1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন

কোটা বিরোধী আন্দোলন: দেশব্যাপী ৬৫ সদস্যের সমন্বয়ক টিম গঠন

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০২৪

বাংলার কাগজ ডেস্ক : কোটা সংস্কার ও ২০১৮ সালের মেধাভিত্তিক নিয়োগের পরিপত্র পুনর্বহালসহ চার দাবিতে দেশব্যাপী লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের’ ব্যানারে শিক্ষার্থীদের ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি নিয়ে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো সোমবার (৮ জুলাই) শিক্ষার্থীদের অবরোধে অচল হয়ে পড়ে রাজধানী ঢাকা।

আন্দোলনকে নতুন মাত্রা দিতে জাতীয় পতাকা, কাফনের কাপড় ও শিকল পরে অবরোধে অংশ নিতে দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের। আর অবরোধের কারণে বিকাল ৪টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত রাজধানীর শাহবাগ, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের মোড়, মিন্টো রোড, মৎস্য ভবন, গুলিস্তানের জিরো পয়েন্ট, বঙ্গবাজার মোড়, চানখাঁরপুল, সায়েন্স ল্যাব মোড়, বাংলামোটর, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেটে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। এতে এসব এলাকা যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। আর প্রধান প্রধান সড়ক বন্ধ হয়ে যাওয়ায় রাজধানীর বেশিরভাগ এলাকাগুলো দ্বিতীয় দিনের মতো স্থবির হয়ে পড়ে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন অফিস শেষে ঘরমুখী মানুষ। এক জায়গায় দীর্ঘক্ষণ বসে থেকে বাস থেকে নেমে পায়ে হেঁটে গন্তব্যের পথ ধরেন যাত্রীরা।

রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ‘রক্তের বন্যায় ভেসে যাবে অন্যায়’, ‘সারা বাংলায় খবর দে কোটা প্রথার কবর দে’, ‘ছাত্রসমাজের অ্যাকশন, ডাইরেক্ট অ্যাকশন’ স্লোগানে মুখরিত করেছে। এ ছাড়া কোটা প্রথাকে তিরস্কার করে গান, কবিতা গেয়ে প্রতিবাদ করতে দেখা গেছে। এদিকে রাজধানীতে যেন অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি না হয় সে জন্য অধিক সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়।

অন্যদিকে আন্দোলনকে আরও বেগবান করতে এবং পরিচালনার লক্ষ্যে দেশব্যাপী ৬৫ সদস্যবিশিষ্ট সমন্বয়ক টিম গঠন করেছে ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’ প্ল্যাটফর্মটি। এই আন্দোলন থেকে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়েছে। রাজধানী ছাড়াও জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক, বেগম রোকেয়া বিশ^বিদ্যালয়ের (বেরোবি) শিক্ষার্থীরা রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করেন। এ ছাড়াও দেশের অনেক স্থানেই সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করেছেন শিক্ষার্থীরা। এমনকি অবরোধের কারণে রাজশাহীর সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

দুদিন বাংলা ব্লকেড কর্মসূচি পালন করলেও আজ মঙ্গলবার দাবি আদায়ের পক্ষে সারা দেশে শিক্ষার্থীদের মধ্যে জনসংযোগের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন আন্দোলনকারীরা। সোমবার বিকালে কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী নাহিদ ইসলাম জানান, বুধবারের কর্মসূচি মঙ্গলবার বিকালে অনলাইনে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হবে। একই সঙ্গে বলা হয়েছে, দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত তারা পড়ার টেবিলে ফিরবেন না।

এদিকে দেশব্যাপী আন্দোলনরত চাকরিপ্রত্যাশী ও শিক্ষার্থীদের রাস্তায় আন্দোলন করা উচিত নয় বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেছেন, আন্দোলনকারীরা একজন আইনজীবী রেখে আদালতে তাদের বক্তব্যে উপস্থাপন করলে নিশ্চই আদালত তাদের ন্যায্য রায় দেবেন। সোমবার বিকালে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে সোমবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরসহ পাঁচজন মন্ত্রী রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। অন্যদিকে সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতির বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন হওয়ায় তা নিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন করা উচিত না বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন। সুপ্রিম কোর্টে প্রাঙ্গণে নিজ কার্যালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে সোমবার তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, বুধবারের মধ্যে হাইকোর্টের রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি হাতে পেলে বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগে আপিল করব।

