1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০১:০২ পূর্বাহ্ন

কাউন্সিল ঘিরে চাঙ্গা নালিতাবাড়ী আ’লীগ, প্রার্থী নিয়ে সরব ভক্তরা

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ৬ আগস্ট, ২০২২

বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ : বর্তমান দলীয় অবস্থানসহ সার্বিক বিবেচনায় ছবি সাজানো হয়েছে। অনুগ্রহ করে এ সিরিয়াল নিয়ে কেউ বিতর্কে জড়াবেন না। পদবী প্রাপ্তির ক্ষেত্রে কোন গুরুত্ব বুঝিয়ে সিরিয়াল করা হয়নি। তাছাড়া যাদের নিয়ে আলোচনা বেশি তাদের নিয়েই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। কাউন্সিল পর্যন্ত পরিবর্তন হতে পারে।

মনিরুল ইসলাম মনির : ক্ষমতাসীন ও ঐহিত্যবাহী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলা শাখা কমিটির কাউন্সিল ঘিরে সরব হয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা। পছন্দের নেতাদের গুরুত্বপূর্ণ পদে দেখতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সবখানে জানান দিচ্ছেন তাদের ভক্তরা। যদিও ওই নেতৃবৃন্দ প্রকাশ্যে পদ-পদবি না চেয়ে কৌশলে প্রচার চালিয়ে কুলুপ এঁটে বসে আছেন মুখে।

দলীয় সূত্রমতে, উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল আগামী সেপ্টেম্বরে হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, বলাচলে বিষয়টি নিশ্চিত। তবে এ কাউন্সিলে কে হচ্ছেন সভাপতি আর কে হচ্ছেন সাধারণ সম্পাদক- এ নিয়ে চলছে আভ্যন্তরীণ লবিং, আলোচনা, পরিকল্পনা। যার যার বলয়ে প্রার্থীরা নিভৃতে কাজ করে চলেছেন কাঙ্খিত পদ বাগিয়ে নিতে। তবে প্রকাশ্যে ওইসব প্রার্থীদের কেউ নিজেদের প্রার্থীতার জানান দিচ্ছেন না। স্থানীয় সাংসদ যাকে ভালো মনে করবেন তিনিই হবেন আগামী দিনের কা-ারী- এমন বাস্তব বুলিই প্রকাশ্য আওরাচ্ছেন তারা।

ইতিমধ্যেই সভাপতি হিসেবে আলোচনায় এসেছেন বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোকছেদুর রহমান লেবু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সরকার গোলাম ফারুক, বর্তমান যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট দানবীর আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন, রূপনারায়নকুড়া ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম মোস্তফা কামাল এবং শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান ডিপু।

মোকছেদুর রহমান লেবু এক সময়ের স্থানীয় সাংসদের অতিবিশ্বস্ততা, ত্যাগী ও পরিক্ষিত নেতা হিসেবে খ্যাতি এবং প্রভাব দুটোই রয়েছে। দলীয় মনোনয়নের বাইরে উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নেওয়ায় তিনি দীর্ঘদিন সাংসদের দূরত্বে রয়ে গেলেও সম্প্রতি সম্পর্কের মাঝে বেশ উন্নতি লক্ষ্য করা গেছে। ফলে তাকে নিয়ে যথেষ্ট আশাবাদী তার অনুসারী ও সংশ্লিষ্টরা।

অন্যদিকে সরকার গোলাম ফারুকও দলীয় মনোনয়নের বাইরে গিয়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া এবং ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে নেতৃত্ব দেওয়ায় স্থানীয় সাংসদের স্রোতের বাইরে ছিলেন দীর্ঘদিন। তবে বেশ কিছুদিন যাবত সাংসদের অনুকূলে তথা মূল ধারার সঙ্গে উৎপ্রোতভাবে রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা রাখায় তাকে ঘিরেও নেতাকর্মীদের আগ্রহের কমতি নেই।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাজি মোশারফ হোসেন বরাবরই স্থানীয় সাংসদের অনুকূলে রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে দলীয় কোন্দলেই অনেকটা নেতাকর্মী শুণ্য জায়গায় দাড়িয়েও বলাচলে একক প্রচেষ্টায় নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে অবস্থার জানান দেন তিনি। পাশাপাশি উপজেলাজুড়ে দানশীলতা, উদার মানসিকতা এসব দিকে তিনি বেশ প্রশংসনীয়। তাই শেষ পর্যন্ত প্রার্থী হয়ে গেলে সভাপতির দৌড়ে তিনিও পিছিয়ে থাকবেন না বলে মনে করেন নেতাকর্মীরা।

