1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ০৮:২২ অপরাহ্ন

বান্দরবানে করোনা যুদ্ধে নেপথ্য নায়ক স্বাস্থ্যযোদ্ধা প্রত্যুষ পল

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ৬ মে, ২০২০
  • ৪৫১ বার পড়া হয়েছে

বান্দরবান : পার্বত্য জেলা বান্দরবানে করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ বিভিন্ন কাজে সরকারের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তারা প্রকাশ্যে তাদের কার্যক্রম চালালেও করোনা আক্রান্ত রোগীর সেবায় পর্দার অন্তরালে সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন বান্দরবান সদর হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন বিভাগের প্রধান জুনিয়র কনসালটেন্ট চিকিৎসক প্রত্যুষ পল ত্রিপুরা।
বান্দরবান হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের জন্য আলাদা ১০০ শয্যার আইসোলেশন বেড তৈরি হওয়ার পর থেকে পরিবার ও আক্রান্ত রোগীদের কথা চিন্তা করে টানা ১ মাস হাসপাতালেই অবস্থান করছেন এ যোদ্ধা। করোনার উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগী, করোনা শনাক্ত হওয়া রোগীসহ আইসোলেশন বিভাগে কর্মরত সকল ডাক্তার, নার্স ও স্টাফদের সহযোগিতা করে সামনে থেকে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন করোনা আইসোলেশন বিভাগের প্রধান ডাক্তার প্রত্যুষ পল ত্রিপুরা।
এমনিতেই বান্দরবান হাসপাতালে চিকিৎসা সরঞ্জাম প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। এমন অবস্থায় সীমিত সরঞ্জাম দিয়ে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করা অনেক বড় একটা চ্যালেঞ্জ। আর শূন্য হাতে শুধু সাহস আর সেবার মনোবল নিয়ে সেই চ্যালেঞ্জ পার করছেন বান্দরবান হাসপাতালের ডাক্তারেরা।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ পর্যন্ত তিন শতাধিক রোগী আইসোলেশন ফ্লু কর্ণার-এ চিকিৎসা নিয়েছে। ১০৪ জন সন্দেহভাজন রোগীর করোনা পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে। প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকা ২১ জন চিকিৎসা সেবা নিয়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে। বর্তমানে নার্সিং কলেজের আইসোলেশনে ভর্তি আছে ৪ জন রোগী। এর মধ্যে ২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী। বান্দরবান জেলায় এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়েছে ৯ জন।
করোনা সংক্রমন শুরু হওয়ার পর বান্দরবান হাসপাতাল সংলগ্ন নার্সিং কলেজকে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য ১০০ শয্যার আইসোলেশন বেড তৈরি করা থেকে শুরু করে রোগীদের পরিচর্যা, খাবার, ডাক্তার, নাস র্ও স্টাফদের দেখাশোনা যাতায়ত থেকে শুরু করে সবকাজ একাই সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে করে যাচ্ছেন ডাক্তার প্রত্যুষ পল। চিকিৎসা সামগ্রীসহ সবধরণের প্রয়োজনীয় জিনিসের সরবরাহ নিশ্চিত করতে কখনো জেলা পরিষদ, কখনো সিভিল সার্জন অফিস, কখনো পৌরসভায় নিজউদ্যোগে ছুটে যাচ্ছেন তিনি। রোগীদের সুবিধার কথা ভেবে নার্সিং কলেজের দ্বিতীয় তলাতেই ব্যবস্থা করেছেন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের। তাদের থাকা-খাওয়াসহ সার্বিক বিষয়ে খেয়াল রাখছেন প্রতিনিয়ত। কখনো কখনো নিজের পকেটের টাকায় কিনে দিচ্ছেন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। সন্দেহজনক যেকোনো রোগীর কথা