1. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০৯:২৪ পূর্বাহ্ন

‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ ও প্রাসঙ্গিক জরুরী কথা

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ২০ মার্চ, ২০২০
  • ১৪৯ বার পড়া হয়েছে

গত দুইদিন (১৮ মার্চ) যাবত নালিতাবাড়ীতে সাংবাদিকদের পেশাগত সংগঠন প্রেসক্লাব নিয়ে নানামুখী লেখালেখি-আলোচনা চলছে বলাচলে প্রায় সর্বমহলে। সে লক্ষ্যে সকলের সদয় অবগতি তথা জ্ঞাতার্থে বিনয়ের সাথে ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ এর পক্ষ থেকে বিষয়টি পরিস্কার হওয়া বাঞ্ছনীয়।
নালিতাবাড়ীতে কর্মরত ও এ পেশা থেকে বিদায় নেয়া সিনিয়রদের কাছ থেকে এবং সার্বজনিন প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ২০১০ সালে প্রকাশিত ‘যোগাযোগ নির্দেশিকা’র তথ্য অনুযায়ী দৈনিক ইত্তেফাক এর নালিতাবাড়ী সংবাদদাতা জনাব সামেদুল ইসলাম তালুকদারের উদ্যোগে ১৯৯২ সালে ওই সময় কর্মরত ৯ জন সংবাদকর্মীর সমন্বয়ে নালিতাবাড়ীতে সর্বপ্রথম সাংবাদিকদের সংগঠন ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ গঠন করা হয়। দীর্ঘ সময় সামেদুল ইসলাম তালুকদারের নেতৃত্বে তথা সভাপতিত্বে চলে সংগঠনের কার্যক্রম। এরপর ২০০২ সালে যুগান্তর প্রতিনিধি আলহাজ্ব এমএ হাকাম হীরাকে সভাপতি ও গোপাল চন্দ্র সরকারকে সাধারণ সম্পাদক করে এগারো সদস্য বিশিষ্ট তৃতীয় কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠন করা হয়। কিন্তু কিছুদিন পর প্রেসক্লাবের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। এরইমধ্যে নালিতাবাড়ীতে একঝাঁক তরুণ সংবাদকর্মী তৈরি হয়। ২০০৭ সাল নাগাদ সামেদুল ইসলাম তালুকদার, এমএ হাকাম হীরা, মাহফুজুর রহমান সোহাগ, মনিরুল ইসলাম মনির ও আব্দুল মান্নান সোহেলসহ কয়েকজন কয়েক দফায় বৈঠক করে প্রেসক্লাবকে কার্যকরী করতে উদ্যোগ নেন। এ উদ্যোগের অংশ হিসেবে তৎকালীন পৌরসভার মেয়র আব্দুল হালিম উকিলের সাথে যোগাযোগ করে শহীদ মিনারের পূর্ব-উত্তর কর্ণারে থাকা একটি ঘর ভাড়ায় চুক্তি করে বরাদ্দ নেয়া হয়। এরপর হঠাৎ একদিন অধিকাংশ সংবাদকর্মীকে না জানিয়ে গোপনে নতুন কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়। বাদ পড়াদের মধ্যে সামেদুল ইসলাম তালুকদার, মাহফুজুর রহমান সোহাগ, মনিরুল ইসলাম মনির, এম সুরুজ্জামান, আব্দুল মোমেন, রকিবুল ইসলামসহ অনেকেই ছিলেন। ফলে এ নিয়ে সংবাদকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ দেখা দেয়। একপর্যায়ে বাদ পড়া তরুণ সকলকে সদস্যপদ লাভ করতে আবেদন আহবান করা হয়। আহবানে সাড়া দিয়ে বেশ কয়েকবার তরুণেরা আবেদন করলেও বিশেষ মহলের কারণে সদস্য করা সম্ভব হয়ে উঠে না। এরই মধ্যে ‘যোগাযোগ নির্দেশিকা’ প্রকাশের উদ্যোগ নেওয়া হলে তৎকালীন দায়িত্বশীলদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝির সূত্র ধরে বিভাজন তৈরি হয়। ফলে ২০১০ সালে পুনরায় সামেদুল ইসলাম তালুকদারকে সভাপতি ও গৌতম পালকে সাধারণ সম্পাদক করে ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ এর কমিটি গঠন করা হয়। সেই ২০১০ থেকে ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ পৌরসভা কর্তৃক ভাড়ায় নেয়া নতুন নির্মিত ঘর ছেড়ে বাইরে অস্থায়ী কার্যালয় বানিয়ে চলে সংগঠনের কার্যক্রম।
অন্যদিকে ঘর নিজেদের দখলে রেখে ‘প্রেসক্লাব নালিতাবাড়ী’ এর কার্যক্রম চলে জনাব এমএ হাকাম হীরার নেতৃত্বে। যেহেতু প্রতিষ্ঠাকালীন নামকরণ ছিল ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ সেহেতু ‘প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী’ কিছুদিন তাদের প্রতিষ্ঠাকাল ২০০২ সাল ব্যবহার করে। পরবর্তী সময় থেকে কৌশলগত কারণে ‘প্রেসক্লাব নালিতাবাড়ী’ নিজেদের প্রতিষ্ঠাকাল ১৯৯২ বলে প্রচারণা দিয়ে আসছে।
মূলত, নালিতাবাড়ীতে কর্মরত সাংবাদিকদের প্রথম ও মূল ক্লাব হলো ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ যা ১৯৯২ সালে সামেদুল ইসলামের হাত ধরে যাত্রা শুরু করে। এখনও পর্যন্ত নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে তার হাতেই নেতৃত্ব রয়েছে।
অন্যদিকে ২০১০ সালে বিভাজনের পর থেকে জনাব এমএ হাকাম হীরার নেতৃত্বাধীন ‘প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী’ এর কার্যক্রম চলে আসছে। প্রমাণ হিসেবে সার্বজনিন থাকাবস্থায় প্রকাশিত যোগাযোগ নির্দেশিকাই আলোচনায় আনা যেতে পারে। ওই নির্দেশিকার সামনের পৃষ্ঠায় কাভারে ‘প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী, শেরপুর’ উল্লেখ করা। আর ভিতরে তৎকালীন সংসদ সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, সাবেক হুইপ ও সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জাহেদ আলী চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য ও স্বরাষ্ট্র উপমন্ত্রী অধাপক আব্দুস সালাম, তৎকালীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কৃষিবিদ বদিউজ্জামান বাদশা, পৌরসভার মেয়র আব্দুল হালিম উকিল সাহেবের বাণীতে ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ শিরোনাম ব্যবহার করা হয়। শুধু কি তাই, ক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব এমএ হাকাম হীরার বাণীতেও ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ ব্যবহার করা হয়। একইভাবে ‘যোগাযোগ নির্দেশিকা’র শেষভাগে ‘আমাদের প্রেসক্লাব’ শিরোনামে লেখায়ও ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ ব্যবহার করা হয়েছে।
এসব প্রমাণ থেকে স্পষ্টভাবেই বুঝা যায় যে, মূলত নালিতাবাড়ীতে কর্মরত সাংবাদিকদের প্রথম ও মূল সংগঠন ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’। বর্তমানে এর সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন সামেদুল ইসলাম তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন মনিরুল ইসলাম মনির। অন্যদিকে ২০১০ সালে বিভাজন হওয়ার পর ‘প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী’র জন্ম। যার বর্তমান কমিটি নিয়ে নিজেদের মধ্যে মতানৈক্য চলমান।
আমাদের কথা হলো, কিছু স্বার্থান্বেষী মানুষের বলি সাংবাদিকদের সংগঠন প্রেসক্লাব দুই ভাগে বিভক্ত হলেও আমরা সবাই পেশায় একই। পৃথিবীর সব পেশায় মতানৈক্য আছে, আমাদেরও থাকতে পারে। তবে তা হওয়া চাই বিতর্কের বাইরে। নালিতাবাড়ীর সাংবাদিকদের মূল ও পুরনো সংগঠন ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’। অন্যদিকে ‘প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী’তে যারা আছেন তারাও নিঃসন্দেহে সাংবাদিক। তবে সেটি পুরনো তথা ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত নয়।
তাদের মধ্যে মতানৈক্য তাদের আভ্যন্তরীণ হলেও পেশায় এক বলে যে কেউ ক্লাবের নেতৃত্বে গেলে আমাদের পক্ষ থেকে অভিনন্দন থাকবে। আমাদের নিজেদের মতপার্থক্য থাকলেও তা নৈতিক ও গঠনমূলক হবে বলে প্রত্যাশা রাখি। পাশাপাশি মতভেদ থাকলেও দেশ ও মানুষের স্বার্থে আমরা এক সাড়িতে কাজ করব বলেও বিশ্বাস ও প্রত্যাশা দু-ই রাখি। একইসঙ্গে প্রতিষ্ঠাকাল নিয়ে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর অনুরোধ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি।

বলে রাখা ভালো, বিশেষ চক্রটি পুনরায় সক্রীয় হয়ে ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’কে ভাঙতে গিয়ে নিজেদের মতপার্থক্যকেই প্রতিষ্ঠিত করল। তবে আমাদের কথা হলো, ‘দুষ্ট গরুর চেয়ে শুন্য গোয়াল ভালো’। কম লোক নিয়ে চলতে চাই, তবু নিজেদের মধ্যে বিভেদ নয়। স্বার্থবাদী-সুবিধাবাদী-সুযোগসন্ধানী অসংখ্য মানুষের চেয়ে কমসংখ্যক নিস্বার্থ মানুষ জরুরী।

ধন্যবাদান্তে
সামেদুল ইসলাম তালুকদার- সভাপতি
মনিরুল ইসলাম মনির- সাধারণ সম্পাদক
নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব, নালিতাবাড়ী, শেরপুর।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews