1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৫৪ অপরাহ্ন

‘‘দিনাজপুরের রাজা’’: দাম ১২ লাখ টাকা

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন, ২০২২
আল হেলাল চৌধুরী, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) : এবারের কোরবানি ঈদে দিনাজপুর ফুলবাড়ী উপজেলার সেরা আকর্ষণ ‘‘দিনাজপুরের রাজা’’ নামে ফ্রিজিয়ান জাতের প্রায় ১ হাজার ২ শত কেজি (৩০) মণ ওজনের ‘‘দিনাজপুরের রাজা’’র দাম রাখা হয়েছে প্রায় ১২ লাখ টাকা।
এই বিশাল ষাঁড়টি গায়ের রঙ সাদা কালো মিশ্রিত। ভালো দাম পাওয়া আশায় প্রায় সাড়ে ৪ বছর ধরে নিজের সন্তানের মতো লালন পালন করে আসছেন গোলাম মোস্তফা ও তার পরিবারের লোকজন।
উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের মধ্যমপাড়া গ্রামের আজগর আলীর ছেলে, উপজেলার সিদ্দিসি উচ্চ বিদ্যালয়ের গণীত শিক্ষক গোলাম মোস্তফা বানিজ্যিকভাবে গরু মোটাতাজা করেন। তার নিজ খামারের ফ্রিজিয়ান জাতের গাভি হতে জন্ম নেওয়া এই গরু রাজকিয়ভাবে লালন-পালন করেছেন বলে নাম রেখেছেন ‘‘দিনাজপুরের রাজা”।
‘‘দিনাজপুরের রাজা’’ নামে গরুর মালিক গোলাম মোস্তফা জানান, দিনাজপুরের রাজাকে দেখাশোনা করেন ২ জন লোক। তার খাবারের তালিকায় আছে- প্রতিদিন প্রায় পাঁচ কেজি ভেজানো ছোলা, গমের ভুসি, মিষ্টি কুমড়া এবং সবুজ কাঁচা ঘাস। ফ্যানের বাতাস ছাড়া থাকতে পারে না ফ্রিজিয়ান জাতের এই ষাঁড়। বিদ্যুৎ না থাকলেও গরুটির জন্য বিকল্প ব্যবস্থাও করা হয়েছে। প্রতিদিন তিনবার করে গোসল করাতে হয়। গোসলের পর আবার শুকনা কাপড় দিয়ে শরীরের পানি মুছে ফেলতে হয়, যাতে ঠান্ডা না লেগে যায়। মাত্র সাড়ে ৪ বছরেই তিনি গরুটিকে এই উপযোগী করেছেন।
তিনি আরোও বলেন, গরুটির দাম ১২ লাখ ধরা হয়েছে। তবে দাম-দরে বনলে কম করে হলেও বিক্রী করবেন।
গোলাম মোস্তফা  আরও বলেন, ‘‘দিনাজপুরের রাজার’’ খাবারের জন্য প্রতিদিন প্রায় হাজার খানেক টাকা ব্যয় হয়। এই নিয়ে আমার এ পর্যন্ত  ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। দিনাজপুরের বিভিন্ন খামার ঘুরে দেখেছি, সে অনুযায়ী আমি দাবি করতে পারি যে, এই গরুই বর্তমানে দিনাজপুর অঞ্চলের সবচেয়ে বড় গরু। গত বছর করোনাভাইরাসের কারনে হাট-বাজার ঠিকমত না বসায় গরুটি বিক্রী করতে পারিনি। ‘‘দিনাজপুরের রাজা’’কে চলতি বছরের ঈদুল আজহার হাটে বিক্রি করবেন অথবা সরাসরি যোগাযোগ করেও যে কেউ গরুটি কিনতে পারবেন।
গোলাম মোস্তফার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী নুর বানু বলেন, আমার স্বামী অনেক সৌখিন মানুষ। নিজের সন্তানের মতো করে গরুটি লালন-পালন করেছেন। গরুটি আমাদের কাছে খুবই আপন হয়ে গেছে। ওকে বিক্রি করলে খুব কষ্ট লাগবে। কিন্তু বিক্রি তো করতেই হবে। সে ক্ষেত্রে যদি ভালো দাম পাই তা হলে কষ্ট কিছুটা কমবে।
গোলাম মোস্তফার ছোট ভাই মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এই গরুটিকে গোসল করাতে গিয়ে কষ্ট হয়নি। তার চরিত্র ছিল একেবারে শান্ত। তাকে বিক্রি করলেও বড় কষ্ট লাগবে। কিন্তু সারা জীবনত রাখা যাবে না বিক্রি করতেই হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!