1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন

ফেলে দেওয়া কলাগাছ থেকে সুতা, তৈরি হচ্ছে সৌখিনারী পণ্য

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩

বান্দরবান : সবুজ পাহাড় ঘেরা বান্দরবান পার্বত্য জেলার পথে প্রান্তরে ঘুরলেই চোখে পড়বে আবাদি অনাবাদি ভূমিতে অসংখ্য কলাগাছ ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। প্রাকৃতিক নিয়মে এইসব কলাগাছ এক বছর ফল দিয়ে মারা যায়। তাই ফল তোলার পর এক সময় কলাগাছ কেটে ফেলে দেয়া হয়। একসময় অকেজো কলা গাছের বাকল থেকে অভিনব কায়দা এখন তৈরি হচ্ছে সুতা। সে সুতাকে বিনি করে বানানো হচ্ছে ঘরের ব্যবহার্য্য বিভিন্ন সৌখিনারী পণ্য। এই কলা গাছের পণ্য এলাকার চাহিদা মিটিয়ে বাজার জাত করা হচ্ছে দেশের বিভিন্ন এলাকায়। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের সহযোগিতায় জেলা প্রশাসনের সার্বিক তত্বাবধানে কলাগাছে বাক থেকে সুতা থেকে তৈরির প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বেকার নারীদের কর্মসংস্থানের জন্য একটি প্রকল্পের হাতে নিয়েছেন জেলা প্রশাসন। এই প্রকল্পটি যথাযথ বাস্তবায়িত হলে স্থানীয় নারী উদ্যোক্তা বৃদ্ধির লক্ষ্যের পাশাপাশি ও আর্থসামাজিকসহ জীবনমানের পরির্বতন ঘটবে বলে মনে করছেন সংশিষ্টরা।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, কাঁচামালের সহজলভ্যতা ও স্বল্প পরিশ্রমে অধিক মুনাফা লাভের আশায় বান্দরবান সদর উপজেলার কুহালং ইউনিয়নের আমতলী পাড়ার ৮৮ পরিবার এখন কলাগাছের বাঁকল থেকে ফাইবার বা সুতা তৈরি হচ্ছে। এ প্রকল্পের আওতায় রাজবিলা ইউনিয়নের খামাদং পাড়ার ৪৪ পরিবারকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ওয়ার্ল্ড ভিশন, উদ্দীপন, গ্রাউস উদ্দোক্তাদের মেশিন সরবরাহসহ কারিগরি সহায়তা প্রদানের উদ্যোগ নিয়েছেন। সরেজমিনে দেখা যায়, পাইলটিং ভিত্তিতে এই প্রকল্পটি সদর উপজেলার কুহালং ইউনিয়নের আমতলীপাড়া ও রাজবিলা ইউনিয়নের খামাদং পাড়ায় পরীক্ষামূলকভাবে স্থাপন করা হয়েছে। বিভিন্ন বন-জঙ্গলে থেকে কলাগাছ সংগ্রহ করে একপাশে সারিবদ্ধভাবে বিছানো রয়েছে কলাগাছ। প্রতিটি কলাগাছের দুই দিকের অংশ কেটে ফেলে খোলস (ছাল) ছাড়ানো হচ্ছে। তারপর কলাগাছের সুতা তৈরির সেই মেশিনে দেওয়া মাত্র বের হয়ে আসছে আঁশযুক্ত সুতা। এরপর এই সুতা ধুয়ে শুকানো হচ্ছে রোদে। শুকানোর পর এই সুতাগুলোতে রং দেওয়া হয়। তারপর সেটি প্রক্রিয়াজাত করে বাজারজাতের উপযোগী হয়ে পড়ে।

প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, এক সময় ফেলে দেয়া কলা গাছের বাকল থেকে তৈরি করা যায় পাটের আঁশের মত মসৃণ সুতা। সুতা তৈরির পর বাকলের অবশিষ্টাংশ মাটিতে সার হিসেবে ব্যবহারও করা যায়। এই সুতা দিয়ে সুতাজাত হরেক রকমের হস্ত শিল্প পণ্য তৈরির প্রকল্প গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসন। ইতোমধ্যে পরিবেশবান্ধব এ প্রকল্পে প্রায় দেড়শত নারী উদ্যোক্তাকে দেয়া হচ্ছে প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষিত নারী উদ্যোক্তাদের অনেকেই জানান, প্রশিক্ষণ গ্রহণের পর তাদের উৎপাদিত হস্তশিল্পের এসব পণ্যের স্থানীয়ভাবে ব্যাপক চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। ইতিমধ্যে অনেক নারী উদ্যোক্তার সাথে যোগাযোগ করেছেন রপ্তানিকারকরা।

প্রকল্পের প্রশিক্ষক হাসিনা আক্তার বলেন, কলাগাছের এই সুতা দিয়েই তৈরি হচ্ছে ফ্লোর মেট, ব্যাগ, ফুলদানি, মাথার ক্যাপসহ নানা ধরণের হস্ত শিল্প। এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে পার্বত্য জেলা বান্দরবানের কৃষকদের জীবনমানের উন্নয়ন ঘটবে এবং অর্থনৈতিক অবস্থার পরিবর্তন হবে বলেও তিনি মত দেন।

ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি জানান, এই উদ্ভাবানী প্রকল্পের সঠিক বাস্তবায়ন হলে বান্দরবান জেলায় দেশে বিদেশে রফতানি শুরু হবে এবং এতে সামগ্রিকভাবে উপকৃত হবে স্থানীয় নারী উদ্যেক্তসহ চাষীরা।

তিনি বলেন, সিদ্ধান্ত মোতাবেক গ্রাম সমীক্ষা শুরু করে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এবং গ্রাউস, প্রাথমিকভাবে ৬৩টি গ্রামের ওপর সমীক্ষা করে এ প্রকল্পের জন্য ৯টি পাড়া ও গ্রামকে নির্বাচন করা হয়েছে এবং সে অনুযায়ী কাজ শুরু হয়েছে। তাছাড়া যেসব পরিবার এ প্রকল্পে সরাসরি জড়িত থাকবে না তারাও উৎপাদনকারীর কাছে কলাগাছ বিক্রির মাধ্যমে আর্থিকভাবে লাভবান হবে বলে জানান এই কর্মকতা।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!