1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন

প্রভাষকের মোটরসাইকেল গোপনে নিয়ে ফেঁসে গেল খোকন

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার : নালিতাবাড়ী শহীদ আব্দুর রশিদ মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আব্দুর রহিমের একটি টিভিএস ফনিক্স ১২৫ সিসি মোটরসাইকেল গোপনে নিয়ে ভেগেও রেহাই পেল না হাসানুজ্জামান খোকন। ধরা খেলো জনতার হাতে। অবশেষে ভুল স্বীকার করে মোটরসাইকেল ফেরত দিয়ে শেষ রক্ষা হলো তার।
শনিবার (১১ জুলাই) বেলা দুইটার দিকে শহরের টিএন্ডটি রোডস্থ বিসমিল্লাহ ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের সামনে এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়রা জানান, প্রভাষক আব্দুর রহিম তার ব্যবহৃত টিভিএস ফনিক্স ১২৫ সিসি নম্বরবিহীন মোটরসাইকেল টিএন্ডটি রোডস্থ বিসমিল্লাহ ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের সামনে রেখে ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে প্রবেশ করেন। একটু পর নিচপাড়া গ্রামের হাসানুজ্জামান খোকন এসে ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে উঁকি মেরে আশপাশে তাকিয়ে প্রভাষক রহিমের মোটরসাইকেলটি ডুপ্লিকেট চাবি দিয়ে স্টার্ট করে নিয়ে চলে যায়। তবে কৌশলগত কারণে এসময় তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি রেখে যায়। কিছুক্ষণ পর প্রভাষক রহিম বেরিয়ে তার মোটরসাইকেলটি দেখতে না পেলে আশপাশের ব্যবসায়ীদের কাছে জানতে চান। এসময় ব্যবসায়ীরা খোকনের রেখে যাওয়া মোটরসাইকেলটি দেখিয়ে বলেন যে, এই মোটরসাইকেলটি রেখে কালো গেঞ্জি পরা একটি ছোট ছেলে আপনার মোটরসাইকেল নিয়ে চলে গেছে। এ কথা শোনে প্রভাষক রহিম খোকনের রেখে যাওয়া মোটরসাইকেল ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের ভিতরে হেফাজতে নেন। এর কিছুক্ষণ পর খোকন পুনরায় এসে তার মোটরসাইকেল খোঁজতে গেলে প্রভাষক রহিম খোকনকে মোটরসাইকেল চোর বলে আশপাশের লোকজন জরো করেন। মুহূর্তেই স্থানীয় লোকজন ও পথচারী জনতা খোকনকে অবরুদ্ধ করে। পরে বাধ্য হয়ে খোকন গোপনে নিয়ে যাওয়া মোটরসাইকেল ফেরত দেয়। ততক্ষণে খবর পেয়ে পুলিশ ও গণমাধ্যমকর্মীরাও হাজির হন। এসময় খোকন নিজেকে রক্ষা করতে কৌশল করে ‘জনৈক ব্যক্তির কাছে টাকা পায় এবং পাওনা টাকার জন্য ওই ব্যক্তির গাড়ি ভেবে ভুলে নিয়ে গেছে’ বলে জানায়। পরে বিভিন্ন জনের সুপারিশে ও প্রভাষক রহিম বাদী হতে অস্বীকৃতি জানানোয় খোকনকে ছেড়ে দেওয়া হয়।
তবে এতে স্থানীয়রা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, যদি টাকার করণেই হয়ে থাকে তাহলে খোকন কি করে নিশ্চিত না হয়ে অন্যের গাড়ি নিয়ে গেল এবং তা কাউকে না জানিয়ে কেন নিয়ে গেল? এছাড়াও চাবী ছাড়াই কিভাবে সে মোটরসাইকেল স্টার্ট করল? এটি নিঃসন্দেহে চুরি। চিহ্নিত না হলে খোকন কোনদিনও প্রভাষক রহিমের মোটরসাইকেল ফেরত দিত না। এসময় তারা বিষয়টি অত্যন্ত গভীরভাবে খতিয়ে দেখতে পুলিশের প্রতি অনুরোধ জানান।
বিসমিল্লাহ ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের সাথে থাকা প্রতিবেশি যুবক জানায়, কিছুদিন আগে তার গ্রিল কেটে একটি পালসার মোটরসাইকেল কে বা কারা নিয়ে যায়। পরবর্তীতে তা আর পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!