1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ১২:২৮ অপরাহ্ন

সময় ও চেতনা

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৯ মে, ২০২০
  • ৫৯ বার পড়া হয়েছে

– মনিরুল ইসলাম মনির –

নিজের জীবনটাকে মফস্বল সাংবাদিকতার চরম নেশায় আসক্ত করে মূল্যায়ন করিনি কখনও। পরিবারকে সময় না দিয়ে ঈদের দিনেও অফিস করেছি। রাত গভীর হলে অফিস থেকে ক্লান্ত দেহ নিয়ে বেড়িয়ে কোনরকমে খেয়ে বিছানায় সোপর্দ করেছি দেহটাকে। ঝড়-বৃষ্টি-প্রখর রোদ কোনকিছুই আটকাতে পারেনি অদম্য এ শক্তিটাকে। দেহের প্রয়োজন বুঝিনি, বুঝিনি পরিবারের প্রয়োজন। স্পেশাল দিনগুলোতে রাত এগারোটার মধ্যে বাসায় ফিরব বলে আশ্বস্ত করে ফিরেছি একটায়। ততক্ষণে সবাই অপেক্ষা করে ঘুমে। এভাবে বছরের পর বছর চলে গেছে। গেল বছর চলে গেছে প্রাণের-মনের মানুষ। এ বছর শুরু হয়েছে ঠান্ডাজনিত এলার্জি। অন্যান্য বছর যে মাসগুলোতে (গরমে) নরমাল শাওয়ারের পানিতে গোসল করে সাধ মিটতো না ছুটে যেতাম বাইরের টিউবওয়েলে ঠা-া পানিতে গোসল করতে। যেখানে দিনে চারবার পর্যন্ত গোসলের রেকর্ড হয়েছে। সেখানে আজ কখনও কখনও গোসল বর্জন করতে হয়। গরমের মধ্যেও ঠান্ডা পানি তো দূরের কথা নরমাল শাওয়ার বন্ধ রেখে গরম শাওয়ারে খুব দ্রুত সময়ে গোসল সেড়ে নিচ্ছি। মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে রক্তাক্ত শরীরে দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কাজ সেড়ে রাতে ভাঙ্গা মোটরবাইক ও রক্তমাখা শরীর নিয়ে মাত্র দুই বছর আগেও দূর থেকে বাড়ি ফিরেছি। সবাই সাহস দেখে অবাক হয়েছে। অথচ আজ এই গরমেও মাত্র বিশ কিলোমিটার মোটরবাইক জার্নির সাহস পাই না। সামান্য বাতাশ লাগলেই ঠান্ডায় ভোগি। মনের জোর সেই আগের মতোই আছে, তবে শরীরের জোরে ভাটার আভাস পাচ্ছি। বুঝতে পারছি সময় পাল্টে গেছে, যাচ্ছে।
তবে এ কথা ঠিক, যতোদিন লেখনির সামর্থ নিয়ে বেঁচে আছি লেখনি চলবে দূর্বার গতিতে আগের মতোই। কারও চোখ রাঙানি আমায় কিচ্ছু করতে পারবে না ইনশাআল্লাহ। ক’দিন আগেও ন্যায় প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে অনেক সাঁরথীই আমার প্রতিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নালিতাবাড়ীতে নোংড়ামির সূচনা করল। বিনিময়ে নিজেদের নোংড়ামি প্রকাশ ছাড়া কিছুই হলো না। আমার সংবাদই সত্য বলে টিকে রইল। এখন যদি আমি প্রশ্ন করি, একটি অভিযোগে দোষী স্যাব্যস্ত করে রায় প্রকাশের পরও যারা নাটক সাজিয়ে ওইসবকে মিথ্যা আখ্যা দিয়ে আমার কোনপ্রকার মতামত না নিয়ে অত্যন্ত চতূরতার সাথে আমাকে নিয়ে বিষোদগার করা হলো, যেখানে সংবাদ পরিবেশনের নীতিমালা স্পর্শ করা হয়নি। এখন তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ও মানহানির অভিযোগ আনলে তাদের কে রক্ষা করবে? নিঃসন্দেহে পালানোর পথও পাবে না। কিছু বলি না বলে দিন দিন সাহসটা বেড়েই চলেছে ওদের। কিন্তু আমি জানি, এরা ডিস্টার্ব-ডাস্ট। এদের কাজ পিছনে পড়ে থাকা। এ যাবত যারা আমাকে নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করেছে তাদের কেউই বেশি সময় টিকে থাকতে পারেনি। খুব সন্নিকটে খেয়াল করলে দেখা যাবে এখন মাঠ ছেড়ে হারিয়ে গেছে তাদের কেউ কেউ। নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখাই চ্যালেঞ্জ হয়েছে তাদের। এসবই আল্লাহর ইচ্ছা। প্রকৃতিই তাদের ধরে শিক্ষা দিয়েছে। এ জন্য লাখো শোকরিয়া তাঁর (আল্লাহর) কাছে। তাই ‘কুকুরের কাজ কুকুরে করেছে কামড় দিয়েছে পায়, তাই বলে কি কুকুরকে কামড়ানো মানুষের শোভা পায়’ এ বাক্যে বিশ্বাসী বলে চুপ রয়ে যাচ্ছি। কারণ আমি জিতে গেছি। তারা গালাগাল করেও ফল পেল না, পাওয়ার সুযোগ নেই। যা ফাটিয়ে দিয়েছি তা ফাটিয়েই দিয়েছি। সৃষ্টিকর্তার অনুগ্রহ আছে বলেই টিকে আছি। তিনি যতোদিন চাইবেন এভাবেই বাঁচিয়ে রাখবেন। যেদিন সময় ফুরিয়ে যাবে হয়ত আমার সহধর্মীনির মতোই হঠাৎ চলে যাব। সত্যি বলতে পেশাগত কাজের শক্তি আগের মতোই। যদিও সহধর্মীনি হারিয়ে সার্বিকভাবে মনের দিক থেকে পুরো সময়টা ভালো কাটে না। তবু অন্যায়ের বিরুদ্ধে মনির ইজ মনির। দিস ইজ মনির। মাই নেম ইজ মনির। আল্লাহ সহায়।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews