1. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০৭:০৪ পূর্বাহ্ন

চেনাজানা কাক

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৭ মার্চ, ২০২০
  • ২৫ বার পড়া হয়েছে

– মনিরুল ইসলাম মনির –
কথায় আছে “কাকের মাংস কাকে খায় না”। বাস্তবে কিছুটা হলেও খায়। অন্তত নোংড়া কাকগুলো নিজেদের মাংস খেতে না পারলে তো বাঁচতেই পারে না। নিজের পেছনে হাজারো ছিদ্র রেখে ওই কাকগুলো অন্য কাকের পেছনে কা কা করে। ছিদ্র তালাশ করে। ভাগ্যিস সামনের কাকটি পেছনের কাকগুলোর নোংড়ামি নিজেদের বলে চেপে যায়। নইলে কাকে কাকে কামড়া-কামড়ি অনেক আগেই হয়ে যেতো।
এক দেশে এক কাকের বাচ্চা ছিল। বাচ্চাটি যখন ধীরে ধীরে বড় হতে লাগল তখন অন্য কাকেরা দেখল, তাদের অনেককে পেছনে ফেলে বাচ্চা কাকটি সামনের সাড়িতে চলে যাচ্ছে। যারপরনাই অন্য কয়েকটি কাক বাচ্চা কাকটিকে স্নেহ না করে ঠুকরাতে লাগল। পথচলায় অনভিজ্ঞ বাচ্চা কাকটি স্বজাতির ঠোকর খেয়ে আহত অবস্থায় একসময় যৌবনে পা বাড়াল। শরীরে তার অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন। তবু বারবার বয়োজ্যেষ্ঠ কাকদের পাখার নিচে আসতে চায়। কিন্তু কোনভাবেই সদ্য যৌবনা কাকটিকে নিজেদের দলে ভিড়তে দেয় না। একসময় কাকটি একাই পথ চলতে লাগল। সময় গড়িয়ে কাকটি নিজের মতো করে আলাদা রাজ্য বানাল। নিজের রাজ্যে কাকটি নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত সারাক্ষণ। তবু পিছু ছাড়ে না অন্য কাকগুলো। নিজেদের রাজ্য ছেড়ে বারবার সদ্য রাজা কাকটির বাসায় হানা দেয়। রাজ্যে হানা দেয়। কোনভাবেই না পেরে শেষ পর্যন্ত মাংসের লোভ দেখিয়ে ওই রাজ্যের কিছু কাক নিজেদের রাজ্যে আমন্ত্রণ জানাল। আমন্ত্রণ পেয়ে মন্ত্রীত্ব ছেড়ে কয়েকটি কাক মহাখুশিতে রাজ্য ছেড়ে রাজা ছেড়ে চলে গেল অন্য কাকেদের রাজ্যে। এরপর ওই রাজ্যে বসবাসকারী দলনেতা কাকগুলো নতুন প্রজাদের নিয়ে নিজেদের মধ্যে বিভেদে জড়িয়ে গেল। ফলে রাজ্য ত্যাগ করা কাকগুলো অন্য রাজ্যে বসবাস করলেও নাগরিকত্ব সংকটে পড়ল।
এদিকে আলাদা রাজ্যের নতুন রাজা কাকটি আবারও তার রাজ্য ছোট করে গঠন করল। দীর্ঘ পথপরিক্রমায় এ রাজা দেখল ছোট রাজ্যেও অনেক ভালো থাকা যায়। ফলে কিছু প্রজার বিরহে ভেঙ্গে না পড়ে উল্টো তার রাজত্ব নিয়ে মহাখুশি হলো। এতদিনে অন্তত নিজেকে আবিস্কার করতে পেরে নিজের রাজ্যে পরিধি বাড়াল। ভিন দেশের ভিন রাজাদের সাথে ভাতৃত্ব শক্ত হলো। ফলে কূটনৈতিক শক্তিতে রাজা আগের চেয়ে বলিয়ান হয়ে নিজের রাজ্যকে বিশ্বের অন্যান্য রাজ্যে প্রভাব বিস্তার ঘটাল।
এরপরও পেছনে লেগে থাকা কাকেরা পিছু ছাড়ল না। সবধরণের অপকর্ম করে বেড়ানো কয়েকটি কাক তবু এ রাজ্য নিয়ে ষড়যন্ত্রের জাল বুনতে ব্যস্ত থাকল। রাজা হওয়ার যোগ্যতা না থাকলেও রাজ্য ছিনিয়ে নিতে ব্যস্ত থাকল। তাদের পাপের ফিরিস্তি নিয়ে রাজ্যে ঝুট-ঝামেলা হলেও সেসব ভুলে গিয়ে অন্য রাজার ঝামেলা খুঁজতে ব্যস্ত হয়ে পড়ল। অন্যের খাবার ছিনিয়ে নেওয়ায় অভ্যস্ত কাকগুলো ওই রাজার পেছনে পড়ে রইল এই ভেবে যে, ওই রাজা কারও খাবার ছিনিয়ে নিয়েছে কি না।
তবে দূর্ভাগ্যবশত এইসব খবরাখবর আলাদা রাজ্যের রাজার কাছে দূত মারফত সবসময় পৌছে যেত। তাই রাজা এবার ভাবতে থাকল, শত ত্রুটি নিয়ে বেঁচে থাকা প্রজা কাকগুলোকে বারবার ছেড়ে দিয়েই কি তবে ভুল করেছি? নানা অপকর্মের অভিযোগ আর ষড়যন্ত্রের জাল তো বারবারই প্রত্যক্ষ করি। কখনও মাথা খাটাইনি। তবে কি এবার মাথা খাটানোর সময় এসেছে? নাকি আগের মতোই পথ চলব? কারণ যেসব কাক পেছনে লেগে কা কা করেছে তারা আজও পেছনেই। না আছে নিজেদের রাজ্য, না আছে ভালো প্রজা হওয়ার যোগ্যতা। শুধু আছে বিভাজন আর প্রতারণার দক্ষতা। যারা ভিনদেশে বসে মোড়লগিরি করছে তাদের গন্তব্যই বা কতদূর? নিশ্চই সমৃদ্ধ রাজ্য গঠনের সামর্থ নেই? এসব প্রশ্ন রাজাকে বারবার ভাবিয়ে তোলছে। ভাবছে, আমি তো ভালো আছি। তবে ওসব নিয়ে ভেবে সময় নষ্ট করব কেন? নোংড়া-ময়লায় অভ্যস্তরা ময়লা নিয়ে থাকবেই। তবে আমি কেন সে ময়লায় জড়াব? তবে হ্যাঁ, কখনও কখনও পাল্টা জবাব তো দিতেই হবে। সবসময় মুখ বুঝে থাকলে এরা মাথায় উঠবে। আফসোস, বোকা কাকগুলো নিজেদের চালাক ভাবলেও চরম অন্ধকারে ডুবে আছে। সব অপকর্ম আর ষড়যন্ত্রের জাল আমার হাতের মুঠোয়। কখন কোথায় কিভাবে কোন ষড়যন্ত্র হয়েছে, হয় সব নথিপত্রই আছে। সময় পাল্টে যায়। মানুষও পাল্টে যায়। সময়ই সব বলে দেয়। আমার রাজ্য আছে, সৈন্য আছে, অস্ত্রও আছে। তব ভয় কিসে? পৃথিবীতে আজ পর্যন্ত যতো ষড়যন্ত্র হয়েছে কোন ষড়যন্ত্রই পূর্ণাঙ্গ সফলতা পায়নি, পাবেও না। কখনও কখনও সাম্রাজ্যের পতন হলেও ষড়যন্ত্রকারীরা ইতিহাসের আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। সম্রাটরা সাময়িক হেরে গেলেও স্মরণীয় হয়ে আছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews