1. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন

হয়রানীর অপর নাম শেরপুর বিআরটিএ অফিস

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৮৩৬ বার পড়া হয়েছে

শেরপুর : টাকা ছাড়া কোন কাজ হয় না শেরপুর বিআরটিএ অফিসে। সরকারি এই অফিসে অনেকটা ওপেনসিক্রেট চলে ঘুষের লেনদেন। টাকা না দিলে গাড়ির মালিক বা চালকদের নানা ধরণের কাগজের কথা বলে ঘুরাতে থাকে। আবার টাকা দিলে সহজেই মিলে যায় বৈধ কাগজপত্র। সবমিলিয়ে সরকারি এই সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানাটি এখন ঘুষ ও হয়রানীর কার্যালয় হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে।
গাড়ি মালিক, চালক ও বিশ্বস্ত সূত্র জানা গেছে, সম্প্রতি শেরপুর পুলিশ চেকপোস্ট বসিয়ে কড়াকড়ি করে গাড়ির কাগজপত্র দেখছে গাড়ি ও চালকদের কাছ থেকে। কাগজপত্র সঠিক না পেলেই জরিমানা ও মামলায় পড়তে হচ্ছে। আর এ অভিযানের পর থেকেই গাড়ির মালিক-চালকরা মামলা থেকে রক্ষা পেতে গাড়ি সংশ্লিষ্টরা হুমড়ি খেয়ে পড়ছে শেরপুর বিআরটিএ অফিসে। এ সুযোগে বিআরটিএ অফিস নানা ফাঁদ পেতে সরকারী ফি’র বাইরে হাতিয়ে নিচ্ছে বাড়তি টাকা।
সূত্র জানায়, উৎকোচের টাকা আদায়ের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ওই অফিসের কেউ সরাসরি জড়িত থাকেন না। খুব কৌশলে এই টাকা আদায়ের জন্য অফিসেই আছে অন্তত ছয়জন নির্ধারিত লোক। বিভিন্ন জায়গায় নিয়োজিত আছে আরও অন্তত ১৫ জন দালাল। কেউ গাড়ির কাগজের জন্য অফিসে গেলেই সরকারী কর্মকর্তারা এই কাগজ লাগবে ওই কাগজ লাগবে বলে নানান ধানাই-পানাই করে কৌশলে পাঠিয়ে দেন দালালদের কাছে। দালারদের কাছে গেলেই শুরু হয় দেনদরবার। দেনদরবার মিলে গেলে কাগজপত্র আর তেমন কিছু লাগে না।
জানা গেছে, ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ক্ষেত্রে ১৪ প্রকারের কাগজি সেবা দিয়ে থাকে বিআরটিএ অফিস। এ ১৪ প্রকারের সেবার মধ্যে রয়েছৈ শিক্ষানবিশ লাইসেন্স, শিক্ষানবিশ লাইসেন্স (দুই শ্রেণির) মেয়াদোউত্তীর্ণ, শিক্ষানবিশ লাইসেন্স নবায়ন, মেয়াদোউত্তীর্ণ শিক্ষানবিশ লাইসেন্স নবায়ন, অপেশাদার (নতুন পরীক্ষার পর) লাইসেন্স, পেশাদার (নতুন পরীক্ষার পর), অপেশাদার (নরায়ন), পেশাদার (নরায়ন), পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন, মেয়াদোউত্তীর্ণ লাইসেন্স নবায়ন।
এছাড়া বিআরটিএ অফিস আরও যেসব সেবা দিয়ে থাকে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন, ট্যাক্স টোকেন, রুট পারমিট, ফিটনেস সার্টিফিকেট, সরকারী গাড়ি মেরামত এবং অকেজোকরণ, সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিবেদন, সড়ক নিরাপত্তামূলক প্রশিক্ষণ, মোটরসাইকেল মালিকানা বদলি, মোটরযানের এন্ড্রোস ও ট্রান্সফার ক্লিয়ারেন্স, মোবাইল কোর্ট প্রসিকিউশনের দায়িত্ব পালন, মোটরযানের ফিঙ্গারপ্রিন্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্সের ফিঙ্গারপ্রিন্টসহ আরও অনেক সেবা। সব সেবার সরকারী ফি নির্ধারণ করা আছে। কিন্তু এসব সেবা পেতে সরকারী ফি’র বাইরে নানা অজুহাতে বাড়তি টাকা আদায় করা হয় বলে ভুক্তভোগিরা জানিয়েছেন। তবে লোকভেদে এ টাকার পরিমাণ কমবেশি হয়। হয়রানি আর ঘুষ আতংকে তারা বিআরটিএ অফিসে যেতেই ভয় পান।
এসব অভিযোগের বিষয়ে বিআরটিএ এর সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ জানান, এখানে অনিয়ম বা ঘুষ নেয়ার সুযোগ নেই। তবে লোকবল সংকটের কারণে অনেক কাজ করতে একটু সময় লাগে। প্রতিমাসে ৩শ লোকের সেবা দেয়ার ক্যাপাসিটি থাকলেও সেবা দিতে হচ্ছে প্রায় ১২ শ লোকের। তিনি বলেন, আজ পর্যন্ত আমার কাছে কেউ কোন ঘুষ-অনিয়মের অভিযোগ করেননি। যদি করেন তবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
– মোহাম্মদ দুদু মল্লিক

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews