1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ীতে বসতবাড়ি উচ্ছেদ: প্রবাসীর বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর, লুটপাট

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট, ২০২২

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : আবু বক্কর সিদ্দিক সোহাগ নামে এক ব্যক্তির বসতবাড়ি ও পোল্ট্রি খামার উচ্ছেদে অভিযোগ উঠেছে ছামিদুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, প্রতিহিংসার বশে সোহাগের প্রবাসী বোন-ভগ্নিপতির বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট চালিয়ে মারধর করা হয়েছে বাড়িতে থাকা বৃদ্ধা নারীকে। একই সাথে প্রায় এক একর জায়গাজুড়ে পুকুর থেকে চাষ করা মাছও লুট করে নেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার যোগানিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম কাপাসিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় প্রাণভয়ে আশ্রয়হীন হয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে সোহাগের পরিবার।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কাপাসিয়া মৌজায় ২৬৩ নং খতিয়ানে ৪১১ দাগে ৮৭ শতাংশ পুকুর, ৪১২ দাগে ৪ শতাংশ কান্দা মিলে মোট ৯১ শতাংশ জমির প্রকৃত মালিক ছিলেন ওই ইউনিয়নের টানা প্রায় চল্লিশ বছরের চেয়ারম্যান প্রয়াত আবুল কাশেম তালুকদার। তিনি জীবিত থাকাবস্থায় কন্যা আয়শা আক্তার রিকান্নাকে বর্গা হিসেবে ভোগদখল করতে দেন ওই ৯১ শতক জমিতে থাকা পুকুরসহ পাশের কান্দা জমি। তিনি ১৯৯৩ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর মারা গেলে এর প্রায় দুই যুগ পর ওই জমি পিতার মৃত্যুর তারিখে টিপসই দেখিয়ে নিজ নামে হেবাবিল এওয়াজ বলে দাবী করে রিকান্না। এরপর ২০২০ সালের ১১ অক্টোবর তা ছামিদুল ইসলামের স্ত্রী রিজওয়ানা ইয়াসমিন এর কাছে প্রায় ২৭ লাখ টাকায় বিক্রি করে দেন। এসময় অন্য ভাই-বোনেরা এ দলিলটি জাল বলে দাবী তুলেন এবং ভাই-বোনেরা মিলে ভোগ-দখল শুরু করেন।

এদিকে জমির ক্রেতা ছামিদুল ইসলাম ৯১ শতাংশ পুকুর ও কান্দা জমির সাথে থাকা মৃত আবুল কাশেম চেয়ারম্যান এর শ্যালক মৃত নজরুল ইসলামের ২৭০ নং খতিয়ানে ৪২৮ দাগে ২৫ শতাংশ ও ৪১২ নং দাগে ৬ শতাংশ মিলে মোট ৩১ শতাংশ জমি জবরদখল করে দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে। এসময় নজরুল ইসলামের ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক সোহাগ বাধা দেন এবং অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শেরপুর এর আদালতের ১৪৪ ধারা জারির লক্ষ্যে আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে ওই স্থানে আদালত ১৪৪ ধারা জারি করেন এবং সরেজমিনে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশে সরেজমিন তদন্ত করে ২০২১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি ওই জমি আবু বক্করের দখলে বলে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কানুনগো মোহাম্মদ আফজাল হোসেন।

এদিকে গত ১২ জুলাই আকস্মিক ছামিদুল তার দলবল নিয়ে দেশিয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পুকুর এবং নজরুল ইসলামের নামে থাকা পুরো জমি দখলে নেন। একই সাথে নজরুল ইসলামের ছেলে আবু বক্করের বাড়িঘর ও পোল্ট্রি মুরগীর খামার উচ্ছেদ করে নিশ্চিহ্ন করে দেয়। অগ্নি সংযোগ ছাড়াও বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। এসময় আবু বক্কর তার পরিবারসহ পাশে থাকা তার বোন ওমান প্রবাসী পারভিন ও ভগ্নিপতি সোহেল মিয়ার বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেয়। জবর দখলকারীরা ওই বাড়িতে গিয়ে হামলা চালায় ও অগ্নি সংযোগ করে। মারধর করা হয় নারীদের। বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী পরিবার থানায় যোগাযোগ করে ব্যর্থ হয়ে পরবর্তীতে আদালতের শরণাপন্ন হয়। প্রাণভয়ে আশ্রয়হীন হয়ে আত্মীয় বাড়িতে আশ্রয় নেন আবু বক্কর সিদ্দিক সোহাগ ও পরিবার।

এদিকে ৫ আগস্ট শুক্রবার দিবাগত রাতে আবু বক্কর এর বৃদ্ধা মা সুফিয়া বেগম (৬৫) প্রবাসী কন্যার জামাতার বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। এমতাবস্থায় বাড়িতে তাকে একা পেয়ে ছামিদুল ও তার লোকজন মিলে অতর্কিতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে ও ঘরে থাকা আসবাবপত্র লুটপাট করে নিয়ে যায়। মারধর করে বৃদ্ধা সুফিয়া বেগমকে।

মৃত আবুল কাশেম চেয়ারম্যান এর উত্তাধিকারীরা জানান, আমাদের পিতা যেদিন মৃত্যুবরণ করেন সেদিন তিনি সংজ্ঞাহীন ছিলেন এবং কখনোই তিনি টিপসই ব্যবহার করতেন না। আমাদের বোন রিকান্না যে দলিল এতোদিন পর দেখিয়ে জমি দাবী করছে তা জালিয়াতি করে তৈরি করা।

এদিকে মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক সোহাগ জানান, আমার ফুফা মরহুম আবুল কাশেম চেয়ারম্যান এর সন্তানদের মাঝে বিরোধপূর্ণ জমির পরিমাণ ৯১ শতাংশ। একই জমির পাশে পৃথক দুই দাগে আমার বাবার ৩১ শতাংশ জমি। ছামেদুল জাল দলিলে ৯১ শতাংশ জমি রিকান্নার কাছ থেকে কিনেছে বলে দাবী করলেও সাথে থাকা আমাদের ৩১ শতাংশ জমিও সে দখলে নিয়ে বাড়িঘর উচ্ছেদ করেছে। আমাদের মারধর করে অগ্নিসংযোগ করেছে।

এ বিষয়ে ছামিদুল ইসলাম জানান, আমি তিন-চার বছর ওই পুকুর লীজ নিয়ে মাছের চাষ করে ভোগ করেছি, তখন বাঁধা দেয়নি। সাফকবলা নেওয়ার পর তারা তাদের বলে দাবী করছে। এর আগে যার কাছ থেকে কিনেছি তিনিও প্রায় ২৫-৩০ বছর ভোগ করেছেন, তখনও কেউ বাদী হয়নি। তিনি ক্রয়সূত্রে ওই জমির প্রকৃত মালিক দাবী করে জানান, তিনি বারবার পরিমাপ করেই জমি বুঝে নিয়েছেন, কারও জমি দখল করেননি। এছাড়াও হামলা, ভাংচুর ও মারধরের ঘটনা অস্বীকার করেন তিনি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!