্দু ধর্ম) মালা রানী বিশ্বাস।
সূত্র জানায়, গত ২০১৫ সালের ১৬ অক্টোবর ৪টি শুন্যপদে নিয়োগ পরীক্ষা শেষে সহকারী শিক্ষক (গণিত) ও সহকারী শিক্ষক (সামাজিক বিজ্ঞান) দুটি পদে দুইজনকে নিয়োগ প্রদান করা হয়। অপর দু’টি পদ সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি) ও সহকারী শিক্ষক (হিন্দু ধর্ম) হিসেবে নির্বাচিত আনোয়ার কবির জুয়েল ও মালা রানী বিশ্বাসের নিবন্ধন সনদ জাল বলে সন্দেহ হওয়ায় তাদের নিয়োগ স্থগিত করা হয়। এ আপত্তির মুখেই গোপনে রেজুলেশন ঘঁষামাজা করে সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি) পদে আনোয়ার কবির জুয়েল ও সহকারী শিক্ষক (হিন্দু ধর্ম) মালা রানী বিশ্বাসকে নিয়োগ দেন তৎকালীন নিয়োগ কমিটি। নিয়োগ অনুযায়ী গত ২০১৬ সালের ১২ এপ্রিল উভয়েই বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। এরপর বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার অভিযোগ উঠলেও কর্তৃপক্ষের প্রভাবে বহাল তবিয়তে জাল সনদেই চাকুরী করছিলেন তারা। সম্প্রতি অভিভাবকদের মৌখিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান বিষয়টি তদন্ত করতে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর কবীর তদন্ত শেষে অভিযোগের সত্যতা উল্লেখ করে গেল বছরের ৩০ অক্টোবর প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদন দাখিলের পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি অভিযুক্ত দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে সাত কার্যদিবসের মধ্যে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিকট পত্র প্রেরণ করেন। এমতাবস্থায় আত্মরক্ষার্থে অভিযুক্ত দুই শিক্ষক অনেক তদ্বির করে ব্যর্থ হয়। অবশেষে বুধবার পারিবারিক সমস্যা জানিয়ে ও নিজেদের জাল সনদের কথা স্বীকার করে স্বেচ্ছায় চাকুরী থেকে অব্যহাতি নেন তারা।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হারুন-অর-রশিদ তালুকদার জানান, অভিযোগের সত্যতা মেলায় অভিযুক্তরা স্বেচ্ছায় অব্যাহতি নিয়েছেন। তবে তারা বিদ্যালয়ের নিয়োগপ্রাপ্ত হলেও এমপিওপ্রাপ্ত ছিলেন না।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, মৌখিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্তে নিবন্ধন সনদ জাল বলে প্রমাণিত হয়। পরে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে গেলে তারা অপরাধ স্বীকার করেন ও স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews