1. nirjoncomputer@gmail.com : Alamgir Jony : Alamgir Jony
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
  3. mehedihasanshakib06@gmail.com : mehedi sakib : mehedi sakib
শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন

শ্রীবরদীতে অবৈধ ইটভাটা বন্ধের দাবীতে এলাকাবাসীর অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২১

ফরিদ আহম্মেদ রুবেল, শ্রীবরদী (শেরপুর) : শেরপুরের শ্রীবরদী সদর ইউনিয়নের নয়ানী শ্রীবরদী গ্রামে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ও প্রশাসনের অনুমতি ছাড়াই গড়ে উঠেছে মেসার্স জালাল উদ্দিন ব্রিকস নামে ইটভাটা। বিদ্যালয়, বাজার, লোকালয় ও তিন ফসলি জমিতে দীর্ঘদিন যাবত ওই ভাটাটি পরিচালনা করে আসছেন পৌর শহরের সাতানী শ্রীবরদী মহল্লার জালাল উদ্দিন। অবৈধ এ ইটভাটা বন্ধের দাবীতে প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।
জানা গেছে, জালাল উদ্দিন সরকারি নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাদরাসা, মসজিদ, জনবসতি এলাকায় ও তিন ফসলি কৃষি জমিতে অবৈধভাবে ‘মেসার্স জালাল ব্রিকস’ নামে একটি ইটভাটা স্থাপন করেন। মেসার্স জালাল ব্রিকস এর আশপাশে নয়ানী শ্রীবরদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ নয়ানী শ্রীবরদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদরাসা, কিয়ামতলি বাজার, জামে মসজিদসহ বিভিন্ন স্থাপনা রয়েছে। আবদ্ধ ঘরে কয়লা ভাঙ্গার কথা থাকলেও খোলামেলা পরিবেশে ভাঙ্গা হচ্ছে।
এছাড়াও ইটভাটার কালো ধোঁয়া ও ধূলোবালির কারণে ফসল ও পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে এবং জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়েছে। মেসার্স জালাল ব্রিকস এর স্বত্ত্বাধিকারী জালাল উদ্দিন পরিবেশ অধিদপ্তর, ময়মনসিংহ বিভাগীয় কার্যালয় ময়মনসিংহে পরিবেশগত ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেন। পরিবেশ অধিদপ্তর, শেরপুর জেলা কার্যালয় মেসার্স জালাল ব্রিকসটি সরেজমিনে তদন্ত করে ইট প্রস্তুত ও ভাটাস্থাপন আইন অনুযায়ী ইটভাটাটির এক কিলোমিটারের মধ্যে আবাসিক এলাকা, উর্বর কৃষি জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিদ্যমান থাকায় ইটভাটাটির পরিবেশগত ছাড়পত্রের আবেদনটি নামঞ্জুর করা হয়। এমনকি অবিলম্বে ভাটাটির সকল কার্যক্রম সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করে স্থাপনা অন্যত্র স্থানান্তরের জন্য বিগত ২০২০ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারী মেসার্স জালাল ব্রিকসের স্বত্ত্বাধিকারী জালাল উদ্দিনকে নির্দেশ দেন।
কিন্তু পরিবেশ অধিদপ্তরের ওই সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গালী দেখিয়ে ইটভাটার কার্যক্রম বন্ধ না করে অদ্যবধি পর্যন্ত ইট প্রস্তুত ও ইট পুড়িয়ে যাচ্ছেন জালাল উদ্দিন। এমতাবস্থায় দ্রুত অবৈধ ইটভাটা বন্ধের দাবী তুলেছেন এলাকাবাসী।
এদিকে এলাকাবাসী ইটভাটাটি বন্ধের জন্য প্রতিবাদ করলে জালাল উদ্দিন তার লোকজন দিয়ে এলাকাবাসীকে মামলা দিয়ে হয়রানিসহ বিভিন্নভাবে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি ইটভাটার পাহাড়াদার সোহেল ওরফে বাবুর লাশ উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় ইটভাটা মালিকের ছেলে হারুনুর রশিদ সাদা ও হাফিজুর রহমান এবং ইটভাটা ম্যানেজার ই¯্রাফিলকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
এ বিষয়ে মেসার্স জালাল উদ্দিন ব্রিকস এর মালিক জালাল উদ্দিন বলেন, আমি ইটভাটা বন্ধের কোন নোটিশ পাইনি।
পরিবেশ অধিদপ্তর শেরপুর জেলার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রাসেল নোমান বলেন, জালাল উদ্দিন ব্রিকসসহ একাধিক ইটভাটার মালিক ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেন। ইট প্রস্তুত ও ভাটাস্থাপন আইন অনুযায়ী তাদের আবেদন গ্রহণযোগ্য না হওয়ায় আবেদন নামঞ্জুর করে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তবে কেউ যদি আইন লঙ্ঘন করে ইটভাটা পরিচালনা করেন তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিলুফা আক্তার বলেন, অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ পেয়েছি। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!