লুডো-তাস-ক্রিকেট খেলায় ব্যস্ত শিক্ষার্থীরা

বাংলা ব্লকেড কর্মসূচি অনুযায়ী দ্বিতীয় দিনের মতো রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলো অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীরা। এ সময় স্লোগানের পাশাপাশি লুডু, ক্রিকেট ও তাস খেলে সময় পার করতে দেখা যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের। শাহবাগ ও ইন্টারকন্টিনেন্টাল মোড় ঘুরে দেখা যায়, অবরোধের সময় শিক্ষার্থীদের কিছু অংশ ফাঁকা সড়কে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে ক্রিকেট ও লুডু খেলে সময় কাটাচ্ছেন। আবার গান-কবিতা আবৃত্তি করে আন্দোলনকারীদের চাঙ্গা করেছেন কেউ কেউ। আবার কয়েকজন সড়কে বিভিন্ন স্লোগান লিখে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।

৬৫ সদস্যের কমিটি গঠন

সরকারি চাকরিতে ‘কোটা’ পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ৬৫ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন। ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’ ব্যানারে এই আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। সোমবার দুপুর ২টার দিকে এ কমিটি গঠনের কথা জানানো হয়। বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ৬৫ সদস্যবিশিষ্ট সমন্বয়ক টিম গঠন করা হলেও এখানে সমন্বয়ক হিসেবে ২৩ জনকে রেখেছেন তারা। অন্যরা সহ-সমন্বয়ক।

সোমবার বিকালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঁঠালতলা থেকে ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়’র ব্যানারে শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামেন। পুলিশি বাধা অতিক্রম তারা প্রতিবাদ মিছিল নিয়ে রায় সাহেব বাজার, তাঁতীবাজার অতিক্রম করে গুলিস্তানের জিরো পয়েন্টে এসে অবস্থান নেয়। জিরো পয়েন্টে বেলা সাড়ে ৩টা থেকে শুরু করে গুরুত্বপূর্ণ এই সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। পরে আড়াই ঘণ্টা ধরে অবরোধ শেষে রাস্তা ছাড়েন তারা। আন্দোলনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যুক্ত হয় কবি নজরুল কলেজ ও সোহরাওয়ার্দী কলেজের শিক্ষার্থীরা। এতে হাজারো শিক্ষার্থীর জমায়েত হয়।

টানা চার ঘণ্টা অবরোধ কর্মসূচির পর ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক ছাড়েন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীরা। সোমবার দুপুর পৌনে ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি সড়ক ঘুরে প্রধান ফটক সংলগ্ন ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গিয়ে শেষ হয়। পরে শিক্ষার্থীরা সেখানে বেলা ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত টানা অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন। এতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের উভয় লেনেই তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। জ্যামে আটকে পরা শরীফুল ইসলাম নামের একজন বলেন, আমরা সাধারণ মানুষরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছি, সরকারের উচিত এই সমস্যার তাড়াতাড়ি সমাধান করা।
কোটাব্যবস্থা পুনর্বহালের প্রতিবাদে আবারও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) শিক্ষার্থীরা। এ সময় মহাসড়কে প্রায় ৪০ কিলোমিটারের মতো তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। সোমবার বেলা সাড়ে ৩টা থেকে এ অবরোধ কর্মসূচি শুরু হয়।
রাজশাহীর সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ। রাবি প্রতিনিধি জানান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীদের রেলপথ অবরোধের ফলে রাজশাহীর সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে বিশ^বিদ্যালয়ের চারুকলা সংলগ্ন ফ্লাইওভারের নিচের রেললাইনে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করেন। এতে করে বন্ধ হয়ে যায় রেল যোগাযোগ। যদিও পরে রেল যোগাযোগ চালু হয়।
এর আগে বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি আবাসিক হল এবং আশপাশের বিভিন্ন মেস থেকে প্যারিস রোডে জড়ো হতে থাকেন শিক্ষার্থীরা। এরপর এক বিশাল মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন, একাডেমিক ভবন, সবকটি হলের সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে রেললাইনে গিয়ে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা।
যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন ও বিক্ষোভ-মিছিল করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সোমবার কোনো ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি।
কোটা বাতিল আন্দোলনের পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী আন্দোলন চলছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি)। সোমবার দুপুর ১২টায় বিভিন্ন হল থেকে মুক্তমঞ্চে এসে সমবেত হন শিক্ষার্থীরা। দেশব্যাপী বাংলা ব্লকেডের অংশ হিসেবে তৃতীয় দিনের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ আব্দুল জব্বার মোড়ে অবস্থিত রেললাইনে চলমান ট্রেন অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট অবরোধ করে রাখার পওে বেলা ৩টায় ট্রেনটি ছাড়া হয়।
কোটা পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) শিক্ষার্থীরা বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে। সোমবার দুপুরে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অবরোধ করে রাখে। এর আগে শিক্ষার্থীরা ববি গেটে ষষ্ঠ দিনের মতো বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!