শুনলে নিজেই ছুটে আসছেন যখন তখন। নতুন রোগীর স্যাম্পল কালেকশন, সেগুলো পরীক্ষার জন্য পাঠানো, রোগীদের শারীরিক পরীক্ষা, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও রোগীদের খাওয়া, আবাসন-যাতায়াত সবকিছুর তত্ত্বাবধান করছেন নিজেই। সবাই যখন করোনা আতঙ্কে পরিবার-পরিজন নিয়ে বাসায় অবস্থান করছেন ঠিক তখন পরিবার পরিজন ছেড়ে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হাসপাতালের করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা দিচ্ছেন ডাক্তাররা।
এ বিষয়ে কথা বললে ডাক্তার প্রত্যুষ পল জানান, করোনা বিশ্বব্যাপী মহামারী আকার ধারণ করেছে। এটা একটা নতুন রোগ। এর সাথে সবাই পরিচিত নয়। ইতোমধ্যে অনেক ডাক্তারও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাই সবাই একটু ভয়ে আছেন। অনেকের আসলে এ সম্পর্কে ধারণা নেই কিভাবে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিবেন। আমি আইসোলেশন ওয়ার্ডের দায়িত্বে আছি, করোনা সম্পর্কে ট্রেনিং নিয়ে এসেছি। তাই সবাইকে এ সম্পর্কে ধারণা দিতে হচ্ছে। ডাক্তার, নার্স, এমনকি ক্লিনারকে পর্যন্ত শিখিয়ে দিতে হচ্ছে কিভাবে আক্রান্ত রোগীর সাথে মিশতে হবে, খাবার দিতে হবে ও ওষুধ দিতে হবে। তাদের ভয় কাটানোর জন্য আমি নিজে সব করছি, যাতে তারা উৎসাহ পান।
তিনি বলেন, যেহেতু আমরা ডাক্তার। মানুষ সেবার জন্য আমাদের কাছে আসবে। তাই আমরা আমাদের সাধ্যমত সেবা করার চেষ্টা করছি। ১০০ শয্যার আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরি করেছি। এখানে করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছে। তাই কিভাবে নিজেদের রক্ষা করে রোগীদের সেবা করবে, পিপিই কিভাবে পড়বে, সেগুলো তাদেরকে দেখিয়ে দিচ্ছি। ডাক্তাররা যাতে ভয় না পান সেজন্য আমি নিজেই রোগীর সামনে গিয়ে তাদের উৎসাহ দিচ্ছি। রোগীদের খাওয়া-দাওয়া সবকিছু ও ম্যানেজ করে দিচ্ছি। যাতে তাদের কোন সমস্যা না হয়। মানুষের সেবার ব্রত নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। আমার নিজের কোন ভয় নেই। তবে পরিবারের জন্য ভয় হয়। তাই তাদের নিরাপত্তার কথা ভেবে বাসায় যাচ্ছি না। হাসপাতালেই থাকছি।
এ বিষয়ে বান্দরবান সিভিল সার্জন ডাক্তার অংশৈ প্রু মার্মা বলেন, হাসপাতালে পর্যাপ্ত জনবল ও চিকিৎসা সামগ্রী না থাকলেও যেটুকু আছে সেটুকু দিয়ে আমার ডাক্তাররা রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। আইসোলেশন বিভাগের প্রধান হিসেবে ডাক্তার প্রত্যুষ পল দিনরাত নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। যখনই রোগী আসছে তখনই প্রত্যুষ হাজির হচ্চেন। করোনা সন্দেহের রোগীদের নমুনা সংগ্রহ থেকে শুরু করে রিপোর্ট পাঠানো পর্যন্ত সবকাজ তিনিই করছেন। আমরা সবাই ফ্রন্ট লাইনে থেকে যুদ্ধ করছি। তবে আইসোলেশন ওয়ার্ডে যেহেতু করোনা আক্রান্ত রোগী আছে, সেহেতু তারা আরও ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে। সব ডাক্তাররা ৭ দিন ডিউটি করার পর ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকছেন। কিন্তু প্রত্যুষ পল টানা ডিউটি করছেন। তার কোন ছুটি নেই। পরিবার পরিজন ছেড়ে তিনি হাসপাতালে পরে আছেন। সেজন্য আমি তাকে এপ্রিশিয়েট করি। তিনি খুবই পরিশ্রম করছেন। করোনা আক্রান্তদের সেবায় দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।
– এন এ জাকির

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews