1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০৩:০৩ অপরাহ্ন

সাংবাদিকদের জন্য ঝুঁকিবীমা ঘোষণার দাবি

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ২১ এপ্রিল, ২০২০
  • ৭৪ বার পড়া হয়েছে

– তালাত মাহমুদ –

শেরপুর জেলার আপামর কর্মহীন মানুষ সহ সর্বস্তরের মানুষ করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে যতটা না ভোগছে তার চেয়ে বেশি আতঙ্কে ভোগছে খাদ্য সঙ্কট নিয়ে। করোনা ভাইরাসের ভয়ে কর্মহীন মানুষ কোথাও কাজে যেতে পারছেনা। তারপরও সারাজেলায় চলছে লকডাউন। জীবন বাজী রেখে সংবাদ সংগ্রহে নিয়োজিত শেরপুর জেলা ও ৫টি উপজেলার সংবাদকর্মীগণ। সম্প্রতি জেলা প্রশাসন থেকে সংবাদকর্মীদের জন্য ‘পিপিই’ সরবরাহ করা হলেও মাঠ পর্যায়ে তা ব্যবহার উপযোগী নয়। বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুলই বটে বলে প্রতীয়মান হয়। বিশেষ করে নি¤œ মধ্যবিত্ত শ্রেণির অবস্থা খুবই করুণ!

২০ এপ্রিল সোমবার শেরপুরের সুযোগ্য পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম এর নির্দেশনায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্থাপন করা হয়েছে অটোমেটিক জীবানু নাশক স্প্রে মোশিন। প্রতিবারের মতো এবারও বিডিক্লিনের স্বেচ্ছাসেবীরা শ্রমিক সঙ্কটের কারণে বিপন্ন ও অসহায় কৃষকের বোর ধান কেটে দিচ্ছে। সাবেক কৃষিমন্ত্রী ও কৃষি মন্ত্রণালয় বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি মতিয়া চৌধুরীর পরামর্শে আওয়ামীলীগের কয়েকজন নেতা নালিতাবাড়ীতে বিভিন্ন ইউনিয়নের কর্মহীন, বিপন্ন ও অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

এছাড়া নালিতাবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান মুখলেসুর রহমান লেবু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফুর রহমান ও নালিতাবাড়ী পৌরসভার মেয়র মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক সাধ্য মতো ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা স্থানীয় কৃষকদের উৎপাদিত করল্যা, চিচিঙ্গা ও বাঁধাকপি বাজার দরে কিনে কর্মহীন অসহায় মানুষের মাঝে চালের সাথে তরকারি দিয়ে ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া নালিতাবাড়ী উপজেলা যুবলীগ, উপজেলা ছাত্রলীগও ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

নকলা উপজেলায় বেসরকারি ভাবে অসহায় সহায়তা সংস্থা, মানবতার দুয়ার, একতা সংঘ, মায়াকুঞ্জ, নকলা উপজেলা যুবলীগ, উপজেলা ছাত্রলীগ, নকলা চাউল ব্যবসায়ী সমিতি, নকলা অষুধ ব্যবসায়ী সমিতি, নকলা চাউলকল মালিক সমিতি ও নকলা পেশাজীবী সংগঠন চাউল, আলু, তেল, নুন সহ নগদ অর্থ দিয়ে সাহায্য করে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। এছাড়া উপজেলা প্রশাসন বিধি মোতাবেক সরকারি ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা ত্রাণ তৎপরতার পাশাপাশি জনগণের মাঝে মাস্ক বিতরণের খবর পাওয়া গেছে। চন্দ্রকোণা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাজু সাঈদ সিদ্দিকী জানান, চাহিদার সাথে সঙ্গতি রেখে ত্রাণ সামগ্রীর পরিমাণ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। তিনি ব্যক্তিগত খাত থেকেও কর্মহীন অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছেন। সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ নজরুল ইসলামের ছোট ভাই কামরুজ্জামান গেন্দু চন্দ্রকোণা ও এর আশপাশের গ্রামগুলোতে ত্রাণ তৎপরতা চালিয়েছেন বলে জানা গেছে। তিনি পরিবার প্রতি ১০ কেজি চাল, এক কেজি ডাল, ৫ কেজি আলু, ১ লিটার তৈল, ও আধাকেজি চিনি বিতরণ করেছেন।

ঝিনাইগাতী উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম ওয়ারেছ নাঈম দশ হাজার অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের ঘোষণা দিয়েছেন। ইতিমধ্যে ঝিনাউগাতী উপজেলা যুবলীগ মানুষের মাঝে সাবান ও টিস্যু পেপার বিতরণ করেছে বলে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কবি ফজিলা খাতুন শারমিন জানিয়েছেন। ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবেল মাহমুদ সকল ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে সরকারি ত্রাণ বিতরণ করে যাচ্ছেন। এছাড়া বিভিন্ন ব্যবসায়ী ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ করেছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ, উপজেলা ছাত্রলীগ, ঝিনাইগাতী ব্যবসায়ী সমিতি এবং পেশাজীবী ডাক্তারদের পক্ষ থেকে আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়েছে।

শ্রীবরদী উপজেলায় ত্রাণ তৎপরতা জোরদার করার লক্ষ্যে সরকারি ত্রাণ তৎপরতার পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগেও ত্রাণ তৎপরতা চলছে। উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ছাড়াও বিভিন্ন ব্যক্তি ত্রাণ সাহায্য দিতে এগিয়ে এসেছেন। গত ১৩ এপ্রিল শেরপুরের পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম মাথাপিছু ৩ কেজি চাল, ১ কেজি লবণ, ১ কেজি ডাল, আধা কেজি তেল ও একটি করে সাবান বিতরণ করেন। এদিকে উপজেলা নির্বহী অফিসার এসি (ল্যান্ড) সহ সঙ্গীয় স্বেচ্ছাসেবীদের নিয়ে কাকিলাকুড়া, হারিয়াকোনা এলাকার আদিবাসীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছেন। জেলা বিএনপি’র সভাপতি সাবেক এমপি মাহমুদুল হক রুবেল তাঁর নির্বাচিত এলাকা শ্রীবরদী-ঝিনাইগাতীতে ত্রাণ বিতরণ করেন। শেরপুর জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসরিন রহমান শ্রীবরদীতে তাঁর ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ত্রাণ বিতরণ করেন। শ্রীবরদী পৌরসভার মেয়র জননেতা মোঃ আবু সাঈদ পৌর এলাকার দুঃস্থ ও অসহায়দের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন।

শেরপুরের গণমানুষের নেতা, বারবার নির্বচিত এমপি, জাতীয় সংসদের হুইপ বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিউর রহমান আতিক ইতিমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করেছেন। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন শুরু থেকেই সারা জেলার পরিস্খিতির উপর নজর রেখেছেন। শেরপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক ছড়ার ৪/৫ দিন পর থেকেই উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে উপস্থিত থেকে ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। শেরপুর পৌরসভা, কাকলি বহুমূখী সমবায় সমিতি ত্রাণ তৎপরতা চালিয়েছে। নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক এড. আখতারুজ্জামান, সদস্য সচিব মিনহাজ উদ্দিন মিনাল করোনায় আতঙ্কিত অসহায় দুঃস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করে আসছেন। একইভাবে শ্যামলবাংলা২৪ডটকমের সম্পাদক, জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, শেরপুর প্রেসক্লাব এবং জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি কবি, সাংবাদিক ও জননেতা রফিকুল ইসলাম আধার শেরপুর পৌরসভার বিভিন্ন মহল্লায় ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি জেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক বিশিষ্ট শিল্পপতি মোঃ আনিছুর রহমানও শেরপুর পৌরসভার বিভিন্ন মহল্লায় নিয়মিত ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। সাবেক মহিলা এমপি ফাতেমাতুজ্জহুরা শ্যামলী ডাকলহাটি মহল্লায় বিপন্ন মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছেন। পাকুড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ মোঃ হায়দার আলী ও জেলার একমাত্র মহিলা ইউপি চেয়ারম্যান ভাতশালা ইউপি’র কামরুন্নাহার নিজ নিজ ইউনিয়নের দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করে আসছেন।

এদিকে বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কর্মরত সংবাদকর্মীদের অনেকেই ঝুঁকি নিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করলেও তাদের জন্য ‘ঝুঁকিবীমা’ ঘোষণা করা হয়নি। আমরা সিনিয়র সাংবাদিকরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাংবাদিকদের জন্য ‘ঝুঁকিবীমা’ ঘোষণার দাবি জানাচ্ছি।

লেখক : তালাত মাহমুদ- সহযোগী সম্পাদক, দৈনিক পল্লীকন্ঠ প্রতিদিন

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews