1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৬ অগাস্ট ২০২০, ০৫:১৪ অপরাহ্ন

ঝিনাইগাতীর নলকুড়া ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভিজিডি’র চাল আত্মসাতের অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ৮ জুলাই, ২০২০
  • ৭৮ বার পড়া হয়েছে

সিনিয়র প্রতিবেদক : শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার ৩নং নলকুড়া ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী ফর্সার বিরুদ্ধে ভিজিডি’র চাল আত্মসাতের অভিযোগ ওঠেছে। ইতিমধ্যেই এ অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে।
জানা গেছে, তালিকায় নাম থাকলেও গত ১৮ মাস যাবত ভিজিডি কার্ডের চাল পাননি অন্তত ১২৪ জন কার্ডধারী। এসব কার্ডধারীর কার্ড দিয়ে নিয়মিত প্রতিমাসে ৩০ কেজি করে চাল উত্তোলন করা হয় ঠিকই। কিন্তু তা কে বা কারা তোলে নিয়ে যাচ্ছে তা বলতে পারছিলেন না দুস্থ নারীরা।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নলকুড়া ইউনিয়নে ৩৫৩ জন দুস্থ নারীর তালিকা প্রস্তুুত করা হয়। এসব তালিকা যাচাই বাছাইয়ের দায়িত্বে ছিলেন উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফ্লোরা ইয়াসমিন। তিনি নিজ হাতে নলকুড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সমন্বয়ে উপস্থিত ২২৯ জনের হাতে বুঝিয়ে দেন ভিজিডি কার্ড। অবশিষ্ট ১২৪ জন উপকারভোগী উপস্থিত না থাকায় তাদের কার্ডগুলো ফেরত আনতে চাইলে চেয়ারম্যান জোরপূর্বক রেখে দেন। গত ১৮ মাস ধরে ওই ১২৪ জন উপকারভোগীর মধ্যে অনেকেই জানেন না তাদের নামে ভিজিডি কার্ড হয়েছে, প্রতিমাসে সরকার তাদের চাল দিচ্ছেন। কিন্তু নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ইউপি সদস্যের মাধ্যমে এসব কার্ডের কথা প্রকাশ পায়। তারপর একে একে অনেকেই খোঁজ নিতে থাকেন। একপর্যায়ে ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদের কাছে ৮ জন নারী লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগে প্রেক্ষিতে নির্বাহী কর্মকর্তা চেয়ারম্যানকে ১২৪ জনকে সরাসরি নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে হাজির করতে নির্দেশ দেন। পরে মঙ্গলবার (৭ জুলাই) বেলা ১১টায় উপকারভোগীদের লাইন করে তদন্ত শুরু করেন। এসময় ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য ও মহিলা সদস্য এবং সংশ্লিষ্ট অনেকেইসহ এলাকার সাধারণ মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
জিজ্ঞাসাবাদকালে উপকারভোগীরা বলেন, তালিকায় তাদের নাম থাকলেও এখন পর্যন্ত তারা ভিজিডি কার্ডের চাল পাননি। একাধিক ইউপি সদস্য জানান, ৩৫৩টি কার্ডের মধ্যে তারা মাত্র ৯টি করে ভিজিডি কার্ড বরাদ্দের তালিকা পেয়েছেন। বাকী কার্ডগুলো নলকুড়া ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী ফর্সা স্বেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে বিতরণ করে চাল আত্মসাৎ করে আসছিলেন। তবে এসময় ১২৪ জনের মধ্যে ৭৩ জন উপস্থিত থাকলেও বাকী ৫১ জন উপস্থিত ছিলেন না।
এসময় ভূক্তভোগীরা জানান, ৫ ও ৬ জুলাই রাতে চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী ফর্সা, ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার চাঁন মিয়া, সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার রহিমা বেগম ও চেয়ারম্যানের কতিপয় লোক মাধ্যমে রাতের বেলায় তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কার্ড পৌছে দেওয়ার চেষ্টা, লোভ-লালসা ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হয়।
প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় জিজ্ঞাসাবাদ শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ সহকারী কমিশনার ভূমিকে আহ্বায়ক করে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাসহ ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন। ওই কমিটিকে ৭ কর্ম দিবসের মধ্যে জড়িতদের বিরুদ্ধে রিপোর্ট দাখিল করতে বলা হয়।
এদিকে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে চেয়ারম্যান আয়ুইব আলী ফর্সা বলেন, সামনে নির্বাচন তাই এসব আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com