1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

কর্ণফুলীর পানিতে এসিড, এস আলম রিফাইন্ড সুগার মিলের বর্জ্য ফেলা বন্ধের নির্দেশ

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ৭ মার্চ, ২০২৪

চট্টগ্রাম: এস আলম রিফাইন্ড সুগার মিলের গোডাউনে অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া কাঁচামাল কর্ণফুলীতে মেশার পর নদীর পানিতে এসিডের অস্তিত্বের প্রমাণ পেয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর। এ কারণে নদীর পানি মৎস্য ও জলজ প্রাণীর অনুপযোগী হয়ে উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলার ইছানগরে এস আলম রিফাইন্ড সুগার মিল পরিদর্শনে এসে এ তথ্য জানিয়েছেন পরিবেশ অধিদপ্তর, চট্টগ্রামের উপ-পরিচালক ফেরদৌস আনোয়ার।

তিনি বলেন, ‘দুদিন আগে আমাদের একটি টিম সুগার মিলের গোডাউন থেকে নদীতে যাওয়া পানি কর্ণফুলী নদীর পানির নমুনা সংগ্রহ করে। এখন পর্যন্ত আমরা একটি উপাদানের পরীক্ষা শেষ করতে পেরেছি। পরীক্ষায় দেখতে পেয়েছি পানিতে এসিড রয়েছে। পানির যে স্ট্যান্ডার্ড মান তার চেয়ে নিচের দিকে রয়েছে। এ অবস্থায় জলজ প্রাণীদের বেঁচে থাকা কঠিন। তাই ওগুলো জলজ প্রাণী) পানিতে ভেসে উঠছে।’

তিনি বলের, ‘সব পরীক্ষা শেষ হতে পাঁচদিন লাগবে। রিপোর্ট হাতে পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পাশাপাশি তদন্ত কমিটিকে এ রিপোর্ট দেওয়া হবে।’

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অনতিবিলম্বে চিনিকলের গোডাউনের পোড়া বর্জ্য নদীতে ফেলা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন চট্টগ্রামে জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান।

তিনি বলেন, ‘এখনো পোড়া চিনি মিশ্রিত লাভা নদীতে যাচ্ছে। আমরা কারখানা কর্তৃপক্ষকে এই মুহূর্তে বর্জ্য মিশ্রিত পানি নদীতে ফেলা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছি। তারা তাদের কারখানার আশপাশে এ বর্জ্য মেশা পানি ফেলার ব্যবস্থা করবেন।’

কর্ণফুলীর পানিতে এসিড, চিনিকলের বর্জ্য ফেলা বন্ধের নির্দেশ

চিনির বাজার নিয়ন্ত্রণে জেলা প্রশাসন ব্যবস্থা নিয়েছে জানিয়ে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক বলেন, ‘আমরা তিনদিন আগে থেকেই বাজার তদারকি করছি। এরই মধ্যে বাজার নিয়ন্ত্রণে এসেছে।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে এস আলমের কারখানার পেছনে ইছানগর-বাংলাবাজার ঘাট এলাকায় সরেজমিনে দেখা যায়, পোড়া চিনির লাভায় কালো রঙ ধারণ করেছে কর্ণফুলীর পানি। পাশের নালা বেয়ে নদীতে মিশছে শত শত কিউসেক বর্জ্য মেশা পানি। পোড়া চিনির গন্ধে দূষিত হচ্ছে বাতাস। কর্ণফুলী নদীর পানিতেও মরা মাছ ভাসতে দেখা যায়।

এস আলম সুগার মিলের দেয়াল কেটে পোড়া লাভা মিশ্রিত পানি পাশের নালাতে ছেড়ে দিলে তা নদীতে এসে পড়তে শুরু করে। এ সময় নদীতে জোয়ার থাকায় ওই বর্জ্য জোয়ারের পানিতে ভেসে কালুরঘাট পার হয়ে হালদা নদী পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছেছে।’

এসময় অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘এই দুর্ঘটনার আগেও সুগার মিল কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন সময় চিনিকলের বর্জ্য নদীতে ফেলেছে।’

নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক আলিউর রহমান বলেন, ‘কার্বন, হাইড্রোজেন ও অক্সিজেনের একটি যৌগ চিনি। কার্বন ও অক্সিজেন দুটোই আগুন জ্বলতে সহায়ক। ৩৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রায় অপরিশোধিত চিনি গলে ভোলটাইল কেমিক্যালে (ঝুঁকিপূর্ণ রাসায়নিক) পরিণত হয়। সেই ভোলটাইল কেমিক্যাল এস আলম সুগার রিফাইনারির ভস্মীভূত বর্জ্য কর্ণফুলী নদীতে এসে সম্পূর্ণ নদী এখন বিবর্ণ-বিষাক্ত হয়ে পড়েছে। এতে নদীর মাছ ও অন্য প্রাণিসম্পদ মরে পানিতে ভাসছে।’

তিনি বলেন, ‘এ দূষণ কর্ণফুলীর ইকোসিস্টেম দারুণভাবে বিপন্ন করছে। পানির দ্রবীভূত অক্সিজেনের মাত্রা কমে গিয়ে মাছ মৃত অবস্থায় ভেসে উঠছে। এছাড়া আরও বহুমাত্রিক বিপর্যয় ঘটছে, যা আমরা দেখতে পাচ্ছি না।’

তবে এ ঘটনায় নিজেদের দায় দেখছে না এস আলম কর্তৃপক্ষ। এস আলম গ্রুপের জেনারেল ম্যানেজার আক্তার হাসান বলেন, ‘ফায়ার সার্ভিসের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। তারা যেভাবে চেয়েছে সেভাবে সব হয়েছে। এক্ষেত্রে আমাদের কোনো দায় থাকলে প্রশাসন তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবে।’

তিনি বলেন, ‘ফায়ার সার্ভিসের অনুমতি নিয়ে আজ বিকেল থেকে মূল কারখানায় উৎপাদন শুরু হবে। সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে এই দুর্ঘটনার কোনো প্রভাব যেন বাজারে না পড়ে। চিনির যে কাঁচামাল রক্ষা করা গেছে, বিএসটিআইয়ের অনুমোদন সাপেক্ষে তা ব্যবহার করা হবে।’

কর্ণফুলীর পানিতে এসিড, চিনিকলের বর্জ্য ফেলা বন্ধের নির্দেশ

এর আগে, আজ বৃহস্পতিবার ভোরে কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইন উদ্দিন বলেন, ‘সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর ১৮টি ইউনিটের প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। তবে কিছু কিছু জায়গায় এখনো হালকা আগুন দেখা যাচ্ছে। আজ বিকেলের মধ্যে আগুন পুরোপুরি নেভানো সম্ভব হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে দেরি হওয়ার কারণ হলো, যে কাঁচামালগুলো ছিল সেগুলো দাহ্য। পানি দেওয়ার পরও সেগুলো আবার জ্বলে ওঠে।’

কারখানায় এক লাখ মেট্রিক টন চিনির কাঁচামাল মজুত ছিল। এর মধ্যে ৮০ শতাংশ রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে বলেও জানান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইন উদ্দিন।

গত ৪ মার্চ বিকেল পৌনে ৪টার দিকে কর্ণফুলী থানার এস আলম রিফাইন্ড সুগার ইন্ডাস্ট্রিজ নামের ওই চিনিকলে আগুন লাগে। এরপর খবর পেয়ে বিকেল ৩টা ৫৩ মিনিটে স্থানীয় পাঁচটি ফায়ার স্টেশনের ৯টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। পরে আগুন নিয়ন্ত্রণে যোগ দেয় সেনা, নৌ, বিমান বাহিনী ও কোস্ট গার্ড।

এস আলম সুগার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের মিলে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা ও থাইল্যান্ড থেকে চিনির কাঁচামাল এনে দুটি প্ল্যান্টে পরিশোধন করা হয়। এর মধ্যে প্ল্যান্ট-১ এর দৈনিক উৎপাদন ক্ষমতা ৯০০ টন, প্ল্যান্ট-২ এর দৈনিক উৎপাদন ক্ষমতা এক হাজার ৬০০ টন। থাইল্যান্ড ও ফ্রান্সের প্রযুক্তি এবং কারিগরি সহায়তায় এ কারখানা পরিচালিত হয়।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!