1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ০৫ জুলাই ২০২০, ০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন

নিরব প্রতিবাদ : ব্রিজ ব্যবহার না করে ত্রিশ কিলোমিটার ঘুরে গেলেন মতিয়া চৌধুরী

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০
  • ১১৪২ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : বিধিনিষেধ না মেনে অপরিকল্পিত এবং অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও অতিরিক্ত লোড দিয়ে বালু পরিবহনের ফলে একাংশ ধসে যাওয়ায় নাকুগাঁও ভোগাই ব্রিজ ব্যবহার করলেন না সাবেক কৃষিমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি। সোমবার (১৮ মে) দুপুরে তিনি প্রতিবাদস্বরূপ ব্রিজ ব্যবহার না করে অনুষ্ঠানস্থলে গেলেন প্রায় ত্রিশ কিলোমিটার ঘুরে।
জানা গেছে, ১৯৯৮-৯৯ অর্থবছরে সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতায় শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী নাকুগাঁও এলাকায় ১৮৬.৪০ মিটার দীর্ঘ সেতু নির্মাণে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তৎকালীন ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কুড়িগ্রাম থেকে সুনামগঞ্জ পর্যন্ত সীমান্ত সড়ক যোগাযোগে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের লক্ষ্যে তৎকালীন ও বর্তমান স্থানীয় সংসদ সদস্য মতিয়া চৌধুরীর প্রচেষ্টায় প্রায় ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ব্রিজটি ২০১০ সাল নাগাদ চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। ১০ টন ধারণ ক্ষমতাসম্মন্ন ব্রিজটি উদ্বোধনের পর নাকুগাঁও স্থলবন্দর ও সীমান্ত যোগাযোগে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনে দেয়। গেল ১৪২৬ বাংলা সনে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ভোগাই নদীর ২৬.৯০ একর বালু মহাল এক বছরের জন্য মেসার্স আল আমিন ট্রেডার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ইজারা প্রদান করা হয়। এরপর থেকে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও নির্দিষ্ট বালু মহালের বাইরে গিয়ে নাকুগাঁও ব্রিজের আশপাশ ও নিচ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন শুরু হয়। শুধু তাই নয়, নদীর বালুচর শেষ হয়ে যাওয়ায় তলদেশের মাটি বোরিং করে ২০-৪০ ফুট গভীরে পর্যন্ত গিয়ে চলে খনিজ বালু উত্তোলন। ফলে নাকুগাঁও ব্রিজের পূর্ব পাশের রিটেনিং ওয়াল, নদী তীরের সিসি ব্লক, ব্রিজের পাইল ক্যাপ ধসে যায় ও বেশকিছু পাইল বেরিয়ে পড়ে। এছাড়াও ব্রিজের উপর দিয়ে বহন ক্ষমতার প্রায় ৭ গুণ বেশি প্রায় ৭০-৮০ টন ওজনের ভেজা বালুভর্তি শতাধিক ট্রাক প্রতিদিন ব্রিজ পারাপার হয়। এমতাবস্থায় গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ভোরে অতিরিক্ত বালুভর্তি একটি ট্রাক পারাপারের সময় আকস্মিক ব্রিজের পশ্চিম দিকের ছাদের একাংশ ধ্বসে পড়ে। ফলে বেশ কিছুদিন ব্রিজ দিয়ে সবধরণের যান চলাচল বন্ধ করে দেয় সওজ কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে নামকাওয়াস্তে মেরামত করা হলেও তা স্বাভাবিক যান চলাচলের উপযুক্ত না হওয়ায় অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্রিজটির উদ্দেশ্য এখন ভেস্তে যাওয়ার পথে। ইতিমধ্যেই গত ৬ মার্চ উপজেলার দশ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগ যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে প্রেরণ করা হয়। অভিযোগে বালু ব্যবসায়ীদের অভিযুক্ত করার পাশাপাশি প্রশাসনের ভূমিকার অসন্তুষ্টির কথা উল্লেখ করে ভোগাই নদী ও সরকারী গুরুত্বপূর্ণ একাধিক স্থাপনা রক্ষায় বালু মহাল বাতিলের দাবী তোলা হয়।
এদিকে সোমবার (১৮ মে) দুপুরে স্থানীয় সংসদ সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী নদীর পশ্চিম এলাকায় ব্যক্তিগত তহবিল থেকে ঈদ ইপহার হিসেবে দুস্থদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ শেষ করে পূর্ব এলাকায় প্রবেশকালে অবৈধ বালু উত্তোলন ও প্রশাসনের ভূমিকায় অসন্তোষের প্রতিবাদ হিসেবে ব্রিজটি পার হননি। মাত্র তিন কিলোমিটারের পথ ফেলে তিনি প্রায় ত্রিশ কিলোমিটার বেশি ঘুরে রামচন্দ্রকুড়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ঈদ উপহার বিতরণী অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এসময় তিনি অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, প্রশাসনের সামনেই অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে ভোগাই নদী ও নাকুগাঁও ব্রিজটি হুমকীর মুখে ফেললেও প্রশাসন লোক দেখানো অভিযান পরিচালনা করে। এসময় তিনি প্রশাসনের পাশপাশি সড়ক ও জনপথ বিভাগের দায়িত্বহীনতাকেও এ জন্য দায়ী করেন।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এখনও নামেমাত্র মেরামত করা ব্রিজের আশপাশ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও অতিরিক্ত বোঝাই ভেজা বালু পরিবহন অব্যাহত রয়েছে। ফলে বর্ষা মৌসুমের পাহাড়ি ঢল নামলে যে কোন অঘটনের শঙ্কা রয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, আমরা ইতিমধ্যেই অসংখ্য মেশিন পুড়িয়ে দিয়েছি, অসংখ্য মেশিন ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে, যথেষ্ট পরিমাণে টাকা জরিমানা করেছি, বালু জব্দ করে নিলামে দিয়েছি। কাজেই অবৈধ বালু উত্তোলনের বিষয়ে আমরা কখনোই আপোষ করেনি, আমরা সবসময়ই এর বিরুদ্ধে। তবে ব্রিজ দিয়ে বালু পরিবহনের বিষয়টি আমাদের এখতিয়ারে নেই, এটি দেখবে সওজ কর্তৃপক্ষ।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews