1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীর পোড়াগাঁওয়ে কে হচ্ছেন পরবর্তী চেয়ারম্যান?

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৬ মার্চ, ২০২১

বাংলার কাগজ প্রতিবেদক : আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নালিতাবাড়ী উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ডজন ডজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর নানারকম প্রচারণা চোখে পড়ছে। এরমধ্যে বেশিরভাগ প্রার্থী ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশি। কিছু সংখ্যক প্রার্থী স্বতন্ত্র এবং দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা দেশের বৃহত্তর রাজনৈতিক দল বিএনপি’র কিছু প্রার্থী রয়েছে। তবে মাঠজুড়ে আওয়ামী লীগ সমর্থক প্রার্থীর ছড়াছড়ি লক্ষ্যণীয়। এসব প্রার্থীর মধ্যে অনেকের জনপ্রিয়তা বলাচলে শুন্যের কোঠায়। অনেকেই আবার বেশ জনপ্রিয়। কেউবা দলের আনুগত্যের বাইরে থাকায় সমালোচিত কেউবা আনুগত্য মেনে চলায় প্রশংসিত। সে প্রেক্ষিতে নালিতাবাড়ীর কোন ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন এবং সম্ভাব্য বিজয় কোন প্রার্থীর নাগালে তা নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশের অংশ হিসেবে আজ তোলে ধরা হলো ১নং পোড়াগাঁও ইউনিয়নের নির্বাচনী হালচাল।
১নং পোড়াগাঁও ইউনিয়নে নতুন-পুরাতনে মিলে এবার চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা ৯ জন। এরমধ্যে বর্তমান ও টানা দুইবারের চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া, গেল নির্বাচনে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বন্দনা চাম্বুগং এবং আরেক নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ওমর ফারুক অন্যতম। এছাড়াও ইউনিয়ন বিএনপি’র কারান্তরীণ সভাপতি মজিবর রহমান চৌধুরী, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোতা মিয়া, মাওলানা জামাল উদ্দিন ও অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী নজরুল ইসলামসহ আরও একাধিক প্রার্থী রয়েছেন।
আজাদ মিয়া গেল নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেও দলের তার ন্যুনতম কোন অবস্থান বা সদস্য পদ না থাকায় শেষ পর্যন্ত দলীয় মনোনয়ন ছিনিয়ে নেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বন্দনা চাম্বু গং। অন্যদিকে বিএনপি থেকে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে লড়াই করেন ইউনিয়ন বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক। শেষ পর্যন্ত তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে স্বতন্ত্র প্রার্থী আজাদ মিয়া মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে টানা দ্বিতীয় বারের মতো বিজয়ী হন। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বন্দনা চাম্বুগং ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ওমর ফারুক খুব কাছাকাছি ভোটের ব্যবধানে হেরে যান।
আসন্ন নির্বাচনে এ ইউনিয়নে প্রার্থীর সংখ্যা ৯ জন হলেও শেষ পর্যন্ত ২-৩ জনের বেশি মাঠে থাকবেন নাÑ এমনটাই ধারণা স্থানীয় ভোটারদের। বিএনপি থেকে মজিবর রহমান চৌধুরী ও ওমর ফারুক এ দুইজন প্রার্থী হলেও বিএনপি স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আসবে নাÑ এমন ঘোষণার পর শেষ পর্যন্ত ওমর ফারুক স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে হলেও মাঠে থাকবেন বিষয়টি এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত।
অন্যদিকে আওয়ামী লীগে চলছে জটিল সমীকরণ। গেল নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর থেকে দলের আনুগত্যের বাইরে থাকায় বন্দনা চাম্বুগং এবার দলীয় মনোনয়ন থেকে ছিটকে পড়ার শঙ্কাই বেশি। মাওলানা জামাল উদ্দিন দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেও দলে তার অবস্থান এবং আনুগত্যে সমস্যা থাকায় এখানেও খুব একটা সম্ভাবনা জাগেনি। বর্তমান চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া গেল নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় বিরোধী শিবির মনে করছে তিনি কোনভাবেই দলীয় মনোনয়ন পেতে পারেন না। তবে গেল নির্বাচন পর্যন্ত আজাদ চেয়ারম্যান এর দলীয় কোন সাইনবোর্ড না থাকায় এ অভিযোগ খুব আমলে নিচ্ছেন না আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। বর্তমানে উপজেলা কৃষক লীগের যুগ্মআহবায়ক এবং দলের ভিরার পর থেকে মূল ধারার আনুগত্য প্রকাশ ও দলীয় কর্মকান্ডে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ তার দলীয় প্রার্থীতা নিশ্চিত করতে অনেকটাই কার্যকর হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন দলের নীতি নির্ধারকরা।
মাঠপর্যায়ে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, বহু আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেও তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে গেল নির্বাচনে টানা দ্বিতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় তার ভোটের ভিত অনেক মজবুত। আজাদ মিয়া যেখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েও মাঠ কাঁপিয়ে বিজয় ছিনিয়ে আনতে পেরেছেন সেক্ষেত্রে দলীয় মনোনয়ন পেলে এবারও তার জয় অনেকটা নিশ্চিত বলেই মতপ্রকাশ করেছেন স্থানীয় ভোটাররা।
সবমিলিয়ে নিজস্ব ভোট ব্যাংক থাকায় শেষ পর্যন্ত মূল লড়াই হবে বর্তমান চেয়ারম্যান আজাদ মিয়া ও গেল নির্বাচনে কাছাকাছি ভোটের ব্যবধানে পরাজিত প্রার্থী ওমর ফারুক এ দুই প্রার্থীর মধ্যে। অন্যদের বেলায় দলীয় প্রতীক প্রাপ্তির উপর নির্ভর করবে তার অবস্থান।

ইউনিয়ন ওয়ারী ধারাবাহিক প্রতিবেদন চলবে-

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!