এছাড়াও সভাপতি পদে আলাচনায় রয়েছেন বর্তমান শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান ডিপু। প্রয়াত আ’লীগ নেতা আব্দুল হালিম উকিল পরিবারভুক্ত হওয়ায় তাকেও নিয়ে অনেকেই আশার আলো দেখছেন।

এদিকে সব প্রার্থীকে ছাপিয়ে পারিবারিক ও রাজনৈতিক ঐতিহ্য এবং শিক্ষাসহ অন্যান্য ক্যাটাগরি বিবেচনায় শেষ পর্যন্ত এএইচএম মোস্তফা কামাল সভাপতি হতে পারেন বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। বিশেষ করে, স্থানীয় সাংসদের আন্তরিকতা এবং নেতাকর্মীদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা থাকলেও বিগত সময়ের দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষার কারণে যদি সিনিয়র দুই নেতা কোন কারণে ছিটকে পড়েন সেক্ষেত্রে মোস্তফা কামাল হতে পারেন তাদের বিকল্প- এমনটিই ধারণা দল সংশ্লিষ্টদের।

সাধারণ সম্পাদক পদে যাদের নাম রাজনৈতিক মহলে বেশ আলোচিত তারা হলেন- বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ওয়াজ কুরুণী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ বকুল, অর্থ সম্পাদক গোপাল চন্দ্র সরকার, পৌর মেয়র ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক এবং আ’লীগ সদস্য আব্দুল ওয়াহাব।

উপজেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে ৬ বছর, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ১৪ বছর এবং সবশেষ গত ৭ বছর ধরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ফজলুল হক। দীর্ঘ সময় ধরে ধাপে ধাপে তার রাজনৈতিক বিচক্ষণতা ও দক্ষতা বিবেচনায় আবারও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হবেন ফজলুল হক- এ আলোচনাও বর্তমান দায়িত্বশীলদের মাঝে রয়েছে।

দীর্ঘদিন যাবত সাংসদের বিশ্বস্ত ও প্রতিনিধি হিসেবে খ্যাত পুজা উদযাপন পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা গোপাল চন্দ্র সরকারের নাম এতোদিন প্রার্থীদের তালিকায় শোনা না গেলেও সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সবখানে বেশ আলোচিত। সাংসদের পরীক্ষিত নেতা হিসেবে গোপাল চন্দ্র সরকার সাধারণ সম্পাদক হতে পারেন বলে অনেকেই প্রত্যাশা করছেন।

ফারুক আহমেদ বকুল সাম্প্রতিক সময়ে বেশ আলোচিত একটি নাম। সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা ও দুইবারের ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ বকুল শিক্ষা-তারুণ্য-চেতনায় নেতাকর্মী এবং তরুণ রাজনৈতিক কর্মীদের মাঝে আশার আলো জাগিয়েছেন। স্থানীয় সাংসদের আনুকুল্য এবং প্রতিনিধিত্ব তার রাজনৈতিক ভিত শক্ত হতে চলেছে। এমতাবস্থায় তারুণ্যনির্ভর রাজনীতিতে তিনি সাধারণ সম্পাদক হতে পারেন বলে বেশ আলোচিত।

ওয়াজ কুরুণী ঠান্ডা মেজাজের এবং ভারী মনের একজন মানুষ হিসেবে খ্যাতি পেয়েছেন। তাকে ঘিরে নেই কোন বিতর্ক-সমালোচনা। ছাত্র এবং যুব রাজনীতির নেতৃত্বে যার হাতে গড়ে ওঠেছে অসংখ্য নেতৃত্ব তিনি হলেন ওয়াজ কুরুণী। তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি এবং উপজেলা যুবলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন দক্ষতা এবং সুনামের সাথে। ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এমন ভারী রাজনীতিবিদ প্রয়োজন বলে মনে করেন অনেকে।

দুই বারের পৌর মেয়র আবু বক্কর সিদ্দিক বর্তমানে শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে তিনি উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পৌর মেয়র হওয়ার পর থেকেই রাজনৈতিক অঙ্গনে তিনি আলোচিত এবং প্রভাবশালী রজনীতিবিদ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছেন। ফলে ঘনিষ্ঠজনেরা তাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেখতে চেয়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আব্দুল ওয়াহাবের সাথে স্থানীয় সাংসদের রাজনৈতিক সম্পর্ক বেশ ভালো হওয়ায় তাকে ঘিরেও স্বপ্ন দেখছেন কেউ কেউ।

সর্বোপরি কথা হলো, এবারের কাউন্সিলে শিক্ষিত, মেধাবী, পরীক্ষিত এবং গ্রহণযোগ্য নেতৃত্ব উঠে আসবে এ বিষয়টি নিশ্চিত।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!