1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
  3. mehedihasanshakib06@gmail.com : mehedi sakib : mehedi sakib
বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীর নয়াবিল উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়া নিয়োগে বাণিজ্যের অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ২৯ জুন, ২০২০

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার নয়াবিল উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়া নিয়োগে মোটা অংকের ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যেই নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত চেয়ে এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর দাখিল করা হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নয়াবিল উচ্চ বিদ্যালয়ের আয়া পদে জনবল চেয়ে গত ১৫ মার্চ একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরপরই বিদ্যালয়ের প্রতিবেশি স্থানীয় দরিদ্র সাইফুল ইসলামের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন আয়া পদে চাকুরী লাভের জন্য বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান একেএম বেলায়েত হোসেন খসরু এবং বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফের সাথে যোগাযোগ করেন। এসময় সভাপতি বেলায়েত হোসেন খসরু চাকুরী প্রাপ্তির শর্ত হিসেবে সাবিনার কাছে ৬ লাখ টাকা দাবী করেন এবং প্রধান শিক্ষকের কাছে দিতে বলেন। সভাপতির দেওয়া প্রতিশ্রুতি মতো চাকুরী পেতে সাবিনা তার পৈত্রিক ওয়ারিশ সূত্রে প্রাপ্ত ১০ কাঠা (৫০ শতক) জমি তড়িঘড়ি করে কম মূল্যে মাত্র ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করেন ও বাকী টাকা সুদে দেনা করেন। পরে প্রথম দফায় সাড়ে চার লাখ টাকা বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য শওকত হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে সভাপতির কথামতো প্রধান শিক্ষকের হাতে তোলে দেন। এরপর দ্বিতীয় দফায় আরও দেড় লাখ টাকা দেন সাবিনা।
শুধু তাই নয়, জাতীয় পরিচয়পত্রে ভুলবশত বয়সের গড়মিল থাকায় তা সংশোধনের জন্য সভাপতির হাতে আরও দশ হাজার টাকা খরচ হিসেবে তোলে দেন সাবিনা। পরে ১৫ জুন নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ চূড়ান্ত হলে সব প্রার্থীকে নিয়োগ পরীক্ষার পত্র পাঠানো হয়। ইতিমধ্যে একই পদে ৭জন প্রার্থী হলে ভিতরে ভিতরে দরদামের একপর্যায়ে জনৈক প্রার্থী ৮ লাখ টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে শর্ত অনুযায়ী বয়স বেশি হয়েছে মর্মে সাবিনার চাকুরী হবে না জানিয়ে তাকে ব্যতীত অপর ৬ প্রার্থীর নামে পুনরায় ২৯ জুন নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করে পত্র পাঠান বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এমতাবস্থায় বেশি অংকের ঘুষ লেনদেনের বিষয়টি লোকমুখে প্রচার হয়ে গেলে সাবিনা গত ২৪ জুন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত চেয়ে এ সংক্রান্ত লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।
এ বিষয়ে সাবিনার টাকা লেনদেনের সাক্ষী ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য শওকত হোসেন জানান, আমার উপস্থিতিতে সাবিনা প্রথম দফার সাড়ে চার লাখ টাকা প্রধান শিক্ষকের হাতে সভাপতির জন্য তোলে দেন।
ম্যানেজিং কমিটির অপর সদস্য অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক শাহ মোহাম্মদ কুতুব উদ্দিন জানান, আমি লোকমুখে সাবিনার ৬ লাখ টাকা লেনদেনের কথা শোনেছি, তবে দেখিনি।
ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য হাবিবুর রহমান জানান, লোকমুখে টাকা লেনদেনের কথা শোনেছি, কিন্তু আমরা দেখিনি। এসময় তিনি বলেন, পরিচ্ছন্ন নিয়োগ পরীক্ষার মাধ্যমে যে প্রার্থী সবদিক মিলিয়ে বেশি নাম্বার পাবে আমরা তাকেই চূড়ান্ত করব।
সরেজমিনে গিয়ে এ বিষয়ে জানতে সাক্ষাত করতে চাইলে অপারগতা প্রকাশ করে মোবাইল ফোনে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফ টাকা লেনদেনের বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, ২৫ জুনের নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে, ২৯ জুনের নিয়োগ পরীক্ষাও স্থগিত করা হবে।
বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি একেএম বেলায়েত হোসেন খসরুও সাক্ষাতের অপারগতা প্রকাশ করে টাকা লেনদেনের অভিযোগ অস্বীকার করে মোবাইল ফোনে জানান, তিনি অসুস্থ, তাই এখন কথা বলতে পারবেন না।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!