1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন

১০ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল, একটি ফ্রিজ আর দুইটি বাল্ব চালিয়ে

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২০

টাঙ্গাইল : মানুষের দৈনন্দিন জীবনে বিদ্যুৎের গুরুত্ব অপরিসীম। বিদ্যুৎ ব্যবহারে মানুষের জীবন যাত্রার মান সহজ হয়েছে। মানুষ অনেক কাজে এই বিদ্যুৎের ব্যবহার করে থাকে। সম্প্রতি সময়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মাননীয় শেখ হাসিনা নিরবিচ্ছন্ন বিদ্যুৎ সমগ্র দেশজুড়ে পৌঁছে দেওয়ার জন্য নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। এরই লক্ষ্য কাজ করছে সরকারে দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যক্তিরা। বর্তমান সময়ে শহর-গ্রামে সমান তালে বিদ্যুতের ব্যবহার হচ্ছে।

একটি ফ্রিজ আর দুইটি বাল্ব চালিয়ে বিদ্যুৎ বিল এসেছে দশ লাখ টাকা। টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার পাথরাইলের সাহাপাড়া এলাকায় দুলাল মিয়ার মিটারে এমন অদ্ভুত বিল তৈরি করেছে টাঙ্গাইল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দেলদুয়ার জোনাল অফিস। একটি আবাসিক মিটারে এতো টাকা বিল দেখে দুশ্চিন্তায় রয়েছে বাড়িওয়ালা দুলাল মিয়া। ডিসেম্বরের বিলের কাগজে উল্লেখ করা হয়েছে, বর্তমান রিডিং ৯৪৫৭০ ও পূর্বের রিডিং ৯৪৪০ ইউনিট। এতে ব্যবহার দেখানো হয়েছে ৮৫১৩০ ইউনিট। ব্যবহৃত ৮৫১৩০ ইউনিট দেখিয়ে ডিসেম্বরে বিল তৈরি করা হয়েছে ৯লাখ ৫৩ হাজার ৯শ ৪৫টাকা। জরিমানাসহ ৯ লাখ ৯৯হাজার ৩শ ৭০টাকা। প্রায় দশ লাখ টাকা।

মিটারের মালিক দুলাল মিয়া জানান, দীর্ঘদিন ধরে তিনি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সদস্য। তার বাড়িতে পল্লী বিদ্যুতের মিটার রয়েছে। মিটারের নম্বর ০৯২৩৩৩৪। এসএমএস হিসাব নং ১০০২০৩৩৫০২০৩০। এই মিটার থেকে একটি ফ্রিজ আর দুইটি বাল্ব ও একটি টেলিভিশন চালানো হয়। নিয়মিত ৫/৬শ টাকা বিদ্যুৎ বিল আসে। হঠাৎ দশ লাখ টাকা বিদ্যুৎ বিল দেখে দুঃশ্চিন্তায় রয়েছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, তার মিটারে নভেম্বর মাসে বিল এসেছে ৪শ ৯৫ টাকা। নভেম্বর পর্যন্ত তার সকল বিল পরিশোধ রয়েছে। বিল পরিশোধের বাৎসরিক সার্টিফিকেটও (ক্লিয়ারেন্স) রয়েছে। দশ লাখ টাকা বিল দেখায় পল্লী বিদ্যুৎ কর্মচারী বিলের কাগজটি নিয়ে যায়। তবে বিলের কাগজ হাতে পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া তার ছেলে নাহিদ খন্দকার বিলের ছবি তুলে রাখেন। বিলের কাগজ পল্লী বিদ্যুৎ অফিস নিয়ে নিলেও পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে ঝামেলা এড়াতে আইনের আশ্রয় নেওয়ার বথা ভাবছেন দুলাল মিয়া।
নাহিদ খন্দকার জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের লোক এসে বিলটি হাতে দেয়। দশ লাখ টাকা বিল দেখে আশ্চার্য হয়ে বিলের বিষয়টি পল্লী বিদ্যুতের লোকটিকে জানান এবং বিলের কপির একটি ছবি তুলে রাখেন। পরে বিলের কপিটি বিদ্যুৎ অফিসের লোক নিয়ে নেয়। বিদ্যুৎ অফিসের ভুলে গ্রাহক হয়রানি নিরসন চান নাহিদ।
টাঙ্গাইল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দেলদুয়ার জোনাল অফিসের ডিজিএম বিল্পব কুমার সরকার জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। একটি আবসিক মিটারের এমন বিল হওয়ার কথা না। ভুল পোস্টিংয়ের কারন এমন বিল হতে পারে। বাড়িওয়ালার দুঃশ্চিন্তার কারন নেই। আমি অবশ্যই বিলটি সংশোধন করে দেব।
দেশজুড়ে বিদ্যুৎের নানা অনিয়ম এর অভিযোগ রয়েছে। বর্তমান প্রযুক্তির যুগ। বিদ্যুতের ক্ষেত্রে ও প্রযুক্তির ব্যবহার বৃদ্ধী পেয়েছে। এরই লক্ষ্যে প্রিপেইড মিটার ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে করে বিদ্যুৎ খাতে দুর্নীতির প্রভাব বৃদ্ধি পেয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!