1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন

করোনা দুর্যোগের সুবিধা বঞ্চিত দক্ষিণ উপকূলের জেলেরা

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২১

রাসেল কবির মুরাদ, পটুয়াখালী : দেশের সর্ব দক্ষিণে অবস্থিত সমুদ্র উপকূলের মৎস্য শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে এ জনপদের প্রায় ৩৭ ভাগ মানুষ। জীবিকার তাগিদে প্রতি মূহুর্তে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গভীর সমুদ্র থেকে মৎস্য আহরণ করে তা বিনিয়োগের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতেও বিশাল এক ভূমিকা পালন করছেন পেশাদার জেলেরা। নানান প্রতিকুলতার মাঝেও গভীর সমুদ্র থেকে নীল অর্থ আয়ের লক্ষে প্রতিবছরই ঝড়ের কবলে পড়ে প্রাণ হারায় অনেক মৎস্য আহরণকারী। তাদের কারো কারো খোঁজ স্বজনেরা পেলেও অনেকেরই সলিল সমাধি হয়েছে অথৈ জলে। তবুও জীবন যুদ্ধে হার না মানা এসব সাহসী আত্মনির্ভরশীল মানুষগুলো নির্ধারিত সময়ে কাঙ্খিত মৎস্য আহরণের লক্ষ্যে ছুটে যায় গভীর সমুদ্রসহ বিভিন্ন নদ-নদীতে। আর এসব জেলেদের মৎস্য শিকারে নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে সরকারীভাবে তালিকা প্রণয়নের মাধ্যমে বিশেষ প্রণোদনা (ভিজিএফ) এর আওতায় আনলেও হালনাগাদ তালিকার ফাঁদে পড়ে সুবিধাবঞ্চিত হচ্ছে পেশাদার জেলেরা।
স্থানীয় সূত্র ও সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, প্রতি বছরের ১ নভেম্বর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত জাটকা ইলিশ ধরা বন্ধ থাকায় পেশাদার অনেক জেলের কপালেই এখন চিন্তার ভাঁজ। গভীর সমুদ্র ও নদ-নদীতে মাছ ধরতে না পারায় খাদ্য সঙ্কট দেখা দিয়েছে পেশাদার অসহায় হতদরিদ্র জেলে পরিবারগুলোতে। জেলেদের অভিযোগ, ২০১৩ থেকে ২০১৭ সালের জেলে তালিকায় অর্ন্তভূক্ত মৎস্য শিকারিদের (ভিজিএফ) খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। দীর্ঘ এ সময়ে প্রায় পঞ্চাশ শতাংশ জেলে পেশা পরিবর্তণ করে ভিন্ন পেশায় ঝুঁকেছেন। তবে তালিকা হালনাগাদ না হওয়ায় বর্তমানে সরকারের প্রদেয় এই সুবিধা থেকে ছিটকে পড়েছেন সত্যিকারের জেলেরা।
লালুয়া ইউপির ষাটোর্ধ্ব জেলে আব্দুর রহমান জানান, ছোটবেলা থেকে এ পেশায় খেটে খাচ্ছি। বর্তমানে লকডাউন চলছে। আবার ঝাটকা ধরাও বন্ধ। কিন্তু আমি চাল পাইনি। চাল পায় হোন্ডা চালক, দোকানদারসহ ভিন্ন পেশার মানুষ।
তিনি আরো জানান, মাছ শিকারে গিয়ে ট্রলারসহ ঝড়ের কবলে পড়ে পাশর্^বর্তী দেশ ভারতে গিয়ে পৌঁছালে সেখানে দীর্ঘ আট মাস কারা ভোগের পর নিজ দেশে পৌঁছাতে পেরেছেন। জেলে কার্ড থাকা সত্বেও তালিকাভুক্ত হতে না পারায় তিনি বঞ্চিত হয়েছেন।
ইলিশ শিকারী কাদের ব্যাপারী জানান, বাপ দাদাসহ সবাই এই পেশার মাধ্যমে সংসার চলে। কার্ড আছে তবুও চাল পাননি বলে নিষেধাজ্ঞাকালীন সময়ে দুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন।
প্রশাসনের প্রতি ক্ষোভ নিয়ে আরেক জেলে মনু হাওলাদারের অভিযোগ, পরিবারের সবাই মৎস্য শিকারী। তবু চাল পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তিনি।
তিনি বলেন, অ-পেশাদার জেলেরা বারবার চাল পাচ্ছেন কিন্তু তিনি পেশাদার হিসেবে চাল পাচ্ছেন না। জেলে তোরাব আলীর অভিযোগ সারাবছর ঝড় ঝাপটা উপেক্ষা করে সাগর, নদী মোহনায় মাছ শিকার করে থাকেন। তবুও স্থানীয় প্রভাবে তার নাম তালিকাচ্যুত হয়েছে। বিচার চাইবো কার কাছে। একই অভিযোগ ধুলাসার ও লচাপলী ইউপির শতাধিক জেলে সদস্যদের।
লালুয়া ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসেন তপন বিশ^াস এ প্রতিবেদককে বলেন, লালুয়া ইউনিয়নে ২৭ শতাধিক জেলে থাকলেও তালিকায় রয়েছে মাত্র ১৪’শ ৫০ জনের নাম। তালিকা হালনাগাদ না হওয়ায় প্রায় অর্ধেক পেশাদার জেলেরা তাদের নিষেধাজ্ঞাকালীন দুর্যোগসহ চলমান করোনার দুর্যোগের মাঝেও সহায়তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। আমরা দেখে কষ্ট পেলেও তালিকার বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। শীঘ্রই তিনি এই তালিকা হালনাগাদ করার অনুরোধ জানান।
লাপাড়া উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা অনুপ সাহা গণমাধ্যমকে বলেন, করোনার পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত হালনাগাদ তালিকা করা যাচ্ছে না। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দ্রুতই প্রতিটা ইউনিয়নে তালিকা প্রণয়ন করা হবে। এছাড়া ২০১৯ সালে হালনাগাদ তালিকার যে নীতিমাল হয়েছে সেই নীতিমালা মূলত করোনার কারনে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি।
তিনি আরো জানান, উপজেলায় কার্ডধারী জেলেদের সংখ্যা ১৮ হাজার ৫’শ ৮ জন। এদের মধ্যে চলমান (ভিজিএফ) সুবিধাভোগী জেলে রয়েছেন ১০ হাজার ৫’শ ৯৩ জন। তবে চেয়ারম্যান সাহেবরা চেষ্টা করলে সমন্বয় করে চাল বিতরণ করতে পারেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!