1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন

শেরপুরে দমকা হাওয়া ও শিলাবৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২২

শেরপুর: শেরপুরে দমকা হাওয়াসহ শিলাবৃষ্টিতে বোরো আবাদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জেলা সদরসহ ঝিনাইগাতী ও শ্রীবরদী উপজেলা। উঠতি বোরো ফসল বিনষ্ট হয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কয়েক হাজার কৃষক।

মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) ভোর রাতে ধমকা হাওয়াসহ শিলাবৃষ্টিতে শুধু বোরো আবাদই নয়, শাক-সবজি, গাছপালা ও ঘর-বাড়ির এ ক্ষয়ক্ষতি হয়।

ফসলের মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, ধান কাটা ও ঘরে তোলার মৌসুমের শুরুতেই সোমবার দিবাগত রাতে দমকা হাওয়া ও শিলাবৃষ্টিতে সহ¯্রাধিক কৃষক বেকায়দায় পড়েছেন। নিচু এলাকায় বৃষ্টিতে ধান গাছ নুয়ে পড়েছে ও শিলের আঘাতে ঝরে গেছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শ্রীবরদী উপজেলার মাটিয়াকুড়া, গিলাগাছা, কুরুয়া, ধাতুয়া, শেখদি ও কুড়িকাহনিয়াসহ কয়েকটি এলাকা।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানান, করোনার কারনে এমনিতেই কয়েক বছর ধরে নানা কারণে ধান আবাদে লোকসান লেগে ছিল। এর মধ্যে শিলাবৃষ্টিতে যে ক্ষতি হয়েছে তা পূরণ সম্ভব নয়।

সদর উপজেলার চরশেরপুরের কৃষক আব্দুল জলিল বলেন, আমার এক একর জমির ধান ভোরে শীল পড়ে নষ্ট হয়ে গেছে। এ নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় আছি।

শ্রীবরদী উপজেলার খড়িয়া কাজিরচর ইউনিয়নের ঝিনিয়া গ্রামের কৃষক মফিল উদ্দিন জানান, ঋণ করে চার একর জমিতে বোরো আবাদ করেছিলাম। এক রাতেই সব শেষ আমার।

একই গ্রামের কৃষক জুলহাস আলী বলেন, আমি ১০ কাঠা জমিতে আবাদ করেছি। এ থেকে পুরো বছরের খাবার আসতো। ভোরে শিলের আঘাতে সব ধান পড়ে গেছে।

লংগরপাড়া গ্রামের কৃষক চাঁন মিয়া বলেন, সেহরির পরপরই শীল পড়ে আমার এক একর জমির সব ধান পড়ে গেছে। এখন বউ-বাচ্চা নিয়ে কি খামু?

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা সরকারের সহযোগিতার দাবি জানিয়ে বলেন, আমাদের জন্য সরকার কিছু একটা ব্যবস্থা না করলে চলা মুশকিল হয়ে পড়বে।

এ বিষয়ে জেলা কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক ড. মোহিত কুমার দে জানান, ভোর রাতের শিলাবৃষ্টিতে শেরপুরে প্রায় একশ’ হেক্টর জমির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!