1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:১০ অপরাহ্ন

খেলার ফলাফল নিয়ে হট্টগোল: আলীকদমে ট্রফি ভেঙে ফেললেন ইউএনও!

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২

বান্দরবান : ফুটবল ফাইনালে খেলার ফলাফল মেনে নিতে চাচ্ছিল না পরাজিত পক্ষ। ফলে এ নিয়ে দুই পক্ষে হট্টগোল বাধে। কেউ চাইছিলেন ট্রফি নিতে কেউবা ট্রফি না ভেঙে ফেলার পক্ষে শ্লোগান দিচ্ছিলেন। আর এতেই ট্রফির বদলে জয়ের আনন্দ এবং মেডেল নিয়ে সবাইকে শান্তনা দিতে গিয়ে টেবিলে ছুঁড়ে ট্রফি ভেঙে ফেললেন ইউএনও।

গতকাল শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) আলীকদম উপজেলার ২নম্বর চৈক্ষং ইউনিয়নের রেপারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আবাসিক স্বাধীন যুব সমাজের উদ্যোগে জুনিয়র একাদশ বনাম রেপারপাড়া বাজার একাদশ ফুটবল টিমের ফাইনাল খেলা শেষে প্রধান অতিথি আলীকদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহরুবা ইসলাম এমন ঘটনা জন্ম দেন।

তবে ট্রফি ছুঁড়ে ফেলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে একটি মহল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে হট্টগোল রটাচ্ছে বলেও জানিয়েছেন ফুটবল টূর্ণামেন্ট পরিচালনা কমিটির সংশ্লিষ্টরা।

গতকাল আলীকদম উপজেলার ২নম্বর চৈক্ষং ইউনিয়নের রেপারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আবাসিক স্বাধীন যুব সমাজের উদ্যোগে জুনিয়র একাদশ বনাম রেপারপাড়া বাজার একাদশ এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। আবাসিক একাদশ ও রেপারপাড়া একাদশ দুই টিমই নির্ধারিত খেলার সময় শেষে দুই গোলে ড্র করে। ফলে খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। আবাসিক একাদশ চারটির মধ্যে তিনটি গোল করে আর রেপারপাড়া একাদশ তিনটি টাইব্রেকারে একটি গোলও করতে পারেনি। এরইমধ্যে আবাসিক দলকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

মঞ্চে অন্যান্য অতিথিরা বক্তব্য দেওয়ার পর প্রধান অতিথির আলীকদমের ইউএনও মেহরুবা ইসলাম বক্তব্য শুরুর আগে দুই টিমের মধ্যে কিছুটা হট্টগোল বাধে। রেপারপাড়া একাদশ খেলার ফলাফল মানতে অস্বীকৃতি জানায়। একপর্যায়ে তারা ইউএনওকে ট্রফি কাউকে না দিয়ে ভেঙে ফেলতে বলেন। সময় উপস্থিত জনগণের সামনে চ্যাম্পিয়ন এবং রানারআপ ট্রফি দুটি টেবিলে ছুঁড়ে মেরে ভেঙে ফেলেন ইউএনও। এ সময় তিনি বলেন, ‘চমৎকারভাবে এতক্ষণ ঘাম ছেড়ে পরিশ্রম করে খেলেছেন। কিছুটা খেলা নিয়ে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। তাহলে আমি মনে করি, ট্রফিটা কারো হাতে তুলে দিতে পারছি না। তাহলে আমি সিধান্ত নিয়েছি, শুধুমাত্র মেডেল তা দিয়ে যাবো। ‘খেলায় হার জিত থাকবে। এতে কারও মন খারাপের কারণ নেই।’

তিনি দর্শকদের কাছে খেলার ফলাফলে সন্তুষ্ট কি-না জানতে চান। এ সময় সেখানে উপস্থিত কয়েকজন উৎসুক জনতা বলেন, ‘ট্রফি যতোদিন থাকবে মনের রেশ ততোদিন থেকে যাবে। পরে ইউএনও বলেন, ‘ট্রফি যতোদিন থাকবে তো ততোদিন?’

এদিকে ট্রফি ছুঁড়ে মারার এ ভিডিও পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ ভাইরাল হতে থাকে। বিভিন্ন নিউজ পোর্টালে ইউএনও’র এমন কর্মকান্ডে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ঘটনার পরপরই আলীকদম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম তার ব্যক্তিগত ফেসবুকে ইউএনও বিরুদ্ধের মন্তব্য তুলে ধরেন। তিনি লিখেন ‘আলীকদম উপজেলার বির্তকিত ইউএনও প্রত্যাহার চাই। প্রিয় ফেসবুক বন্ধুরা, জনগণকে অসম্মান করার জন্য ইউএনও আলীকদম প্রত্যাহার চাই। আজ আলীকদম উপজেলার ২নং চৈক্ষ্য ইউনিয়নের নেপারপাড়া এলাকার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্বাধীন যুক সমাজের উদ্যোগে আবাসিক জুনিয়র একাদশ বনাম রেপারপাড়া বাজার একাদশের ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আলীকদম উপজেলার নির্বাহি অফিসার মেহরুবা ইসলাম। উক্ত খেলায় সমাপনী বক্তব্যের সময় হঠাৎ জনগণের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ছেলেদের কষ্টে কেনা ফাইনাল খেলার ট্রফি ভেঙ্গে জনগণকে অসম্মান করা হলো।’

প্রত্যক্ষদর্শী চৈক্ষ্যং ইউপি চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন বলেন, খেলা কমিটির আমন্ত্রণে পুরো ঘটনায় আমি উপস্থিত ছিলাম। পরাজিত দুই খেলোয়াড়রা হঠাৎ করে ট্রফি নিতে অপরাগত প্রকাশ করেন। পরে কিছুটা গন্ডগোল সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে ইউএনও মহোদয় ট্রফি ছুঁড়ে ফেলার পরও কোন প্রক্রিয়া দেখায়নি।

ফুটবল টূর্ণামেন্ট পরিচালনা কমিটির সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম জানান, ট্রফি ছুঁড়ে ফেলার পরও কোন খেলোয়াড় ও পরিচালনা কমিটি কোন প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। সবাই মেডেল গ্রহণ করেছে। অনুষ্ঠান শেষ করে সবাই চলে গেছে।

এ ব্যাপারে জানতে আলীকদম নির্বাহী কর্মকর্তার সরকারি নাম্বারে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও সম্ভব হয়নি।

তবে বান্দরবান জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে জানান, একজন নির্বাহী কর্মকর্তা এ ধরণের কাজ করতে পারেন না। ঘটনাটি দুঃখজনক। তিনি ট্রফি না ভেঙ্গে সেগুলো রেখে দিতে পারতেন অথবা পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে পারতেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!