1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৯:১৩ অপরাহ্ন

শেরপুরে দুই সেতু নির্মাণে অনিয়ম : দুই প্রকৌশলীর বদলি

  • আপডেট টাইম :: শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০
  • ৫২ বার পড়া হয়েছে

শেরপুর : শেরপুর-বনগাঁও-জামালপুর মহাসড়কের সদর উপজেলার নন্দীর বাজারে দু’টি কজওয়ের উপর পৃথক সেতু নির্মাণকাজে অনিয়মের অভিযোগে শেরপুর সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উদ্দিন আহমেদকে ফেনী জেলায় ও সহকারী প্রকৌশলী আজহারুল ইসলাম আজাদকে মেহেরপুর জেলায় বদলির আদেশ দেওয়া হয়েছে।
একইসঙ্গে মন্ত্রণালয় থেকে একজন উপ-সচিব ও একজন সহকারী সচিবসহ দুই সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। গঠিত তদন্ত কমিটির সদস্য সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণায়ের উপ-সচিব আজিজুর রহমান এবং সহকারী সচিব মাহবুব-এ-এলাহীর নেতৃত্বে গত বুধ ও বৃহস্পতিবার (৮-৯ জুলাই) অনিয়মের তদন্ত করেন।
সেতু দুটি নির্মাণের শুরুতেই বালুমিশ্রিত পাথর, আয়রন বালু এবং আগে ব্যবহৃত নির্মাণসামগ্রীসহ নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজের অভিযোগ উঠে বাস্তবায়নকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মোজাহার এন্টারপ্রাইজ (প্রাঃ) লিমিটেড এর বিরুদ্ধে। গত ৬ জুলাই ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে এলাকাবাসী ও স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে নিম্নমানের কাজের অভিযোগ শোনে সরকারদলীয় হুইপ আতিউর রহমান আতিক সরেজমিন নির্মাণসামগ্রী পরিদর্শন করে সত্যতা পেয়ে ব্রিজের কাজ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেন ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
মোজাহার এন্টারপ্রাইজ প্রাইভেট লিমিটেড-এর ঠিকাদার প্রতিনিধি শামিম মিয়া জানান, এলসি পাথর না থাকায় তারা সিলেটের পাথর ব্যবহার করছেন। তবে পুরাতন রাস্তা ভেঙ্গে পুরনো পাথরের খোয়া ব্যবহারের কথা অস্বীকার করেন তিনি।
শেরপুর সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উদ্দিন আহমেদ জানান, তার সাথে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কোন যোগসাজশ হয়নি।
এদিকে তদন্ত দলেল প্রধান উপ-সচিব মোঃ আজিজুর রহমান জানান, সেতুর পাইলিং ঢালাইয়ের ব্যবহৃত নির্মাণসামগ্রী ল্যাবে টেস্টের জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অভিযোগের সত্যতা পেলে শুধু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নয়, এ কাজের সাথে যারা জড়িত সকলের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উল্লেখ্য, জামালপুর-শেরপুর-বনগাঁও (আর-৪৬০) সড়কের শিমুলতলী ও পোড়াদাহ এলাকায় আঠারো মাসের প্রকল্প মেয়াদে ১২৫.৪৯৭ মিটার দীর্ঘ শিমুলতলী সেতুর ১৮ কোটি ৭৫৮ লাখ টাকা এবং ১২৫.৪৯৯ মিটার দীর্ঘ পোড়াদাহ সেতুর ২০ কোটি ৯২৩ লাখ টাকা প্রকল্প মূল্য ধরা হয়েছে। বর্ষা মৌসুমে ব্রহ্মপুত্র নদের বন্যার পানি প্রবাহিত হলে বছরের তিন মাস শেরপুর-জামালপুর মহাসড়ক বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকে। দুটি কজওয়ের নির্মাণকাজ শেষ হলে রৌমারী, রাজিবপুর, বকশীগঞ্জ ও শেরপুর জেলা শহর থেকে জামালপুর হয়ে বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু দিয়ে উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com