1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৭:৫০ অপরাহ্ন

ঝিনাইগাতী আদর্শ মহিলা ডিগ্রি কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ: তদন্তের নির্দেশ

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ৫ জুলাই, ২০২০
  • ১৬০ বার পড়া হয়েছে

সিনিয়র প্রতিবেদক : শেরপুরের ঝিনাইগাতী আদর্শ মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মুহাম্মদ খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে নিয়োগ বাণিজ্য, অর্থ কেলেংকারী, সীমাহীন জাল-জালিয়াতি ও অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তার ওইসব দুর্নীতির কারণে দীর্ঘদিন স্ব-স্ব পদে এককভাবে নিয়মিত কর্মরত থেকেও এমপিও থেকে বাদ পড়ছেন ২ নিয়মিত শিক্ষক।
অন্যদিকে ওই দুর্নীতির কারণে কলেজে একদিন ক্লাস না নিয়েও অচেনা ও অন্যত্র সরকারী-বেসরকারী চাকরিজীবী শিক্ষকরা তুলছেন বেতন। নিবন্ধনসহ জাল সনদে চাকুরিতে প্রবেশ করা অধ্যক্ষের স্ত্রীসহ কয়েকজন শিক্ষকও অবৈধভাবে ভোগ করছেন একই সুবিধা।
অভিযোগ ওঠেছে, অধ্যক্ষ মুহাম্মদ খলিলুর রহমান গভর্নিং বডির সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিকে অন্ধকারে রেখে ওইসব দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছেন। সম্প্রতি অধ্যক্ষ সীমাহীন স্বেচ্ছাচারিতায় নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে এ্যাডহক কমিটিকেও উল্টেপাল্টে গঠন করেছেন গভর্নিং কমিটি। যাতে রয়েছেন অধ্যক্ষের স্ত্রী, ভগ্নিপতি, ভাগনে ও বেয়াইসহ নিকট আত্মীয়রাই।
২০১২ সালে কলেজটি ডিগ্রি শাখা খোলার অনুমতি লাভ করে। ওই সময় সৃষ্টপদে জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হলে আবেদন করে সকল পরীায় অংশ নিয়ে প্রথম স্থান অজর্ন করে নিয়োগ পেয়ে ডিগ্রি শাখায় ইংরেজী প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন উপজেলার খৈলকুড়া এলাকার পি.আর মুহাম্মদ রাহুল। ওই নিয়োগের পর থেকে তিনি ডিগ্রি শাখায় ইংরেজী বিভাগে একমাত্র প্রভাষক হিসেবে এমপিওবিহীন বিনা বেতনেও নিয়মিত ক্লাস গ্রহণ এবং প্রশাসনিক কাজকর্মে সহায়তা করছেন। তিনি একাধিকবার কলেজ ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষক প্রতিনিধিও ছিলেন। তার অবদানে কলেজের ডিগ্রি পরীক্ষায় ইংরেজী বিষয়ে প্রতিবছর প্রায় শতভাগ পাশও নিশ্চিত হয়। যে কারণে শিক্ষার্থী-অভিভাবক ও এলাকাবাসীর কাছে তিনি একজন জনপ্রিয় ও আদর্শ শিক হিসেবেও ব্যাপক পরিচিত।
অভিযোগ রয়েছে, সম্প্রতি কলেজটি ডিগ্রি পর্যায়ে এমপিওভুক্ত হলে প্রভাষক পি.আর মুহাম্মদ রাহুলকে সম্প্রতি অধ্যক্ষ খলিলুর রহমান ডেকে নিয়ে তার কাছে এমপিওর জন্য ১৫ লাখ টাকা দাবি করেন। কিন্তু বৈধভাবে নিয়োগ পেয়ে বিনা বেতনে দীর্ঘ ৮ বছর নিয়মিত শিক্ষকতা করে আসায় তিনি মোটা অংকের টাকা দিতে অস্বীকার করেন। এতে অধ্যক্ষ খলিলুর রহমান তাকে জানান যে, ‘ওই পদের জন্য ২০ লাখ টাকা দেওয়ার জন্য অনেক লোক রয়েছে’।
