1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন

পোড়াগাঁও দাখিল মাদরাসার সভাপতি-সুপারের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতসহ নানা অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার : ১৯৭৫ সালে পিছিয়ে পড়া পাহাড়ি জনগোষ্ঠির শিক্ষা প্রসারে স্থানীয়দের উদ্যোগে গড়ে তোলা নালিতাবাড়ী উপজেলার পোড়াগাঁও দাখিল মাদরাসার সভাপতি উমর আলী ও বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সুপার মনজুর মাওলার বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাত এবং নিয়োগ বাণিজ্যসহ নানা অনিয়মের লিখিত অভিযোগ উঠেছে।
অভিযোগ অনুসন্ধানকালে জানা গেছে, পোড়াগাঁও দাখিল মাদরাসায় গত ২০১৯ সালে ১ জুন সহকারী সুপার পদে নিয়োগপ্রাপ্ত হন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সুপার মনজুর মাওলা। এরপর গেল বছরের এপ্রিলে সুপারের অবসরজনিত কারণে সহকারী সুপার মনজুর মাওলা ভারপ্রাপ্ত সুপারের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর নিরাপত্তাকর্মী পদে আবু সাঈদ, নৈশ প্রহরী পদে মনির হোসেন ও আয়া পদে সাজেদা বেগম এ তিন জনকে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি উমর আলীর সাথে যোগসাজশ করে মোটা অংকের ঘুষ নিয়ে নিয়োগ প্রদান করেন। উল্লেখ থাকে যে, আয়া পদে নিয়োগপ্রাপ্ত সাজেদা বেগম সভাপতির পুত্রবধুর কাছ থেকেও প্রায় দেড় লক্ষাধিক টাকা নেওয়া হয়। অন্য দুই প্রার্থীর কাছ থেকেও নেওয়া হয় ৮ লক্ষাধিক টাকা। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানের নামে থাকা প্রায় চার একর জমি বছর মেয়াদী বিক্রিত মূল্যেরও সঠিক হিসাব রাখা হয়নি। মাদরাসার উন্নয়নের জন্য গ্রহণকৃত ও আয়কৃত এসব অর্থ প্রতিষ্ঠানটির উন্নয়নের পরিবর্তে ব্যক্তিগত উন্নয়ন করা হয়েছে। প্রায় চার বছর আগে সভাপতির ছেলে মনজুর রহমানকে চতূর্থ শ্রেণির কর্মচারী হিসেবেও নিয়োগ দেওয়া হয় একই মাদরাসায়।
সরেজমিনে গেলে মাদরাসাটির অবস্থা খুবই জরাজীর্ণ পাওয়া যায়। বেশিরভাগ দরজা-জানালা ভাঙ্গা, বেঞ্চ নেই বললেই চলে, যেগুলো রয়েছে তার অর্ধেকই ব্যবহার অযোগ্য, বারান্দা ও মেঝেতে উঁইপোকার বাসা, মাটির খানা-খন্দে মনে হয় যেন পরিত্যক্ত ঘর। ইটের দেয়ালের বিভিন্ন অংশে বড় বড় ফাটল থাকায় ধ্বসে পড়ার ঝুঁকি তো রয়েছেই। প্রতিষ্ঠানটিতে নেই আশানুরূপ শিক্ষার্থী। কাগজে-কলমে শিক্ষার্থী দেখিয়ে বছরের পর বছর ধরে সরকারের বেতন নিচ্ছেন কর্মরত শিক্ষক-কর্মচারীরা।
অভিযোগ রয়েছে, প্রতিষ্ঠান খোলাকালীন সময়ে বেলা এগারোটার পর আসেন এবং বেলা একটা গড়াতেই তালা দিয়ে চলে যান শিক্ষক-কর্মচারীরা। যেন অনিয়ম আর আত্মসাতের স্বর্গরাজ্য এ প্রতিষ্ঠানটি। আগের সুপারের সময় থেকে চলে আসা এ অনিয়ম-আত্মসাত বর্তমান সময়ে এসেও কমেনি। উপরন্তু দীর্ঘদিন একই ব্যক্তি সভাপতির দায়িত্বে থাকায় স্বেচ্ছাচারিতার ছাপ সবক্ষেত্রে স্পষ্ট।
এদিকে বর্তমান ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ পর্যায়ে চলে আসায় ভারপ্রাপ্ত সুপার মনজুর মাওলার সহায়তায় গোপনে সভাপতি উমর আলী মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে সুপার পদে নিয়োগের চেষ্টা শুরু করেন। এমতাবস্থায় উভয়ের গোপন এ চেষ্টা প্রকাশ হয়ে পড়ায় এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ রাখতে নির্দেশ প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম।
চতূর্থ শ্রেণির কর্মচারী পদে চাকুরী প্রার্থী শামীম জানান, আমি ৪ লাখ টাকা দিতে চেয়েছিলাম। কমিটির লোকজন ৬ লাখ চেয়েছিল। সবশেষ ৫ লাখ টাকা দিতে চাইলেও শেষ পর্যন্ত আমার চাকুরীটা হয়নি তাদের দাবীকৃত পরিমাণে টাকা দিতে স্বীকার না করায়।
মাদরাসার জমিদাতা প্রতিনিধি বেলাল হাসান ও সাবেক ইউপি সদস্য মুনছর আলী জানান, মাদরাসা কমিটির সভাপতি উমর আলী প্রভাব খাটিয়ে বহিরাগতদের কমিটিতে রেখে নিজ ছেলে ও ছেলের বউকে চাকরি দেয়াসহ আর্থিক অনিয়ম-দুর্নীতি করলেও দেখার কেউ নেই।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মাদরাসা কমিটির সভাপতি উমর আলী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি এসবের সাথে জড়িত নই, এসব মাদরাসার সুপার সাহেব জানেন।
ভারপ্রাপ্ত সুপার মনজুর মাওলা সব অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আমি দায়িত্ব নিয়েছি কিছুদিন হলো। হাতে যে টাকা আছে তা দিয়ে মাদরাসার উন্নয়নমূলক কাজ করব।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর কবীর জানান, অভিযোগের তদন্ত চলছে। তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!