1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ী স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ভুয়া পদবী ব্যবহার, অর্থ আত্মসাতসহ নানা অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ, ২০২১

মনিরুল ইসলাম মনির : ৫০ শয্যা বিশিষ্ট শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালামের বিরুদ্ধে ভুয়া পদবী ব্যবহার, ভুয়া ভাউচার, নামমাত্র কাজ করে অতিরিক্ত ভাউচার, সরকারী গাড়ি ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার, বিনা ছুটিতে স্টেশন ত্যাগ, আর্থিক সুবিধায় চিকিৎসকদের অনুপস্থিতির সুবিধা প্রদান, হাসপাতালের জন্য বরাদ্দকৃত ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রী ব্যক্তিগত কাজে লাগানো, অধীনস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে দূর্ব্যবহার ও প্রভাব দেখানোসহ অসংখ্য অভিযোগের পাহাড় উঠেছে। গেল ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি এসব অভিযোগ সম্বলিত একটি লিখিত পত্র স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর পাঠিয়েছেন খোদ তারই অধীনস্থ ৩৭জন কর্মচারী।


অভিযোগের প্রেক্ষিতে অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর প্রধান কর্মকর্তা ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালামের অপরাধের ভয়াবহ চিত্র। এডহক ভিত্তিক নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েও ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালাম নিজেকে বিসিএস দাবী করে তার কার্যালয়ের সামনে লাগানো নেমপ্লেটে বিসিএস (স্বাস্থ্য) সংযুক্ত করেছেন। গেল বছরের ১লা জানুয়ারি নালিতাবাড়ীতে যোগদান করে মাত্র এক বছরেই গড়ে তোলেছেন নিজের রাজত্ব। অনেক উপরে হাত রয়েছে বলে বেড়ানো এই কর্মকর্তা এখনও চালু না হওয়া অপারেশন থিয়েটারের এয়ার কন্ডিশনার খুলে নিয়ম বহির্ভূতভাবে একটি তার কোয়ার্টারে এবং অপরটি তার কার্যালয়ে স্থাপন করেছেন। সরকারী ফ্রিজ কোয়ার্টারে নিয়ে ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন তিনি। যোগদানের কিছুদিন পর সরকারীভাবে গাড়ি প্রাপ্ত হলে তিনি যেন আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেন। সপ্তাহের অন্তত ২-৩ দিন বিনা ছুটিতে এবং কাউকে না জানিয়ে সরকারী গাড়ি ব্যবহার করে ঢাকাস্থ নিজ বাসায় যাতায়াত, বিভিন্ন স্থানে ঘুরাঘুরি, শপিং ইত্যাদিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন এই কর্মকর্তা। তার এসব অনিয়মের প্রতিবাদ যেন করা না হয় এ জন্য কিছু চিকিৎসককে হাতে রাখতে তাদেরও দিয়ে রেখেছেন বিনা ছুটিতে স্টেশনে না থাকাসহ নানা সুবিধা। ডাঃ কাজী এম জে আজহার নামে একজন চিকিৎসক দুই মাসেরও অধিক সময় ধরে অনুপস্থিত থাকা সত্বেও কোনপ্রকার কারণ দর্শানোর নোটিশ না দিয়ে উল্টো কেউ জানতে চাইলে ছুটিতে আছেন বলে জানিয়ে দেন ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালাম।


অনুসন্ধানকালে দেখা যায়, নিয়ম বহির্ভূতভাবে প্রধান এই কর্মকর্তার জন্য বরাদ্দকৃত গাড়িতে প্রতিমাসেই জ্বালানী হিসেবে মোটা অঙ্কের গ্যাস ও একই সঙ্গে পেট্রোল-অকটেন বিল করা হচ্ছে। শুধুমাত্র গেল বছরের আগস্ট থেকে চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত তার ব্যবহৃত সরকারী গাড়ির জ্বালানী পেট্রোল বাবদ ১ লাখ ৫৬ হাজার ১০১ টাকা এবং একইসঙ্গে গ্যাস বিল বাবদ ১ লাখ ৯৯ হাজার ১১০ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও নন্নী এবং রূপনারায়নকুড়া উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা বাবদ গেল বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট ব্যয় দেখানো হয়েছে ৬ লাখ ২৯ হাজার টাকা। বাস্তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কিছু কাজ করা হলেও অন্য দুুইটিতে কোন কাজই করা হয়নি। পরিত্যক্ত সরকারী মোটরসাইকেল মেরামত ও জ্বালানী বাবদ ব্যয় দেখিয়ে আত্মসাত করা হয়েছে ৪২ হাজার ৭৮০ টাকা। বাগানের সামান্য সংস্কার করে কোন গাছ রোপন না করেও ভেষজ বাগান তৈরি বাবদ ব্যয় দেখিয়ে বিল উত্তোলন করা হয়েছে এক লাখ টাকা। হোমিও ওষুধ ক্রয়ে ৪০-৫০ টাকা মূল্যের ওষুধের ক্ষেত্রে ৫-৭শ টাকা পর্যন্ত ক্রয় মূল্য দেখানো হয়েছে। ইপিআই বা টিকাদান কেন্দ্র এবং কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শন না করেও শুধুমাত্র গেল বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৫৬ হাজার ৬৪০ টাকা ভুয়া বিল উত্তোলন করা হয়েছে। পুরনো কিছু আসবাব মেরামত করে আসবাবপত্র ক্রয় ও মেরামত দেখিয়ে উত্তোলন করা হয়েছে ৯৬ হাজার ৮শ টাকা। নতুন কোন কম্পিউটার ক্রয় না করলেও সামান্য টাকার কিছু মালামাল কিনে মামলামাল ও যন্ত্রাংশ ক্রয় দেখিয়ে ১ লাখ ৭২ হাজার টাকার বিল উত্তোলন করেছেন এই কর্মকর্তা। রয়েছে ওষুধপত্র ক্রয়ে অতিরিক্ত মূল্য নির্ধারণ করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ। সরকারী এ্যাম্বুলেন্স এর ক্ষেত্রেও প্রতিমাসে একইসঙ্গে অন্তত ৫০ হাজার টাকা গ্যাস বিল ও ৪০ হাজার টাকার পেট্রোল বিল করা হয়। সদ্য সমাপ্ত হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন করতে মাঠ বরাদ্দকৃত প্রায় ১০ লাখ টাকা প্রদান না করে নামমাত্র টাকা প্রদানের চেষ্টার অভিযোগ রয়েছে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। এছাড়াও গেল বছর রোহিঙ্গাদের জন্য একদিনের বেতন কর্তন বাবদ উত্তোলিত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রায় ৬৪ হাজার টাকা আদৌ পাঠানো হয়েছে কি না বিষয়টি এখনও অস্পষ্ট। করোনায় সেবাদানকারী চিকিৎসকদের জন্য ৩ লাখ টাকা নামমাত্র বিতরণ করে সেখানেও ভাগ বসিয়েছেন এই কর্মকর্তা। কোনপ্রকার লিখিত কারণ দর্শানো ছাড়াই চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের বেতন-ভাতা ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দফায় দফায় বৈঠক করলেও হাতে পাননি কর্মরত স্বাস্থ্য সহকারীরা। স্বাস্থ্য সহকারী আহমেদ শরীফ উল যায়িদ গেল বছর ঢাকায় ডেঙ্গু প্রতিরোধ ক্যাম্পেইনে অংশ নিলে বিধি অনুযায়ী প্রাপ্য ভাতার ১৭ হাজার টাকা প্রদানের জন্য গাড়ি চালকের মাধ্যমে অগ্রীম ৫ হাজার টাকা ঘুষ নেন ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালাম। এভাবেই নানা খাতে ভুয়া ভাউচার, নামমাত্র কাজ করে অতিরিক্ত বিল উত্তোলনসহ নানা ফন্দি করে গত এক বছরে অন্তত বিশ লাখ টাকা তছরুফ করেছেন ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালাম।


কথায় কথায় অধীনস্থদের সাথে দূর্ব্যবহার করে উপরে হাত রয়েছে মর্মে হাসপাতালজুড়ে তার প্রভাবে সকলেই তটস্থ। তার সাথে বনিবনা না হলে বদলির মতো ঘটনাও ঘটেছে এখানে। হাসপাতালের অবকাঠামোগত কাজ বাস্তবায়নের ক্ষেত্রেও ঠিকাদারের দুর্নীতিতে রয়েছে তার পরোক্ষ সহযোগিতা।


এসব অভিযোগের বিষয়ে তার সাথে সরাসরি যোগাযোগের জন্য গত দুই সপ্তাহ ধরে অফিসিয়াল সময়ে অন্তত ৫ দিন গেলেও কখনও ঢাকায় প্রশিক্ষণ, কখনও ঢাকায় ছুটিতে, কখনও বাসায় রেস্টে আবার কখনও বা কেবলমাত্র বেরুলেন এসব জানানো হয়েছে। তার ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করে উল্টো কেটে দিয়েছেন। ফলে তার কোনপ্রকার মতামত জানা সম্ভব হয়নি।
এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডাঃ আনোয়ারুর রউফ জানান, এসব বিষয়ে এখনো কোন লিখিত অভিযোগ আমি হাতে পাইনি। অনিয়ম হয়ে থাকলে তার এক ধাপ উর্ধতন কেউ বিভাগীয় তদন্ত করবেন। তবে আমাদের আভ্যন্তরীণ একটি তদন্ত হয়েছে। এখনো প্রতিবেদন সম্পন্ন হয়নি। প্রতিবেদনের কাজ সম্পন্ন হলে বুঝা যাবে তিনি কতটুকু অভিযুক্ত।
তিনি আরও জানান, সরকারী গাড়ি ঢাকায় নেওয়ার বিধান নেই। বিনা ছুটিতেও কেউ স্টেশনের বাইরে যেতে পারেন না। তাছাড়াও ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালাম এডহক নিয়োগ হওয়ায় তিনি বিসিএস উল্লেখ করতে পারেন না।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!