1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ১২:০২ পূর্বাহ্ন

আ.লীগের শক্তিশালী অবস্থান প্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছে ঈর্ষার

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ২৩ জুন, ২০২১

বাংলার কাগজ ডেস্ক : ২৩ জুন (বুধবার), প্রতিষ্ঠার ৭৩ বছরে পা রাখল দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম শীর্ষ রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। বাংলাদেশ সৃষ্টির নেতৃত্বে থাকা আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পর থেকেই গণমানুষের রাজনীতির চর্চায় বিশেষ অবস্থান তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। অংশগ্রহণমূলক রাজনীতির ক্ষেত্রে সমালোচনার জন্ম দিলেও আওয়ামী লীগই বাংলাদেশের প্রধানতম রাজনৈতিক দল এখন পর্যন্ত।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া আওয়ামী লীগ তার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কেমন আছে? জানতে চাওয়া হয় দেশের বিশিষ্ট নাগরিক ও বিশ্লেষকদের কাছে। তারা মনে করেন, তৃণমূলের রাজনীতির মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠিত হওয়া আওয়ামী লীগ কিছুটা হয়তো আদর্শচ্যুত হয়েছে, তবে আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী এবং গণমুখী, আর এটা প্রতিদ্বন্দ্বী রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে ঈর্ষার।

আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা পেয়েছে বিশেষ প্রেক্ষাপটে এবং আদর্শের ভিত্তিতে। আওয়ামী লীগ আদর্শচ্যুত হয়েছে আগের জায়গা থেকে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু দলটি গণমানুষের দল, সেটাও তো অস্বীকার করার উপায় নেই। বিশেষ করে বারবার হোঁচট খেয়ে দলটি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন যতটুকু শক্তিশালী অবস্থানে, তা যে কোনো রাজনৈতিক দলের জন্য ঈর্ষণীয়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা পেয়েছে বিশেষ প্রেক্ষাপটে এবং আদর্শের ভিত্তিতে। আওয়ামী লীগ আদর্শচ্যুত হয়েছে আগের জায়গা থেকে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু দলটি গণমানুষের দল, সেটাও তো অস্বীকার করার উপায় নেই। বিশেষ করে বারবার হোঁচট খেয়ে দলটি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এখন যতটুকু শক্তিশালী অবস্থানে, তা যে কোনো রাজনৈতিক দলের জন্য ঈর্ষণীয়।’

অধ্যাপক আনোয়ার বলেন, ‘১৯৪৯ সালের ২৩ জুন প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আওয়ামী লীগ বাঙালির প্রতিটি আন্দোলনে নেতৃত্ব দিতে থাকে। এসময় আওয়ামী লীগ এবং শেখ মুজিবুর রহমান একে অপরের পরিপূরক বনে যায়, যেমন পরিপূরক হয় স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধুর নাম।’

‘১৫ আগস্ট, ১৯৭৫ সাল। ঘাতকরা ওই দিন শুধু জাতির জনকের জীবন প্রদীপই নিভিয়ে দেয়নি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গেও গাদ্দারি করে। ’৭৫-এর পর সামরিক ফরমান আর ধর্মান্ধতার ছায়ায় রাষ্ট্র পরিচালিত হতে থাকে পাকিস্তানি ভাবধারায়। এমনই ক্রান্তিকালে দীর্ঘ ছয় বছর নির্বাসিত থাকার পর জীবনবাজি রেখে বাবার হাতে গড়া দেশে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনা। ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফিরেই দলের সভাপতির দায়িত্ব পান। যদিও তিনি দেশে ফেরার আগেই আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। এই সময়ে দল ভেঙেছে কয়েকবার, দল ছেড়ে অন্য দলে ভিড়েছেন অনেকেই।’

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এখন যে কোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী এবং গণমুখী। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাই হয়েছে তৃণমূলের রাজনীতির মধ্য দিয়ে। বঙ্গবন্ধু বাঙালির আবেগ ধারণ করেই আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা এবং রাজনীতি করে আসছিলেন। একটি দল জন্মের দুই দশকের মাথায় একটি দেশ প্রতিষ্ঠা দিতে পারে, তারই নাম আওয়ামী লীগ

অধ্যাপক আনোয়ার উল্লেখ করেন, ১৭ মে প্রত্যাবর্তনের দিন বিমানবন্দরে নেমেই শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ‘সব হারিয়ে আজ আমি এসেছি বাংলার মানুষের মুক্তির সংগ্রামে অংশ নিতে। আমার আজ হারানোর কিছু নেই।’

প্রায় চার দশকে নেতৃত্বে থাকা শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ হারিয়েছে অনেক কিছুই, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট যার ভয়ঙ্কর উদাহরণ। দেশ-বিদেশের ষড়যন্ত্রের সিঁড়ি মাড়িয়ে শেখ হাসিনাই আজ আওয়ামী লীগের কাণ্ডারি। দলকে ঐক্যবদ্ধ রেখে এগিয়ে নিচ্ছেন বাংলাদেশকেও।

আওয়ামী লীগের দফতর বিষয়ক সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু তার নেতৃত্ব এবং বিচক্ষণতার মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ নামের দলটিকে এমন উচ্চতর জায়গায় আসীন করেছিলেন, যে দলের নেতৃত্বে বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। এটি মিরাকল ছিল না। জাতির জনকের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেছিলেন একটি সংগঠন পরিচালনার মধ্য দিয়ে। কিন্তু ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর একটি নবতর সংগ্রামের প্রদীপ নিভিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হয়।’

তিনি বলেন, ৭২ বছরে আওয়ামী লীগ জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজ আরও শক্তিশালী। ভাত ও ভোটের অধিকারের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে নিরলস চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, তাতে আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের রাজনীতিতে একক অবস্থান তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সুনিপুণ নেতৃত্বের কারণেই আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশে আরও চারবার ক্ষমতায় আসে। মানুষ আওয়ামী লীগকে অধিক ভরসা করতে পারে এখন।’

বাংলাদেশের গণতন্ত্র এখনো সুনির্দিষ্ট কাঠামো পায়নি, তবে গণতান্ত্রিক কাঠামো যতটুকু শক্তিশালী এবং যে উন্নয়ন ঘটছে, তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কল্যাণেই বলে মনে করেন বিপ্লব বড়ুয়া।

একই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এখন যে কোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী এবং গণমুখী। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাই হয়েছে তৃণমূলের রাজনীতির মধ্য দিয়ে। বঙ্গবন্ধু বাঙালির আবেগ ধারণ করেই আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা এবং রাজনীতি করে আসছিলেন। একটি দল জন্মের দুই দশকের মাথায় একটি দেশ প্রতিষ্ঠা দিতে পারে, তারই নাম আওয়ামী লীগ।’

আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘আওয়ামী লীগে দীর্ঘকাল নেতৃত্ব দিয়ে শেখ হাসিনা বৈশ্বিক রাজনীতিতেও বিশেষ অবস্থান তৈরি করেছেন। দলের মধ্যেও তিনি নিরঙ্কুশ জনপ্রিয়, যার বিকল্প নেই বললেই চলে।’

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!