1. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০৮:২৩ পূর্বাহ্ন

জাতির বিবেক হিসেবে আমরা কোথায়?

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ২১ মার্চ, ২০২০
  • ২০৮ বার পড়া হয়েছে

– মনিরুল ইসলাম মনির –
আমাকে এ জন্যই অনেকে পছন্দ করেন না। সামনে অসামঞ্জস্য কিছু দেখলেই নাক গলাই বলে। তবু গলিয়ে যাই। কারণ, মানুষের স্বাভাব পাল্টায় না। আমি তবে কেমনে পাল্টাই?
আমরা জাতির বিবেক। জাতির বিবেকদের মধ্যে মতপার্থক্য এমনকি ভিন্ন মতের কারণে ভিন্ন ভিন্ন মতাদর্শে ক্লাব বা গ্রুপিং থাকবে- এটা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু তাই বলে কাঁদা ছোঁড়াছুঁড়ি তো হতে পারে না। কথায় আছে “অন্যের চালে ঢিল ছুঁড়লে নিজের চালে পড়ে”। বিষয়টি অনেকটা এমনই। দীর্ঘ আঠারো বছরে (২০০২-২০২০) ‘সম্মানিত মহামানবদের’ দুয়ারে আমরা অধিকাংশ নবীন সংবাদকর্মী অসংখ্যবার ধর্ণা দিয়েছি একই ক্লাবে বসব বলে। না হলে দুই থেকে তিনবার লিখিত আবেদন পর্যন্ত করেছি। তখন আমি, সোহাগ, সুরুজ্জামান, মোমেন, রকিব এদের মতো লোকেদের জায়গা হয়নি। এমনকি সামেদুল ইসলামের মতো সর্ব সিনিয়র সাংবাদিকও তাদের কমিটিতে থাকতে পারেননি। বাধ্য হয়ে নানা মতে আমরা বিভক্ত হয়ে নিজেদের মধ্যে ঐক্য ধরে রেখেছি। সবশেষ গেল বছর পুনরায় বাদপড়া কর্মীরা মিলে ‘নালিতাবাড়ী প্রেসক্লাব’ এর কমিটি ঘোষণা দেওয়ার পর সুরুজদের মতো সংবাদকর্মীদের মূল্য হঠাৎ করে তাদের কাছে বেড়ে গেল। আমাদের মাঝে দেড় যুগের পেশাগত ও বন্ধুত্বের ভাঙ্গন তৈরি করতে তারা উঠেপড়ে লাগল। সফলও হলো। আমরা এতে বিচলিত না হয়ে সংগঠন ধরে রাখলাম। যদিও সদস্য সংখ্যা কমে এলো। তদুপরি দেড় যুগের সম্পর্ক ছিন্ন করায় নতুন করে বিদায়ীদের চিনতে পেরে চিত্তে সুখ এলো এই ভেবে যে, অন্তত বিলম্বে হলেও এদের চিনতে পারলাম। সত্যিকারার্থে এতেকরে সব ঝামেলা পেছনে ফেলে মহান আল্লাহ আমাকে আরও এগিয়েই আনলেন।
কিন্তু ওখানে হলো টা কি? আমাদের ভাঙতে গিয়ে নিজেদের মধ্যে যে চির ধরেছে তাতে জোড়া লাগলেও যতটুকু কাঁদা ছোঁড়াছুঁড়ি হয়েছে তাতে সাধারণ মানুষ হয়ত খুব ভালোভাবে নেবেন না। একপক্ষ আমাদের ভাঙতে গিয়ে নয় সদস্যের কমিটির চারজনকে সঙ্গে নিয়ে গোপনে ক্ষমতাবলে নতুন সদস্য ঘোষণা করলেন। অপর পক্ষ পাঁচজনকে সঙ্গে নিয়ে এ কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে নতুন আহবায়ক কমিটি করে ঘোষণা দিলেন। দুইদিন যাবত দুইপক্ষের পাল্টাপাল্টি ঘোষণা চলছে। নিশ্চই এটা আমাদের জন্য সম্মানের নয়। এ থেকে স্পষ্টতই বুঝা যায়, কোন পক্ষটি অপতৎপরতা তথা কূট-কৌশল অবলম্বন করেছেন। বিষয়টি বিবেকবান জনসাধারণ অবশ্যই অনুধাবন করবেন। আমরা তরুণরা সকলে মিলে বারবার চেষ্টা করেও একসাথে বসতে তাদের মন গলাতে পারিনি। আর আমরা কমিটি করার পর তখন আমাদের কারও কারও ক্বদর তাদের কাছে বেড়ে গেল। দীর্ঘ আঠারো বছর কোথায় ছিল সেইসব ভালো মানুষদের ক্ষমতা? তখন কেন কারও কারও মতের বাইরে গিয়ে প্রেসক্লাব একিভূত করা হয়নি? জানি এর সদুত্তর আপনাদের কাছে নেই।
বিশ্বাস রাখি, ভালো মানুষের কাজ এমন হতে পারে না। আমি গ্রুপিং আর লবিং যাই করি অন্যের ঘরে ঢিল ছুঁড়তে যাই না। ব্যস্ত থাকি নিজেকে এগিয়ে রাখতে আর মাঝে-মধ্যে সমস্যা সংকুল পরিস্থিতি সামাল দিতে। তাই হয়ত অনেক সহকর্মীর প্রত্যক্ষ মদদে নানা বাধা পেরিয়ে আল্লাহ এখনও আমাকে এগিয়ে রেখেছেন। শোকরিয়া আল্লাহর কাছে। শোকরিয়া ও কৃতজ্ঞ সাধারণের কাছে। আল্লাহর রহমতে, কারও দয়ায় এতটুকু আসিনি। সম্পূর্ণ নিজের চেষ্টা, মানুষের ভালোবাসা আর আল্লাহর রহমতে এতটুকু এসেছি। বারবার ষড়যন্ত্র হয়েছে, সাময়িক অসুবিধা হলেও টিকে রয়েছি এবং এগিয়ে গেছি। অহংকার নয়, গর্ব করে বলতে চাই- এমন অনেকেই আছেন ফ্যাক্স এর যুগে আমার হাতে কম্পোজ করা খবর ছাড়া তাদের সাংবাদিকতা হতো না। আমি ছিলাম বলেই এতদূর। নইলে এখনও ভাবতে হতো। কাউকে আতুর ঘর থেকে বড় করেছি, কাউকে বা প্রসব করেছি, আবার কাউকে এগিয়ে রাখতে তার হাত ধরেছি। দ্বীপশিখা থেকে আলো নিলে আলো কমে না। আমারও কমবে না ইনশাআল্লাহ। যতোদিন আমি আছি, আলোও জ্বলবে। আমি এতেই খুশি যে, ভালো সাগরেদ না হোক অন্তত কিছু সংবাদকর্মী তো তৈরি করেছি। কারও বুকের সৎ সাহস থাকলে এ চ্যালেঞ্জ আমার সাথে নিতে পারেন। আপনাদের অর্জন আর আমার অর্জনে পার্থক্য। হ্যা, আমি ব্যর্থ দুধ কলা দিয়ে সাপ পুষেছিলাম- এই জায়গাটায়। সময় আসবে, কথা বলা শুরু করেছি, আরও বলব।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews