1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীতে শ্বাসকষ্টে মৃত ব্যক্তিকে করোনায় আক্রান্তের গুজবে আতঙ্ক

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ৩০ মার্চ, ২০২০
  • ১৩৪৬ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে দীর্ঘদিনের শ্বাসকষ্টজনিত (হাঁপানী) রোগে ভোগে আব্দুল আওয়াল ওরফে আওয়াল পাগলা নামে এক পাইলিং শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায় করোনাভাইরাস আক্রান্তের গুজবে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে জনমনে। ফলে আতঙ্ক মুক্ত রাখতে স্থানীয়দের নির্দিষ্ট সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসনের উপস্থিতিতে দাফনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে করোনা আক্রান্ত কিনা তা যাচাই করতে নমুনা সংগ্রহের সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। উপজেলার দক্ষিণ পলাশিকুড়া গ্রামে রবিবার (২৯ মার্চ) রাতে এ ঘটনা ঘটে।
মৃতের স্বজন, প্রতিবেশি ও সঙ্গে থাকা একই এলাকার শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দক্ষিণ পলাশিকুড়া গ্রামের আব্দুল আওয়াল ওরফে আওয়াল পাগলা (৫৮) অন্তত ১০-১২ বছর যাবত শ্বাষকষ্টে (হাঁপানী) ভোগছিলেন। তিনি পেশায় পাইলিং শ্রমিক। বর্তমানে বাগেরহাট জেলার রামপাল খয়লারহাট এলাকায় পুলিশ ফাঁড়ি সংলগ্ন স্থানে একটি পাইলিং কনস্ট্রাকশনে তিনি শ্রমিকের কাজ করছিলেন। করোনাভাইরাসের প্রভাবে সারাদেশে অঘোষিত লকডাউন চলায় কাজ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে তিনি এবং সঙ্গীয় অন্যান্য শ্রমিকরা গত বুধবার (২৬ মার্চ) সেখান থেক রওয়ানা হয়ে বৃহস্পতিবার (২৭ মার্চ) বিকেলে নিজ বাড়ি পলাশিকুড়ায় ফিরেন। এরইমধ্যে রবিবার (২৯ মার্চ) রাত সাড়ে নয়টার দিকে তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায় এবং তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

মৃতের ভাতিজা জাকির হোসেন (৩২) জানান, আমার চাচা দীর্ঘদিন যাবত শ্বাসকষ্টের রোগী ছিলেন। তার শরীরে কোন জ্বর, গলাব্যথা বা পাতলা পায়খানা এমন কোন লক্ষণ ছিল না। রবিবার রাতে শ্বসকষ্ট বেড়ে গিয়ে তিনি মারা যান। সঙ্গে থাকা শ্রমিক একই গ্রামের সাইফুল ইসলাম (৫০) জানান, করোনাভাইরাসের কোন লক্ষণ তার শরীরে ছিল না। আমাদের সাথেই কাজ করতেন। আমরা সবাই সুস্থ অবস্থায় বৃহস্পতিবার বাড়ি ফিরেছি। তিনি মূলত আগে থেকেই শ্বাসকষ্টের রোগী ছিলেন। প্রতিবেশি আহের উদ্দিন (৫৯) জানান, আওয়াল দশ-পনেরো বছর যাবত হাঁপানী রোগে আক্রান্ত। গতকাল (বৃহস্পতিবার) বিকেলেও আমার বাড়ি থেকে ঘুরে গেছে। রাতে হঠাৎ শ্বাসকষ্ট বেড়ে গিয়ে সে মারা যায়। অপর প্রতিবেশি অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য রবিউল আলম ইউসুফ (৪২) জানান, আওয়াল ভাই দীর্ঘদিন যাবত হাঁপানী রোগে আক্রান্ত। তবে গত ২-৩ বছর যাবত তার শ্বাসকষ্ট আরও বেড়ে গিয়েছিল। এলাকায় থাকলে বেশিরভাগ সময় আমার বাড়িতেই তার কাটত। গতকাল শ্বাসকষ্টেই তিনি মারা গেছেন। করোনার কোন লক্ষণ তার গায়ে ছিল না।
এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, এলাকা থেকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে খবর আসে। ফলে মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ কারণে আমরা জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে কথা বলে তাদের সঙ্গে নিয়ে আমাদের ব্যবস্থাপনায় কাফন-দাফনের ব্যবস্থা করেছি। স্থানীয়দের সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন কিনা তা নিশ্চিত হতে নমুনা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য বিভাগের মাধ্যমে আইইসিডিআরে পাঠানো হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews