1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৩৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

বাবা-ভাইয়ের পরামর্শে খুন হন আমেরিকা প্রবাসী জীবন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৬

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১ এপ্রিল, ২০২৪

শেরপুর : নারী দিয়ে প্রেমের ফাঁদে ফেলে শেরপুরের চরাঞ্চলে নিয়ে প্রথমে অপহরণ ও মুক্তিপণ দাবী নাটক এরপর মারধর করে পা ভেঙে ছুরিকাঘাত করে নৃশংসভাবে খুন করা হয় আমেরিকা প্রবাসী আব্দুল হালিম ওরফে জীবনকে (৪৮)। জন্মদাতা পিতা সুরুজ্জামান মাস্টার ও সহোদর ভাই স্বপনের পরামর্শে নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ। পরে তারই সহযোগিদের সরাসরি অংশগ্রহণে হত্যাকাণ্ডটি ঘটানো হয়।

সোমবার (১ এপ্রিল) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে এমন তথ্য জানান শেরপুরের পুলিশ সুপার মোনালিসা বেগম পিপিএম। এসময় তিনি এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রউফসহ ৬ জনকে গ্রেফতার এবং জড়িত অন্যদের বিরুদ্ধেও মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সদর উপজেলার সাতপাকিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ (৪৫), সহযোগী মোবারক ওরফে মোস্তাক (৩২), মনোয়ারা বেগম (৪০), রকিব হোসেন ওরফে জিহাদ (২০), কালু মিয়া (২৫) ও রূপা বেগম (২৮)। প্রেস

ব্রিফিংকালে পুলিশ সুপার জানান, প্রায় ২৫ বছর স্ত্রীসহ আমেরিকায় প্রবাস জীবন কাটিয়েছেন নিহত আব্দুল হালিম জীবন। সেখানে থাকাবস্থায় মেঝো ভাই স্বপন ও ছোট ভাইসহ পরিবারের অন্যদের আমেরিকা নিয়ে সেখানকার নাগরিকত্ব পাইয়ে প্রতিষ্ঠিত করেন। নিঃসন্তান হওয়ায় দুই বছর আগে বাংলাদেশে এসে দ্বিতীয় বিয়ে করে শেরপুর শহরে বসবাস করছিলেন জীবন। দ্বিতীয় বিয়ে ও পারিবারিক বিষয় নিয়ে পিতা-মাতার সঙ্গে জীবনের বিরোধ সৃষ্টি হয়। এ বিরোধে জীবন ও তার দ্বিতীয় স্ত্রীর বিরুদ্ধে পিতা সুরুজ্জামান ৪টি মামলা করেন। একইভাবে দ্বিতীয় স্ত্রী শ^শুরের বিরুদ্ধে দায়ের করেন ২টি মামলা। এরমধ্যে একটি মামলায় জীবনের পিতা সুরুজ্জামান প্রায় দেড় মাস কারাভোগ করে এক সপ্তাহ আগে জামিনে আসেন। এ জন্য জীবনের পিতা সুরুজ্জামান ও আমেরিকা প্রবাসী সহোদর ভাই স্বপন জীবনের প্রতি ক্ষিপ্ত হন।

পরে পিতা-ছেলে মিলে স্বপনের বন্ধু শেরপুরের ব্যবসায়ী শাহিনকে দিয়ে জীবনকে শায়েস্তা করার নির্দেশ দেন। কথামতো শাহিন তার ব্যবসায়িক পার্টনার সাতপাকিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রউফের সাহায্য নেন। আব্দুর রউফ জীবনকে শায়েস্তা করতে তার সাঙ্গপাঙ্গ কালু, ময়নাল, জিহাদ ও মোবারককে নির্দেশ দেন। কালু তার পূর্ব পরিচিত মনোয়ারাকে জানালে মনোয়ারা রুপাকে দিয়ে ১৫ দিন আগে থেকে মোবাইল ফোনে জীবনের সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করে।

পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ৩০ মার্চ শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় জীবনকে বাসা থেকে মোবাইল ফোনে ডেকে এনে কৌশলে আসামিদের হাতে তুলে দেয় রুপা। পরে আব্দুর রউফ, কালু, ময়নাল, জিহাদ ও মোবারক জীবনকে চরাঞ্চলের একটি ঘরে আটকে রেখে রাত ৯টার দিকে জীবনেরই মোবাইল ফোন থেকে দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে ৯৩ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। এরপর কালু, ময়নাল, জিহাদ ও মোবারক জীবনকে ব্রহ্মপুত্র নদের চরে ফাঁকা জায়গায় নিয়ে প্রথমে মারধর করে ও পা ভেঙে দেয়। পরে ছুরিকাঘাত করে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এ সময় ধস্তাধস্তিতে আসামি কালু ও জিহাদ আহত হলে রাতেই আব্দুর রউফের পরামর্শে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়।

অন্যদিকে মোবাইল ফোনে মুক্তিপণ দাবী করায় দ্বিতীয় স্ত্রী বিষয়টি শেরপুর সদর থানায় অবহিত করেন।

প্রেস ব্রিফিংকালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) খোরশেদ আলম, শেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমদাদুল হকসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সুপার জানান, গ্রেফতারকৃত ৬ জনের মধ্যে ২ জন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পুলিশ হেফাজতে চিকিৎসাধীন রয়েছে এবং ৩ জন হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!