এছাড়া একই কলেজে একইভাবে ২০১৫ সালে ডিগ্রি শাখায় সৃষ্ট প্রভাষক (দর্শন) পদে যোগদান করেন শেরপুর শহরের দমদমা মহল্লার যমুনা খাতুন। যোগদানের পর থেকে তিনিও দীর্ঘ ৫ বছর যাবত বিনা বেতনে নিয়মিত ক্লাস নেওয়াসহ অন্যান্য দায়িত্ব পালন করে আসছেন। কিন্তু ডিগ্রি পর্যায়ে এমপিও ঘোষণার পরপরই কলেজ অধ্যক্ষ তাকেও ডেকে নিয়ে এমপিও জন্য ১০ লাখ টাকা দাবি করেন। তিনি পারিবারিক অবস্থার কারণে ওই টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাকে বাদ দিয়ে ওই পদে ফুলপুর উপজেলার কাতুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে দীর্ঘদিন যাবত কর্মরত আফরোজা আক্তার নামে এক প্রার্থীকে অন্তর্ভূক্ত করা হবে বলে জানিয়ে দেন। এরপর দাবি আদায় না হওয়ায় কলেজ অধ্যক্ষ মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিয়ে প্রভাষক মুহাম্মদ রাহুলের স্থলে কলেজে একদিনও ক্লাস না নেওয়া দীর্ঘ প্রায় প্রায় ১৭/১৮ বছর যাবত ময়মনসিংহ নগরীতে বসবাস করে টিউশনি-কোচিং পরিচালনা ও প্রায় ৩ বছর যাবত স্থানীয় মেট্রোপলিটন মডেল স্কুলে কর্মরত আবু হানিফকে এবং প্রভাষক যমুনা খাতুনের স্থলে আফরোজা আক্তারকে ‘ব্যাকডেটে’ ভূয়া কাগজপত্রে নিয়মিত শিকক্ষ হিসেবে দেখিয়ে ময়মনসিংহ অঞ্চলের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের পরিচালক বরাবর এমপিও’র আবেদন পাঠিয়েছেন।
অভিযোগ রয়েছে, আবু হানিফ ও আফরোজা আক্তার একদিনও ওই কলেজে ক্লাশ নেননি। তারা দু’জনই কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকসহ সকলের কাছে অচেনা। তদুপরি তাদের দু’জনেরই শিক্ষক নিবন্ধন জাল বলে অভিযোগ রয়েছে।
অভিযোগমতে, অধ্যক্ষের স্ত্রী মাহমুদা সিদ্দিকার স্নাতক ও শিকক্ষ নিবন্ধন সনদসহ আরও একাধিক শিকক্ষকে চাকরিতে ঢুকানো হয়েছে জাল সনদে। আর স্থানীয় ডাকাবর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরি করেও আসমাউল আলিয়া ডপ্রভাষক (বাংলা), সিলেটের একটি হাইস্কুলে প্রায় ৫ বছর যাবত চাকরিরত আব্দুর রহিম প্রভাষক (রাষ্ট্রবিজ্ঞান) ও ঝিনাইগাতী উপজেলা বিআরডিবিতে প্রায় ৫ বছর যাবত চাকরিরত মুজিবুর রহমান প্রভাষক (অর্থনীতি) হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন। উল্লেখিত শিক্ষকসহ অচেনা শিকক্ষ আবু হানিফ ও আসমাউল আলিয়া কলেজে একদিন ক্লাস না নিলেও ইতোমধ্যে তুলে নিয়েছেন এমপিওভূক্তির প্রথম দফার বেতন-ভাতাদি বাবদ প্রায় ৩ লাখ করে টাকা।
ডিগ্রি নিয়োগকালীন কলেজের সাবেক সভাপতি একেএম বেলায়েত জানিয়েছেন, আমি নিয়োগ দিয়েছি কিন্তু এমপিওভূক্তিতে নাম এসেছে এমন কোনো কোনো শিক্ষককে আমি চিনি না বলে জানান।
অভিযোগ অস্বীকার করে কলেজে অধ্যক্ষ খলিলুর রহমান বলেন, সকল নিয়ম-কানুন অনুসরণ করেই ডিগ্রি পর্যায়ের এমপিও তালিকা পাঠানা হয়েছে। তার স্ত্রী ও নিজেরসহ কয়কজন শিক্ষকের জাল সনদের অভিযোগের বিষয়টি সুকৌশলে পাশ কাটিয়ে যান।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ জানান, জেলা প্রশাসক আমাকে প্রধান করে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে ও দ্রুত ব্যবস্থা নিতে এক সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন।
জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব জানিয়েছেন, তদন্তে যা বেরিয়ে আসবে তার উপর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কলেজের পরিচালনা পরিষদ সভাপতি ও উপজলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এসএম আব্দুল্লাহেল ওয়ারেজ নাইম বলেন, নানা অভিযাগ সম্পর্কে অধ্যক্ষের কাছ থেকে কাগজপত্র চেয়েও আমি পাইনি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com