1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন

উপকুলীয় এলাকায় তরমুজ বাম্পার হলেও করোনা আতংকে চিন্তিত চাষীরা

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১ এপ্রিল, ২০২০
  • ৯৪ বার পড়া হয়েছে

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) : দক্ষিণ উপকুলসহ কলাপাড়ায় তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। নভেল করোনা ভাইরাসের আতংকে ক্রেতা সমাগম না থাকায় বিক্রি নিয়ে বেশ চিন্তিত হয়ে পড়েছে কৃষককুল। বিগত বছরগুলোর তুলনায় এ বছর ব্যাপক ফলন হয়েছে। এসব তরমুজ ঢাকা, রাজশাহী, চট্রগ্রাম, দিনাজপুর, রংপুর, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার আড়ৎদাড়রা ক্ষেত থেকে তরমুজ কিনে ট্রাক বোঝাই করে নেন এলাকায়। তরমুজ পাকতে শুরু করলে শতশত ট্রাক অপেক্ষমান থাকে উৎপাদিত এলাকায়।
এ বছর করোন ভাইরাসের ভয়ে আড়ৎদারও আসছে না তরমুজ ক্রয়ে।
অপরদিকে, কৃষকরা আড়ৎদারদের কাছ থেকে নেয়া দাদনের বোঝাও বেড়ে চলেছে । তবে অনেকের ক্ষেতে তরমুজ পেকে ফেঁটে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে একাধিক কৃষক।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ১৫’শ হেক্টর জমিতে এবার তরমুজের চাষাবাদ হয়েছে। ইতোমধ্যে ক্ষেতের ফসল কোথাও পেকেছে। আবার অনেক ক্ষেতে পাকার উপক্রম হয়েছে। উপজেলার ধানখালী, চম্পাপুর, ধুলাসার, লতাচাপলী, বালিয়াতলী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে এর চাষাবাদ অন্যান্য এলাকার তুলনায় বেশী হয়েছে। নভেম্বর মাস থেকে ডিসেম্বরে এর চাষাবাদ শুরু করে কৃষক। গাছে ফলন ধরা থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে ফল পরিপক্ক হয়। এ বছর প্রথম অবস্থায় ক্ষেত ঘূর্নিঝড় বুলবুলের আঘাতে লন্ডভন্ড হলে কোন কোন কৃষক জানুয়ারীর শেষের দিকে,আবার অনেকে ফেব্রƒয়ারীর প্রথম সপ্তাহে দ্বিতীয়বার চাষাবাদ শুরু করে।
উপজেলায় বিভিন্ন প্রজাতির তরমুজের মধ্যে বিগফ্যামিলী, জাম্বু জাগুয়ার, ড্রাগন ও ব্লাকটাইগার প্রজাতির তরমুজের ফলন ভাল বিধায় এগুলোর চাষাবাদ বেশী করেন সংশ্লিষ্টরা। তবে এ এলাকায় শতকরা আশি ভাগ কৃষক বিগফ্যামিলী প্রজাতির তরমুজই বেশি চাষাবাদ করে থাকেন।
এ ব্যাপারে চম্পাপুর ইউনিয়নের চালিতাবুনিয়া গ্রামের অধিবাসী প্রভাষক মো: মাছুম বিল্লাহ জানান, তাদের কয়েকশো শতাংশ জমিতে তরমুজের চাষাবাদ করেছেন। এ বছর বিভিন্ন প্রজাতির তরমুজের ফলন বেশ ভাল হয়েছে। মাত্র ২ সপ্তাহের মধ্যে তাদের ক্ষেতের তরমুজ বিক্রির উপযোগী হবে। করোনা ভাইরাসের প্রকোপ না কমলে ক্রেতার অভাবে লোকসান গুনতে হতে পারে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
এদিকে ধুলাসার ইউনিয়নের চরধুলাসার গ্রামের কৃষক মো: হাফিজুর প্যাদা জানান, তার এলাকায় বালু মাটি বিধায় ক্ষেতের ফসল আগে-ভাগেই পেকে গেছে। ক্রেতার অভাবে বিক্রি করতে পারছেন না বলে ক্ষেতেই ফেঁটে যাচ্ছে তরমুজ।
ধানধালী ইউনিয়নের মাছুয়াখালী গ্রামের তরমুজ চাষী রহিম মুসুল্লি জানান, ধান চাষের চেয়ে তরমুজ চাষে লাভ বেশী বিধায় এলাকার শতশত কৃষক তরমুজ চাষাবাদ করছেন। তাদের অনেকে ব্যাংক লোন কিংবা বিভিন্ন এনজিও থেকে লোন নিয়ে বিনিয়োগ করে ফসল উঠার পর তা পরিশোধ করে দেন। এ বছর করোনা ভাইরাস তাদের পিছিয়ে দিচ্ছে বলে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবদুল মান্নান জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর প্রচুর পরিমাণ ফলন হলেও বিক্রি নিয়ে অনেক বেশি চিন্তিত হয়ে পড়েছে কৃষক। পাকা ফল সময় মত বিক্রি করতে না পারলেও তাতে পঁচন ধরার সম্ভাবনা রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।
– রাসেল কবির মুরাদ

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews