1. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১০:০৭ অপরাহ্ন

চন্দ্রকোণা কলেজ শিক্ষক আলমসহ স্ত্রীর বিরুদ্ধে আইসিটি মামলা, বহু অপকর্মের অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ, ২০২০
  • ১৫৭ বার পড়া হয়েছে

নকলা (শেরপুর) : শেরপুর নকলা উপজেলার চন্দ্রকোনা কলেজের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক এবং বহু অপকর্মের হোতা রুহুল আমিন আলম (৫০) ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে সাবেক স্ত্রী কর্তৃক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে। মামলায় বর্তমান স্ত্রী লাভা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মোর্শেদা আক্তার নিম্মিকে জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।
কলেজের শিক্ষক ও স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা গেছে, ২১ বছর আগে একই এলাকার রুহুল আমিন আলম চন্দ্রকোণা কলেজে শিক্ষকতা শুরু করেন। কলেজে চাকুরি নেওয়ার পর থেকে তিনি কলেজের কোন নিয়ম-কানুন মানেন না। অনুমতি না নিয়েই মোয়াল্লেম সেজে হাজিদের নিয়ে যান হজ্ব করাতে। বিনা অনুমতিতে এ পর্যন্ত ৯২৮ দিন কলেজে আসেননি তিনি। ছাত্রীসহ নানান নারীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক করেন নানা সময়। ২০১৫ সালে একটি নিরীহ পরিবারকে জিম্মি করে ওই কলেজের ১৬ বছরের জান্নাতুল মাহবুব নামে এক ছাত্রীকে বিয়ে করেন। এর আগেও আলম আরও তিনটি বিয়ে করেছেন। এসব নিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা-মোকদ্দমার অন্ত নেই। তার ৪র্থ ও তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রী মাহবুবা বাদী হয়ে আদালতে মাললা করেন ২০১৯ সালে। ওই মামলার রায় হওয়ার কথা আগামি ২৯ মার্চ। ফলে মামলায় শাস্তি হতে পারে এমন আশঙ্কায় গত ২২ ও ২৩ মার্চ মাহবুবার বিরুদ্ধে ফেসবুকে নানা আপত্তিকর লেখা ও ছবি সংযুক্ত করে পোস্ট করে রুহুল আমিন আলম। এ নিয়ে গতকাল সোমবার (২৩ মার্চ) রাতে মাহবুবা বাদী হয়ে নকলা থানায় আলমসহ তার প্রথম স্ত্রী নিম্মিকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পরে রাতেই আলমের স্ত্রী নিম্মিকে পুলিশ গ্রেফতার করে মঙ্গলবার আদালতে পাঠালে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। এদিকে আলমের প্রথম স্ত্রী নিম্মি কারাগারে যাওয়ায় আলম ও স্ত্রীর পক্ষের আত্মীয়-স্বজন প্রকাশ্যে বাদী মাহবুবাকে নানাপ্রকার হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এমতাবস্থায় মামলা করেও চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন বাদী মাহবুবা।
এলাকাবাসী জানান, আলমের অত্যাচারে কলেজের ছাত্রী-শিক্ষক সবাই অতীষ্ঠ। কলেজের শিক্ষার্থীসহ এ যাবত বিয়ে করেছেন মোট চারটি। নৈতিক স্খলনের অভিযোগে কলেজ থেকে অন্তত তিনবার বহিস্কৃত হয়েছেন তিনি। বহুগামি শিক্ষক আলম বছর খানেক আগে ময়মনসিংহে এক নারীর সাথে কেলেঙ্কারিতে জড়িয়েও মাশুল গুনেছেন বেশ। তারা প্রশ্ন রেখে বলেন, এমন লম্পট শিক্ষক কলেজে থাকলে অভিভাবকরা তাদের মেয়েদের নিশ্চিন্তে কলেজে পাঠাবেন কিভাবে?
জানা গেছে, মঙ্গলবার শিক্ষক আলমকে চূড়ান্ত বহিস্কার করে চিঠি পাঠিয়েছে কলেজ প্রশাসন। তবে আবারও আলমকে কলেজে যোগদান করাতে একটি মহল উঠেপড়ে লেগেছে। আগামি রবিবার এ বিষয়ে কলেজের পরিচালনা পর্ষদ বৈঠকে বসবেন বলে কলেজের অধ্যক্ষ ড. রফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন।
নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন শাহ জানান, ফেসবুকে অত্যন্ত আপত্তিকর পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। মামলায় ইতোমধ্যে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্ত আলমকে গ্রেতারে চেষ্টা চলছে।
– মোহাম্মদ দুদু মল্লিক

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews