1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

শেরপুরের ৩ নদীর বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে ঢলের পানি, জনদুর্ভোগ

  • আপডেট টাইম :: মঙ্গলবার, ২ জুলাই, ২০২৪

শেরপুর : টানা বর্ষণ ও পাহাড় থেকে নেমে আসা ঢলের তোরে ভেঙে গেছে শেরপুরের দুই উপজেলার তিনটি পাহাড়ি নদীর বাঁধ। এসব ভাঙা অংশ দিয়ে প্রবল বেগে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করায় বেড়েছে ভাঙ্গন এলাকার মানুষের দুর্ভোগ। এছাড়াও কোথাও কোথাও নদীর বাঁধ উপচে ঢলের পানি প্রবেশ করছে আশপাশের এলাকায়।

মঙ্গলবার দিনভর সরেজমিনে দেখা গেছে, জেলার ঝিনাইগাতি উপজেলার পাহাড়ি নদী মহারশিতে প্রবল বেগে পাহাড়ি ঢল নেমেছে। দুপুর পর্যন্ত ঝিনাইগাতি সদর উপজেলা বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় আকস্মিক বন্যা দেখা দেয়। তবে বিকেলের দিকে এসব এলাকা থেকে পানি সড়ে গেছে। এছাড়াও এ উপজেলার রামেরকুড়া, খৈলকুড়া, ঝিনাইগাতী, চতল ও বনগাঁওসহ কয়েকটি স্থানে বাঁধ ভেঙ্গে ১৫-২০ গ্রামে প্রবেশ করেছে পাহাড়ি ঢলের পানি। ফলে দুর্ভোগ বেড়েছে এসব এলাকার মানুষের।

অন্যদিকে জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলার পাহাড়ি নদী ভোগাই ও চেল্লাখালীতে প্রবল বেগে পাহাড়ি নেমেছে। চেল্লাখালী নদীর বাতকুচি পয়েন্টে বিপদ সীমার ২৫২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে ঢলের পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এ নদীর বাঘবেড় ইউনিয়নের সন্নাসীভিটা নয়াপাড়া এলাকায় পশ্চিম তীরে ১০০ মিটার বাঁধ ভেঙে গেছে। বাঁধ ভেঙে এ গ্রামের বেশকিছু বসতবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। প্লাবিত হয়েছে বেশকিছু মাছের পুকুর। পানির তোড়ে বাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বেশকিছু এলাকায়। সকালে গোল্লারপাড় এলাকা দিয়ে চেল্লাখালীর ঢলে আকস্মিক প্লাবিত হয় শেরপুর-নালিতাবাড়ী সড়ক। দুপুরের পর এ স্থানের পানি নেমে গেছে।

এছাড়াও অপর নদী ভোগাই এর নাকুগাঁও পয়েন্টে বিপদ সীমার ৭ সেন্টিমিটার এবং নালিতাবাড়ী পয়েন্টে বিপদ সীমার ৫২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে ঢলের পানি প্রবাহিত হচ্ছে। শহরের গড়কান্দা এলাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে পানি প্রবেশ করছে লোকালয়ে। খালভাঙ্গা এলাকায় অন্তত তিনশ মিটার বাঁধ উপচে আশপাশের এলাকায় ঢলের পানি প্রবেশ করছে। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আমনের বীজতলা, মাছের পুকুর। পানির তোড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বেশকিছু রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি ও গাছপালা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড শেরপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী নাকিবুজ্জামান খান জানান, তিনটি নদীর বাঁধ ভেঙেছে প্রায় ৩০০ মিটার। এছাড়াও নদীর তীর উপচে ঢলের পানি প্রবেশ করেছে প্রায় ৭-৮শ মিটার এলাকা দিয়ে। যেসব এলাকায় বাঁধ ভেঙেছে সেসব এলাকায় ইতিমধ্যেই বালুর বস্তা ফেলে ভাঙ্গন নিয়ন্ত্রণের কাজ চলছে। এছাড়াও অভার ফ্লু বা বাঁধ উপচে যেসব এলাকা দিয়ে পানি প্রবেশ করছিল সেসব এলাকা দিয়ে দ্রুত এ পানি নি¤œাঞ্চলে সড়ে যাওয়ায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খুব একটা হবে না।

এদিকে রাত থেকে পাহাড়ি ঢল নামায় দুই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল কবীর ও মাসুদ রানা এবং নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্যরা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!