1. admin@banglarkagoj.net : admin :
মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন

চালু হয়নি ওভারলোডে ক্ষতিগ্রস্থ নাকুগাঁও সেতু : যান চলাচলে দুর্ভোগ

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৭ মার্চ, ২০২০
  • ২৪৪ বার পড়া হয়েছে

নালিতাবাড়ী (শেরপুর): বহন ক্ষমতার প্রায় ৭ গুণ ওভারলোড ও প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বালু উত্তোলণের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত ভোগাই নদীতে নির্মিত প্রায় ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে মাত্র দশ বছর আগে নির্মিত নাকুগাঁও সেতু পূর্ণাঙ্গ চালু হয়নি দশ দিনেও। ফলে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার সীমান্ত সড়কপথে যান চলাচলে বেড়েছে দুর্ভোগ।
সওজ সূত্র জানায়, কুড়িগ্রাম থেকে সুনামগঞ্জ পর্যন্ত সড়ক যোগাযোগে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের লক্ষ্যে তৎকালীন কৃষিমন্ত্রী ও বর্তমান সংসদ সদস্য মতিয়া চৌধুরী ১৯৯৯ সালে নাকুগাঁও সেতু নির্মাণে উদ্যোগ নেন। প্রায় ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০৯ সালের দিকে সেতুটির নির্মাণকাজ শেষ হলে চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। এরমধ্যে গত কয়েক বছর যাবত সেতুর আশপাশ থেকে প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চলছিল বালু উত্তোলন। তবে গেল আগস্টে নাকুগাঁও মৌজার ২.২২ একর নদীর চর লীজের আওতায় এলে পুরো এলাকাজুড়ে চলে মহোৎসব। ব্রিজের আশপাশ ও ভারত সংশ্লিষ্ট আন্তর্জাতিক সীমানার মধ্যে ব্যাপকহারে বালু উত্তোলনের একপর্যায়ে নদীর তলদেশ বোরিং করে ভূ-গর্ভস্থ খনিজ বালু উত্তোলনেরও হিরিক চলে। সদ্য উত্তোলিত পানিসহ ভেজা এসব বালু প্রতিদিন অসংখ্য ট্রাকে ভরে নাকুগাঁও সেতু পার হয়। যার ওজন প্রায় সেতুর ধারণ ক্ষমতার প্রায় ৭ গুণ।
অন্যদিকে সেতুর নিষিদ্ধ সীমানায় বালু উত্তোলণের ফলে নদীর গভীরতা বৃদ্ধি পায়। সেতুর নিচে পূর্ব পাশের দুইটি ব্যাচে থাকা পাইলক্যাপের আংশিক ধসে যায় এবং পাইলগুলো বেরিয়ে পড়ে। ধ্বসে যায় পূর্ব পাড়ের রিটেনিং ওয়াল ও আশপাশের সিসি ব্লক। ফলে অপেক্ষাকৃত দূর্বল হয়ে পড়ে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ এ স্থাপনা।

এরইমধ্যে গত শুক্রবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) ওভার লোড একটি ট্রাক সেতু পারাপারের সময় সেতুর কয়েক ফুট ছাদ ধ্বসে পড়ে। আপদকালীন শেরপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের পক্ষ থেকে সেতুটি সাময়িকভাবে মেরামত করে সিএনজি/অটো’র মতো ছোট যান ছাড়া সবধরণের যান চলাচল বন্ধ রাখে সওজ কর্তৃপক্ষ।
নদীর পূর্বপাড়স্থ রামচন্দ্রকুড়া ইউপি চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম খোকা জানান, প্রতিদিন শতশত বালু বোঝাই ওভার লোড ট্রাক যাতায়াত করে সেতু দিয়ে। বালু বোঝাই ট্রাক সেতুর উপর ঘণ্টার পর ঘণ্টা সারিবদ্ধভাবে দাড়িয়ে থাকে। এছাড়াও সেতুর কাছ থেকে বালু উত্তোলনের ফলে সেতুর পাইল বেরিয়ে পড়েছে। ধ্বসে গেছে সিসি ব্লকসহ রিটেনিং ওয়াল।
নদীর পশ্চিম পাড়স্থ নয়াবিল ইউপি চেয়ারম্যান ইউনুছ আলী দেওয়ান জানান, ঝুঁকিপূর্ণ এ সেতু রক্ষা করতে হলে ওভার লোড বালু বোঝাই ট্রাক চলাচল বন্ধ করে দিতে হবে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন প্রকৌশলী জানান, সেতুটির অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ অংশ মেরামত করা হলেও আগের মতো শক্তিশালী হবে না। কিছুদিন পরপরই তাতে ফাটল ধরবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান জানান, ওভার লোডের কারণে সেতুটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
শেরপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উদ্দিন আহমেদ জানান, ওভার লোডের কারণেই সেতুর এ অবস্থা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবে একটি ট্রাকে যে পরিমাণ বালু লোড করা হয় তার ওজন প্রায় ৪০ টনের উপরে। কিন্তু দশ টন বহন ক্ষমতা সম্পন্ন এ সেতুর উপর দিয়ে নিয়মিত পানিসহ সদ্যতোলা বালু পরিবহণ করা হয়েছে। যার ওজন প্রায় ৭০-৮০ টন। তিনি আরও জানান, সাময়িকভাবে মেরামত করা হলেও যানবাহন চলাচলের জন্য তা যথেষ্ট নয়। আমরা ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে পরামর্শ করে দ্রুত স্থায়ী সমাধানের ব্যবস্থা করব।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 BanglarKagoj.Net
Theme Customized By BreakingNews