1. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০২ এপ্রিল ২০২০, ১০:৪২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
নালিতাবাড়ী শহরে রিকশাচালক-পথচারীদের মাস্ক পড়ালেন ইউএফএইচ কর্মীরা নকলায় বাড়ি বাড়ি খাদ্যসামগ্রী পৌছালেন উপজেলা চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান ঘরে খাবার সংকট থাকলে যোগাযোগ করুন : শ্রীবরদী উপজেলা প্রশাসন শ্রীবরদীতে সেনাবাহিনীর সতর্কতামূলক প্রচারণা ও জীবানুনাশক স্প্রে নালিতাবাড়ী-নকলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পিপিইসহ স্বাস্থ্য সরঞ্জাম দিলেন মতিয়া চৌধুরী নকলায় করোনা সন্দেহে মা-ছেলের নমুনা সংগ্রহ, বাড়ি লকডাউন করোনায় লকডাউন : বেকার হচ্ছেন প্রবাসীরা, রেমিট্যান্সে ধস যুক্তরাষ্ট্রে ২ লাখ ছাড়াল আক্রান্তের সংখ্যা, একদিনে মৃত্যু ৯০৮ বিপর্যস্ত স্পেন, একদিনে করোনায় প্রাণ গেল ৯২৩ জনের বিশ্বব্যাপী করোনায় ঝরলো ৪৭ হাজার ১৯৪ প্রাণ

করোনাভাইরাস : সংক্রমণ থেকে বাঁচার স্বাস্থ্যকর উপায়

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ, ২০২০
  • ১৪ বার পড়া হয়েছে

লাইফ স্টাইল ডেস্ক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে দুটি কার্যকর উপায় হলো- রেসপিরেটরি হাইজিন এবং হ্যান্ড হাইজিন।
ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাসের মতো জীবাণুগুলো বায়ু, প্রাণী, খাদ্য, শারীরিক তরল, মাটি এবং বিভিন্ন বস্তু দ্বারা ছড়িয়ে পড়ে, যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে হাতের মাধ্যমে আমাদর শরীরে ছড়ায়। তাই, ঘন ঘন হাত ধোয়া সর্দি, ফ্লু এবং গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সংক্রমণের মতো রোগের ঝুঁকি হ্রাস করে।

হাতকে স্বাস্থ্যকর রাখবেন কীভাবে জীবাণু সংক্রমণ রোধ করতে হাতের স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জীবাণু দূর করতে সময়মতো সাবান এবং পানি বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে হাতের স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা হয়।

দেখে নিন পদ্ধতি যে যে পরিস্থিতিতে হাতের স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ- 

* বাথরুম থেকে বেরোনোর পরে
* কোনো অসুস্থ ব্যক্তির যত্ন নেওয়ার আগে এবং পরে
* খাবার প্রস্তুত করার আগে এবং পরে
* কাঁচা মাংস, ডিম বা মৎস্য জাতীয় খাবারগুলো হাত দেয়ার পরে পরেই
* হাত চিটচিটে বা নোংরা হওয়ার পরে।

CDC নিম্নলিখিত পদ্ধতিতে হাত ধোয়ার পরামর্শ দেয়-
* পানিতে হাত ভেজান।
* সাবান ব্যবহার করুন এবং দুটি হাত ভালোভাবে ঘষুন।
* সমস্ত আঙুল, নখ, কব্জি, আঙুলের ডগা এবং হাতের পিছনের অংশ ভালো করে ঘষুন।
* হাত ভালো করে ধুয়ে ফেলুন এবং তারপরে পেপার টাওয়েল দিয়ে হাত মুছে নিন।

হ্যান্ড স্যানিটাইজার অ্যালকোহল-ভিত্তিক হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার নিম্নলিখিত পরিস্থিতিগুলো বাদ দিয়ে সাবান এবং পানির মতোই কার্যকর –
* বাথরুম ব্যবহার করার পরে
* হাত নোংরা বা চিটচিটে থাকলে
* কোনো অসুস্থ ব্যক্তির যত্ন নিলে।

* হাতে সঠিক পরিমাণে স্যানিটাইজার নিন।
* আঙুল, তালু, কব্জি, হাতের পিছন দিক এবং আঙুলের ডগা ভালোভাবে ঘষুন।
* যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনার হাত শুকনো হচ্ছে ততক্ষণ ঘষতে থাকুন।
* হাত ধোবেন না বা তোয়ালে দিয়ে মুছে ফেলবেন না।

রেসপিরেটরি হাইজিন কীভাবে বজায় রাখা যায় রেসপিরেটরি হাইজিন জীবাণুর বিস্তার রোধ করার জন্য অত্যন্ত কার্যকর। কাশি বা হাঁচি দেওয়ার সময় আপনার নাক এবং মুখ ঢাকতে মাস্ক পরুন। এছাড়াও, কাশি এবং হাঁচি দেওয়ার সময় মুখ ঢাকতে হাতও ব্যবহার করতে পারেন, এটি জীবাণুর বিস্তার রোধ করার অন্য উপায়। তারপর হাত ধুয়ে ফেলুন। রুমাল ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন কারণ এটি ভাইরাসের প্রজনন ক্ষেত্র হয়ে ওঠে।

কাশি বা হাঁচির সময় টিস্যু ব্যবহার করুন এবং তারপরে এটি সঠিকভাবে ফেলুন। তারপরে সাবান ও পানি দিয়ে আপনার হাত ধুয়ে ফেলুন বা স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন। এর ফলে ভাইরাসটি অন্য কোনো ব্যক্তিতে ছড়িয়ে পড়বে না।

রেসপিরেটরি হাইজিন বজায় রাখার সময় যেগুলো মনে রাখা উচিত-
* মানুষের থেকে কমপক্ষে ছয় ফুট দূরত্ব বজায় রাখুন।
* কোনো বস্তু স্পর্শ করার পরে আপনার নাক, মুখ এবং চোখ স্পর্শ করবেন না।
* সারাদিনে ঘন ঘন হাত ধোবেন।

আপনি যদি নিয়মিত হাতের এবং রেসপিরেটরি হাইজিন বজায় রাখেন তবে বাড়ি বা পাব্লিক প্লেস, যেকোনো জায়গায় আপনি সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করতে পারেন। যখনই বাড়ির বাইরে বের হবেন সারাক্ষণ সঙ্গে করে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখুন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews