1. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০, ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন

জনশুমারীর নির্বাচিত তালিকায় নাম না থাকায় নালিতাবাড়ীতে পরিসংখ্যান কর্মকর্তা লাঞ্ছিত

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৬৯২ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : জনশুমারীর কাজে নিয়োগ করতে নির্বাচিতদের তালিকায় নিজেদের নাম না থাকায় অনিয়মের অভিযোগ তোলে পরিসংখ্যান কর্মকর্তাদের লাঞ্ছিত ও নির্বাচিতদের তালিকা ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) তালিকা প্রকাশের পর মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বেলা আড়াইটার দিকে শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে এমন ঘটনা ঘটায় বাদপড়া কতিপয় প্রার্থী।
সূত্র জানায়, সারাদেশের ন্যায় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর অধীনে নালিতাবাড়ী উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় জনশুমারীর কাজে ৩৪জন সুপারভাইজার ও ১৯১জন তালিকাকারীসহ মোট ২২৫ জন কর্মী নিয়োগ করতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে উপজেলা প্রশাসন। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর ২২৫ জনের বিপরীতে আবেদন জমা হয় ১ হাজার ৭১৮ জনের। প্রাথমিক যাচাই-বাছাই শেষে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পৃথক চারটি ভেন্যুতে তিন দিনব্যাপী ভাইবা বা মৌখিক পরীক্ষা নেয়া হয়। এরপর গত ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রথম ধাপে জনশুমারীর কাজের জন্য চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত ২২৫ জন ও দ্বিতীয় ধাপে গণশুমারীর জন্য আরও বেশকিছু প্রার্থীর তালিকা প্রকাশ করা হয়। তালিকা প্রকাশের পরপরই জনপ্রতিনিধিদের অনেকেই তাদের সুপারিশকৃত তালিকা অনুযায়ী প্রার্থীদের না নেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং প্রশাসনের প্রতি পাল্টা অভিযোগ তোলেন। বাদ পড়া অনেক প্রার্থীও কর্তৃপক্ষ মনগড়াভাবে নিয়োগের তালিকা প্রকাশ করেছেন বলে অভিযোগ তোলেন। একপর্যায়ে মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে ২০-৩০ জনের মতো কতিপয় বাদ পড়া প্রার্থী উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে গালিগালাজ ও কর্মকর্তাদের লাঞ্ছিত করেন। একইসঙ্গে নির্বাচিতদের নাম সম্বলিত টানানো তালিকা ছিঁড়ে ফেলেন তারা। এসময় উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা জালাল উদ্দিন ও জেলা পরিসংখ্যান অফিসের উপ-পরিচালক মুশফিকুর রহমান পারভেজ বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হন।
উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা জালাল উদ্দিন জানান, বেলা আড়াইটার দিকে কতিপয় বাদ পড়া প্রার্থী তার কার্যালয়ে ঢুকে তাদের সাথে দূর্র্ব্যবহার করে এবং নির্বাচিতদের তালিকা ছিঁড়ে ফেলে। বিষয়টি তিনি ও জেলা কর্মকর্তা প্রধান কার্যালয়কে অবহিত করেছেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, পৃথক নিয়োগ পরীক্ষার মাধ্যমে মেধা তালিকায় অপেক্ষাকৃত ভালো যারা করেছেন কেবলমাত্র তাদেরই চূড়ান্ত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে কারও কোন তালিকা বা নির্দেশনা অনুসরণ করা হয়নি। এক্ষেত্রে কারও অভিযোগ থাকলে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করতে পারতেন। মিথ্যা অভিযোগ তোলে বিশৃঙ্খলা করাটা অবশ্যই ভালো কাজ নয়। আমরা এ বিষয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews