1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন

চাঁদাবাজী আর অন্যায়ের সাথে আপোষ কেন করব!

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

– মনিরুল ইসলাম মনির –
শিরোনাম দেখলেই গা টা কেমন গিনগিন করে! নেগেটিভ সেন্স জেগে ওঠে! সমাজবিরোধী, বেআইনী ও শাস্তিযোগ্য একটি অপরাধ এভাবে জনসমক্ষে করার সপক্ষে যুক্তি দাড় করানো সত্যিই বিস্ময়কর! যুক্তি দিয়ে অনেক কিছুরই বৈধতা আনা যায়, কিন্তু সে বৈধতা কতটুকু যুক্তিসঙ্গত তাও বিবেচনার বিষয়।

যাই হোক, কথায় কথা না বাড়িয়ে কাজের কথায় আসি। এতক্ষণে নিশ্চয়ই আমার শুভাকাঙ্খী ও পাঠকদের মনে প্রশ্ন জেগেছে, কেন হঠাৎ করে এমন একটি জঘন্য বিষয়ের পক্ষে শিরোনাম করলাম? হ্যা, ঠিকই ধরেছেন।

আমার সাংবাদিকতার ক্যারিয়ার শুরু করেছিলাম ২০০২ সালের আগস্টে। নিতান্তই শখের বশে আইএসসি পড়াশোনার পাশাপাশি ময়মনসিংহের দৈনিক জাহান দিয়ে আমার শুরু। তৎকালীন সময়ে দৈনিক জাহান বৃহত্তর ময়মনসিংহের একটি প্রভাবশালী দৈনিক ছিল। আমার সাংবাদিকতার সূতিকাগার ওখান থেকেই। এরপর দৈনিক জনতা, দৈনিক আমার দেশ, দৈনিক বর্তমান, দৈনিক সংবাদ প্রতিক্ষণ, দৈনিক দিনপরিবর্তন, দৈনিক সকালের খবর এবং দৈনিক সময়ের আলো। উপজেলা থেকে জেলা প্রতিনিধি পর্যন্ত এসবে কাজ করেছি, করছি। এরমধ্যে সংবাদ প্রতিক্ষণ ডেমো কপি করে বাজারে আসার আগেই বন্ধ হয়ে যায়। দিনপরিবর্তন বড় শিল্প গ্রুপের হলেও তা শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি। অনেকটা আশাব্যাঞ্জক; এসবে কোন লবিং, সুপারিশ, টাকা, কোনকিছুই লাগেনি।

প্রথম হোচট খেলাম একাত্তর টেলিভিশন-এ। প্রথমদিকে ভালোই যোগাযোগ চলছিল। এনজিওতে চাকুরীর সময় নিজের জমানো কিছু টাকা আর সহধর্মীনির কিছু টাকা দিয়ে কেনা জমি বিক্রি করে হ্যান্ডিক্যাম কিনে শুরু করেছিলাম শখের টেলিভিশন সাংবাদিকতা। কিছুদিন পর শোনলাম, রাজনৈতিক পরিচয় ছাড়া আমার নিয়োগ হবে না। এ কারণে কেউ একজন রাজনৈতিক নেতার ছেলেকে প্রতিদ্বন্দ্বি বানিয়ে অফিসে যোগাযোগ করে দিয়েছেন। খবরটি শোনার পর অফিসে কিছু না বলেই স্বেচ্ছায় ফিরে এলাম। যদিও পরবর্তীতে অফিস থেকে বলা হয়েছিল, আমরাতো আপনাকে নিষেধ করিনি।

এর কিছুদিন পর আরও একটি প্রথম সারির টেলিভিশনে যোগাযোগ করলাম। আরও টুকটাক কিছু সরঞ্জাম কিনে কাজ শুরু করলাম। প্রায় দুই বছর কাজ করার পর কোন এক মাধ্যমে বারবার বলা হচ্ছিল, আমি যেন পঞ্চাশ হাজার টাকা দেই। না হলে অন্য কেউ নিয়োগ নিয়ে নেবে। আমি বরাবরই ঘুষ দিতে অস্বীকৃতি জানালাম। কারণ, এ কালচারটি নিজের মধ্যে শুরু করতে চাইনি এ জন্য যে, পরবর্তী সময়ে ঘুষের টাকা উঠাতে গিয়ে নিজে চাঁদাবাজী আর অন্যায়ে যেন জড়িয়ে না পড়ি। শেষ পর্যন্ত নীতির কাছে হেরেই গেলাম সেখানে।

দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করছি আকাশসম অভিমান নিয়ে। একসময় চ্যানেল নাইন থেকে ডাক এলো। যথারীতি ইন্টারভিউ দিয়ে ফেরার পথেই ফোন পেলাম আমি নির্বাচিত হয়েছি। বিশ্বাস করেন, পেছনের সব কষ্ট ভুলে নিজেকে সার্থক মনে হলো। ভাবলাম, এখনো মেধার-কাজের মূল্যায়ন হয়। কিন্তু ভাগ্য বেশিদিন সহায় হলো না। ২০১৯ সালের ১লা মার্চে আমার প্রিয় সহধর্মীনি ক্যান্সারে মারা গেল। মে মাসে চ্যানেল নাইন এর চাকরীটাও গেল। টেলিভিশনটির খবর সম্প্রচার বন্ধ করার একটি সিদ্ধান্তে আমরা সবাই বেকার হয়ে গেলাম। আবার চালু হবে, এমন আশার মরিচিকায় আটকে রইলাম অনেক দিন। অন্য কোথাও জোড়ালো যোগাযোগ করলাম না। কারণটা ছিল মায়া আর মূল্যায়ন। প্রতিষ্ঠানটির প্রতি মায়া আর তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত মূল্যায়ন আমাকে দীর্ঘ সময় আটকে রাখলো। শেষ পর্যন্ত আশার আর কোন প্রদীপ জ¦লতে না দেখে আরও একটি লম্বা বিরতি নিয়ে চলতি বছর নাগরিক টেলিভিশনে যোগাযোগ করলাম। জুনে তারা আমাকে আহবান করলো। বলে রাখা ভালো, মাঝখানে আরও একাধিক চ্যানেল থেকে অফার এলেও সেগুলো আমার পছন্দ হয়নি। লক্ষ্য ছিল নাগরিক টিভি।

যাই হোক, ২০ জুন নাগরিক টিভিতে ইন্টারভিউ দিলাম। ভিতরে আমার পূর্ব পরিচিত লোকজন থাকায় শিউর হলাম, আমি নির্বাচিত হয়েছি। আমার সাথে যে ভাইটি গেলেন সে ওখান থেকেই একরাশ হতাশা নিয়ে ফিরলেন। আমাকে দায়িত্বশীল সূত্র জানালেন, নিয়োগের আগ পর্যন্ত কাউকে কিছুৃ বলা যাবে না, প্রকাশ করা যাবে না। আমি চুপ হয়ে রইলাম। অফিসের এইচআর-এ কাজ করেন জামালপুরের মাহফুজুর রহমান নামে এক ভদ্রলোক। তার সাথে কিছুদিন আগেই আমার পরিচয় হয়েছিল। সবসময় যোগাযোগ হতো। বন্ধুসূলভ কথাবার্তাও হতো। ইন্টারভিউ এর কয়েকদিন পর আমাকে ফোন দিয়ে বললেন, মনির ভাই নিয়োগটা হলে তো মনে হয় ভালোই হতো? কি বলেন? আমি বললাম, জ্বি ভাই। অপেক্ষায় আছি। তিনি বললেন, এইচআর থেকে সবাই মিষ্টি খেতে চায়। অনেক দর কষাকষির পর তিনি মুখ খুললেন। বললেন, পাঁচ টাকা (পঞ্চাশ হাজার) দিতে পারবেন? আমি বললাম, চাকরি হলে খুশিতে কিছু মিষ্টি তো খাওয়াতেই হয়। এতো পারব না। তবে সম্মান করব। আপনি যেহেতু বলেছেন, সম্মান রাখব। তিনি বারবার চেষ্টা করছিলেন, সম্মানটার অংক কতো তা জানতে। আমি শুধু বলেছি, সম্মান করব ভাই। ভরসা রাখেন।

এর আগে মাহফুজ ভাইয়ের সাথে যার মাধ্যমে পরিচয় হয়েছিল তিনিও বলেছিলেন, মাহফুজ ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ রাখতে। তিনিই সব। তিনি যা বলবেন তাই হবে। তবে তাকে উপহার দিতে হবে, খুশি করতে হবে। অবশ্য আমারও এতে দ্বি-মত ছিল না। চাকরি হলে মানুষ এমনিতেও কিছু টাকা খরচ করে। সেটাকে ঘুষ বলে না। আমি না হয় তা করব। আমি আমার অভিজ্ঞতার ঝুড়ি নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলাম। কারণ সিভি হাতে নিয়ে মাহফুজ ভাই এবং পরবর্তী সময়ে ইন্টারভিউ বোর্ডে থাকা ব্যক্তিরাই বলেছিলেন, আপনার অনেক অভিজ্ঞতা। ঢাকায় কাজ করার যোগ্যতা রাখেন। মফস্বলে পড়ে থাকেন কেন? ইত্যাদি। সঙ্গত কারণেই হতাশার কোন কারণ ছিল না। শেষমেস মাহফুজ ভাই তো আছেনই। আমি তো সম্মান করতে কথা দিয়েছি। এর উপরও দেশের লীড পার্সন সাংবাদিকের সুপারিশও রয়েছে আমার ঝুড়িতে। যিনি ওই সুপারিশ করছেন, নাগরিকের বড় এক কর্তার বস তিনি। সুপারিশ করার আগে তিনিও খোঁজ নিয়ে দেখেছেন, ইন্টারভিউ বোর্ড আমাকে সিলেক্ট করে রেখেছেন। কাজেই কোনদিক দিয়েই এবার ঘাটতি নেই।

এদিকে হতাশা নিয়ে ফেরা ছেলেটি হাল ছাড়েনি। বরং হতাশা থেকেই সে বাঁচার জন্য চেষ্টা করে একটি পথ বের করে ফেলে গোপনে। একটি মাধ্যমে মাহফুজ ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ হয় তার। কেমন যোগাযোগ তা ইতিমধ্যেই আপনারা বুঝতে সক্ষম হয়েছেন আশাকরি। হঠাৎ খবর এলো, ইন্টারভিউ বোর্ডের কারও মতামত না নিয়ে এইচআর থেকে আমার প্রতিদ্বন্দ্বিকে অনুমোতিপত্র দিয়েছেন। আমি অফিস থেকে শিউর হলাম। আর কিছু বলার রইলো না। নীতির কাছে হেরে গেলাম। যদি মাহফুজ ভাইয়ের কথামতো ৫০ হাজার টাকা দিতাম তাহলে কোনভাবেই আমার যোগ্যতা অযোগ্যতায় রূপ নিতো না।

হাস্যকর বিষয় হলো, যোগ্যতা-অভিজ্ঞতা দিয়ে হারাতে না পেরে এইচআর বিভাগ আমাকে শিবির বানিয়ে অন্যকে নিয়োগ দিয়েছে। কতোটা নোংরা আর হীনমন্যতায় ভোগলে একজন যোগ্য প্রার্থীকে শিবির বানিয়ে অযোগ্য বানানো যায় তা বলার অপক্ষো রাখে না। অথচ, আমার জীবনে কোনদিন শিবিরের সংস্পর্শে যাইনি। একসময় বিএনপি’র রাজনীতির সাথে জড়িত থাকলেও পেশাগত দায়িত্বের কারণে তা অনেক আগেই ইস্তফা দিয়েছি। উপরন্তু বর্তমান সরকারের উপর মহলে ভালো যোগাযোগ রয়েছে আমার। আওয়ামী লীগের একেবারে টপ ল্যাভেলের একজন নেত্রীর ভালোবাসায় আমার প্রতিষ্ঠান আঞ্চলিক সংবাদপত্র ‘বাংলার কাগজ’ সরকারের নিবন্ধন লাভ করে ৩০১৩ সালে। যদি শিবির করতাম তাহলে বর্তমান সরকারের আমলে নিজ নামে সংবাদপত্র অনুমোদন পেতাম না, তথাপিও সরকারের হাই ল্যাভেলের সংসদীয় আসনে। পক্ষান্তরে, যাকে সুযোগ দেওয়া হয়েছে পারিবারিকভাবেই তারা আওয়ামী বিরোধী রাজনীতির সাথে জড়িত। যদিও বিরোধী রাজনীতি করা অন্যায় নয়।

যাই হোক, আমি মাহফুজ ভাইকে তার হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বারে ছোট একটি ম্যাসেজ করেছিলাম। তিনি শুধু নিজেকে নিরপরাধ বানিয়ে উত্তর দিয়েছেন, “ভাইজান শুধু শুধু আমাকে দোষ দিয়েছেন আমি দোষী না”। এরপর আর কোন যোগাযোগ হয়নি। আরও একটি ম্যাসেজ পাঠালেও সিন করেননি। করবেন কিভাবে? চক্ষু লজ্জা বলে কথা আছে তো! যদিও এসব মানুষের লজ্জা বলতে কিছু নেই। শোনেছি, ওইসবে তিনি একা নন। বার্তা বিভাগের বড় হাত রয়েছে সেখানে। ওই টাকার ভাগ-বাটোয়ারা হয় সেখানেই। মাহফুজ সাহেব মাধ্যম মাত্র। ‘বড় সাহেব’ ধরাছোয়ার বাইরে থাকেন। অবশ্য মালিকপক্ষ বিষয়টি জানেন না বলেই জানি। তবে তাদের উচিত অফিসে কি হচ্ছে, কে কি করছে, এসব বিষয়ে খোঁজ রাখা। কারণ দিনশেষে বদনাম প্রতিষ্ঠানেরও হয়।

আজ আমি আর কিছু বলতে চাই না। আপনারাই বলেন, যদি দেশের বড় বড় মিডিয়া হাউজগুলোতে মফস্বল সাংবাদিকদের উপর এমন চাঁদাবাজী চলে, তবে মফস্বলে আমরা যারা কাজ করি তারা কি করব? তদুপরি নাগরিক টিভি জেলা পর্যায়ে আপাতত কোন বেতন-ভাতাও দিচ্ছে না। শুধুমাত্র কাজ করার সুযোগ নিতেই যদি বুম আর পরিচয়পত্র হাতে ধরিয়ে মফস্বল সাংবাদিকের কাছ থেকে ঘুষ নিতে হয় তাহলে সে কি করবে? এলাকায় চাঁদাবাজী আর অন্যায়ের সাথে আপোষ ছাড়া কোন পথ আছে কি? মফস্বলে যারা কাজ করেন কেন তারা চাঁদাবাজী করবেন না?

লেখক: প্রকাশক ও সম্পাদক- বাংলার কাগজ
০১৭১৮৬৮৩৯৯১

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!