1. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০, ০৯:১৮ পূর্বাহ্ন

মধুটিলা ইকোপার্কে উপচেপড়া দর্শনার্থী: সেবা-সুবিধা না বাড়লেও বেড়েছে ভোগান্তি

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৪২৭ বার পড়া হয়েছে

মনিরুল ইসলাম মনির : শেরপুরের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র নালিতাবাড়ীর মধুটিলা ইকোপার্কে দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভির পড়েছে। তবে সেবা-সুবিধা কোনটাই না বাড়লেও বেড়েছে প্রবেশ মূল্যসহ অন্যান্য ফি। রয়েছে খাবার পানিসহ বেশকিছু অত্যাবশ্যকীয় সংকট। এমতাবস্থায় সেবা ও সুবিধা দুটোই বৃদ্ধির দাবী দর্শনার্থীদের।
১৯৯৯ সালে ময়মনসিংহ বন বিভাগের আওতায় ৩৮০ একর পাহাড়ি-সবুজ মনোরম প্রকৃতি ঘিরে ভারত সীমান্তের দুই কিলোমিটারের কাছাকাছি স্থাপন করা হয় পর্যটনকেন্দ্র ‘মধুটিলা ইকোপার্ক’। তৎকালীণ কৃষিমন্ত্রী ও বর্তমান স্থানীয় সংসদ সদস্য মতিয়া চৌধুরীর প্রচেষ্টায় নির্মিত এ পার্ককে ঘিরে পর্যায়ক্রমে নির্মাণ করা হয় ওয়াচ টাওয়ার, রেস্ট হাউজ মহুয়া, শিশুপার্ক, মিনি চিড়িয়াখানা, কৃত্রিম লেক, স্টার ব্রিজ ও বিভিন্ন প্রাণীর ভাস্কর্য। চোখ ও মন জুড়াতে এসব দেখতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিবছর লাখো দর্শনার্থী ভির করে মধুটিলায়। বিশেষ করে নভেম্বর থেকে মার্চের মাঝামাঝি পর্যন্ত পর্যটন মৌসুমে দর্শনার্থী থাকে লক্ষ্যণীয়।
তবে পার্ক স্থাপনের পরপরই তিন নম্বর গেইট এলাকা থেকে অজ্ঞাতনামা লাশ উদ্ধার, ২০০৩ সালে প্রেমিক নিয়ে বেড়াতে আসা প্রেমিকা গণধর্ষণের শিকার, ২০১১ সালে পার্ক সংলগ্ন উত্তরের পাহাড় থেকে অজ্ঞাতনামা মানবকঙ্কাল উদ্ধার, একই বছর ৫ ডিসেম্বর রাতে পার্কের পাশে স্থানীয় ইউপি সদস্য খুন, পরদিন ৬ ডিসেম্বর পার্ক সংলগ্ন উত্তরের রাস্তায় জবাই করে মোটরসাইকেল ছিনতাই, ২০১৪ সালে ১৭ জুলাই বেড়াতে আসা স্বামী-স্ত্রী পর্ণোগ্রাফির শিকার, ২০১৬ সালের ২২ জানুয়ারি বেড়াতে আসা তরুণ-তরুণী ছিনতাইয়ের শিকার, ১৩ ফেব্রুয়ারি পার্ক থেকে কৌশলে লালপাহাড়ে নিয়ে ছিনতাই ও মারধর এবং ২০ ফেব্রুয়ারি একই কৌশলে লাল পাহাড়ে নিয়ে শেরপুরের এক কলেজ শিক্ষার্থীকে হত্যা ও অপর তিনজনকে গুরুতর আহত ছাড়াও প্রতিনিয়ত ছিনতাই, ইভটিজিং ও শ্লীলতাহানীর ঘটনায় পার্কে দর্শনার্থী ভাটা পড়ে। অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও সংস্কার এবং নতুনত্ব না থাকাও দর্শনার্থী টানতে ব্যর্থ হয় পার্কটি। পরবর্তীতে ২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে আইন-শৃঙ্খলার উন্নতি হওয়ায় দর্শনার্থী বাড়তে শুরু করেছে। বিশেষ করে ছুটির দিনগুলোতে ভ্রমনপিপাসুদের ভির লক্ষ্যণীয়। অথচ সেবা-সুবিধা বাড়ানো হচ্ছে না বলে অভিযোগ দর্শনার্থীদের। উল্টো প্রবেশ মূল্য থেকে শুরু করে সকল পর্যায়ে বৃদ্ধি করা হয়েছে মূল্য। খাবার পানিসহ রয়েছে অত্যাবশ্যকীয় বেশকিছু বিষয়ের সংকট। ফলে দূর-দূরান্ত থেকে আসা দর্শনার্থীরা অনেকটা ভোগান্তি নিয়েই ফিরে যাচ্ছেন। প্রতিবছর ইজারা দিয়ে সরকার প্রায় অর্ধকোটি টাকা রাজস্ব পেলেও পার্কটির আধুনিকায়নে নিচ্ছে না কোন উদ্যোগ। নেই পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা। নন্নী গ্রামীণ ব্যাংক এলাকা থেকে কয়েক কিলোমিটার রাস্তারও এখন চলাচলের অনুপযোগী।
শেরপুর প্রতিভা শিক্ষাঙ্গনের শিক্ষার্থী তুষ্টিমনি ও মধুপুরের সান সাইন কিন্ডারগার্ডেন এর পরিচালক রাসেল জানান, পার্কে বেড়াতে এসে অনেক ভালো লেগেছে। তবে সেবা এবং সুবিধা বৃদ্ধি করল আমরা আরও বেশি আনন্দ পেতাম। বিশেষ করে খাবার পানি সংকট ও টয়লেট সুবিধা পর্যাপ্ত নয় বলে তারা জানান।
মধুটিলা রেঞ্জ কর্মকর্তা আব্দুল করিম পার্কের বিভিন্ন খাতে ইজারাদার কর্তৃক অতিরিক্ত মূল্য আদায়ের বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, আমি নিয়মিত তাদের এ বিষয়ে সতর্ক করে থাকি। আমার জানামতে, চার্টে নির্ধারিত মূল্য তালিকা অনুযায়ী প্রবেশমূল্যসহ অন্যান্য ফি আদায় করা হয়ে থাকে।
তিনি আরও জানান, ইকোপার্ক হিসেবে বিলুপ্তপ্রায় ও মূল্যবান প্রজাতির গাছপালা রোপন করে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বৃদ্ধি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই দশ হেক্টর জমিতে একান্ন প্রজাতির বিলুপ্তপ্রায় ও মূল্যবান গাছ লাগানো হয়েছে। এছাড়াও গেল বছরের শেষদিকে পার্কের নিরাপত্তা বৃদ্ধি করতে ৬ কিলোমিটার বাউন্ডারি নির্মাণ ও এক কিলোমিটার কৃত্রিম লেক সম্প্রসারণসহ বেশকিছু প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews