1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৪২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

শর্ত সাপেক্ষে শুক্রবার থেকে খুলছে বান্দরবানের সব পর্যটন কেন্দ্র

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ২০ আগস্ট, ২০২০

এন এ জাকির, বান্দরবান : দীর্ঘ ৫ মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে কাল শুক্রবার (২১ আগস্ট) থেকে শর্ত সাপেক্ষে পর্যটকদের জন্য বান্দরবানে খুলে দেয়া হচ্ছে হোটেল-মোটেল রিসোর্টসহ সব পর্যটন কেন্দ্র। বুধবার জেলা প্রশাসনের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হওয়ার পর বৃহস্পতিবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলাপ্রশাসক শামীম হোসেন এ তথ্য জানান।
করোনা সংক্রমনের কারনে গত ১৮ মার্চ থেকে পর্যটক ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে বন্ধ করে দেয়া হয় বান্দরবানের সব আবাসিক হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউসসহ সব পর্যটন কেন্দ্র। দীর্ঘদিন পর পর্যটন কেন্দ্রসহ হোটেল-মোটেল খুলে দেয়ায় খুশি জেলার পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।
এর আগে গত ১৭ আগস্ট খুলে দেয়ার কথা থাকলেও করোনা সংক্রমনের কারনে আবারো তারিখ পরিবর্তন করা হয়। পরে বুধবার জেলা প্রশাসনের বৈঠকে ২১ আগস্ট থেকে জেলার সব পর্যটন কেন্দ্র হোটেল-মোটেল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

জেলা প্রশাসন জানায়, শুক্রবার (২১ আগস্ট) থেকে জেলার সব পর্যটন কেন্দ্র হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউসগুলো পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটকরা পর্যটন কেন্দ্রগুলো ভ্রমণ করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে কিছু শর্ত আরোপ করা হয়েছে। শর্ত মেনে আপাতত সীমিত পরিসরে সব হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউস খোলা রাখা যাবে এবং পর্যটন কেন্দ্রগুলোতেও পর্যটকরা ভ্রমণ করতে পারবে।
করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে মার্চ মাস থেকে বন্ধ করে দেয়া হয় জেলার সব আবাসিক হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউস, পরিবহন ও পর্যটন কেন্দ্র। এতে কর্মহীন হয়ে পড়ে পর্যটন সংশ্লিষ্ট কয়েক হাজার মানুষ। ব্যবসায়ীসহ পর্যটন খাতে লোকসান হয়েছে প্রায় শত কোটি টাকা। পর্যটন নগরী হিসেবে খ্যাত পার্বত্য জেলা বান্দরবানে ছোট বড় শতাধিক আবাসিক হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউস রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছে প্রায় ২ হাজার শ্রমিক। জেলায় পর্যটকদের জন্য রয়েছে ৩ শতাধিক চাঁদের গাড়ি। এসব পরিবহনের সাথে সংশ্লিষ্ট রয়েছে ৫ শতাধিক শ্রমিক। লকডাউনের কারনে দীর্ঘ ৫ মাস তারা বেকার জীবন যাপন করেছে। অনেকে জীবিকার তাগিদে অন্য পেশায় চলে গেছে।

পরিবহন শ্রমিক নেতা বাহাদুর বলেন, করোনায় লকডাউনের কারনে পর্যটন কেন্দ্র হোটেল-মোটেল বন্ধ থাকায় পরিবহন শ্রমিকরা সম্পূর্ণ বেকার হয়ে পড়েছে। অনেকে অন্য পেশায় চলে গেছে। পর্যটন নগরী হওয়ায় বন্ধের সময় বান্দরবানে প্রচুর পর্যটক বেড়াতে আসে। কিন্তু পর্যটন স্পট বন্ধ থাকায় পর্যটকরা আসতে পারছে না। আর পর্যটক না আসলে আমাদেও গাড়ি বন্ধ থাকে। তাই পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেয়ায় আমরা খুশি। এখন পর্যটক আসবে, আমাদের পরিবহনও সচল হবে।
দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন হোটেল মালিকরাও। পরিচর্যার অভাবে নষ্ট হয়ে গেছে হোটেল ও রিসোর্টের অনেক জিনিষ। ফানুস রিসোর্টের পরিচালক ইমরান উদ্দীন বলেন, দীর্ঘ ৫ মাস বন্ধ থাকায় কর্মচারীও বিদায় করে দিয়েছি। এতে সঠিক পরিচর্যার অভাবে হোটেলের অনেক আসবাবপত্র নষ্ট হয়ে গেছে। এগুলো আবার নতুন করে কিনতে হচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, প্রতিবছর বন্ধের সময় বান্দরবানে প্রচুর পর্যটক আসে। কিন্তু দুই ঈদে লকডাউন থাকার কারনে পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ থাকায় পর্যটকরা আসতে পারেনি। হোটেল-মোটেল বন্ধ থাকায় আমাদের লোকসান গুণতে হয়েছে। পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেয়ায় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই। আশাকরি আবারো পর্যটক আসবে, আমরাও ব্যবসা করতে পারব।
বান্দরবান হোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ ৫ মাস পর পর্যটন কেন্দ্রসহ হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউস খুলে দেয়া হচ্ছে। এ জন্য প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই। পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ থাকায় পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা বিপুল পরিমাণ ক্ষতির সম্মুক্ষীন হয়েছেন। পর্যটন কেন্দ্র খুললে আশা করি পর্যটকরা বেড়াতে আসবে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা তাদের দৈনন্দিন খরচগুলো অন্তত যোগাড় করতে পারবে। যে ক্ষতি হয়েছে সেটি পুষিয়ে নেয়া সম্ভব নয়।
বান্দরবান জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো: শামীম হোসেন বলেন, কিছু শর্ত সাপেক্ষে কাল শুক্রবার (২১ আগস্ট) থেকে পর্যটকদের জন্য পর্যটন কেন্দ্রসহ জেলার সব হোটেল-মোটেল ও গেস্ট হাউসগুলো খুলে দেয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটকরা পর্যটন কেন্দ্রগুলো ভ্রমণ করতে পারবে।
উল্লেখ্য, পর্যটন নগরী বান্দরবানে প্রতিবছর ঈদের সময় ও বর্ষায় পাহাড়ের সৌন্দর্য দেখতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রচুর পর্যটকের সমাগম ঘটে। পর্যটনের স্বার্থে জেলায় গড়ে উঠেছে ছোট-বড় শতাধিক হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউস এবং পর্যটক ভ্রমণের জন্য রয়েছে ৪ শতাধিক চাঁদের গাড়ি। করোনা সংক্রমনের কারনে দীর্ঘদিন হোটেল-মোটেল ও পরিবহন বন্ধ থাকায় ক্ষতি সাধিত হয়েছে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!