1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন

নালিতাবাড়ী স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগসমূহের তদন্ত কতদূর?

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ১৬ মে, ২০২১

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : শেরপুরের ৫০ শয্যা বিশিষ্ট নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর প্রধান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালামের বিরুদ্ধে উত্থাপিত বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে গঠিত কমিটির তদন্তকাজে ধীরগতি হওয়ায় নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে জনমনে। তবে করোনার প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় তদন্ত কাজ বিলম্বিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা।
জানা গেছে, গেল ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি ভুয়া ভাউচারে অর্থ আত্মসাত, সরকারী গাড়ি ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার, ছুটি ব্যতীত সপ্তাহের অর্ধেক সময় ঢাকায় নিজ বাসায় অবস্থান, ক্ষমতার অপব্যবহার ও ভুয়া পদবী ব্যবহারসহ অসংখ্য অভিযোগ সম্বলিত একটি লিখিত অভিযোগপত্র স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর পাঠান খোদ তারই অধীনস্থ ৩৭জন কর্মচারী।
অন্যদিকে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিভিন্ন দুর্নীতি তদন্ত করে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় স্থানীয় ও জাতীয়সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে। তাকে ঘিরে সব মহলে উঠে সমালোচনার ঝড়। বেড়িয়ে আসতে শুরু করে থলের বিড়াল। একপর্যয়ে বাধ্য হয়ে নিজ অফিসের সামনে লাগানো বিসিএস লেখা নেমপ্লেট খোলে ফেলেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ রেহমা সারওয়াত সালাম। সরকারী গাড়ি ব্যবহারেও সতর্কতা অবলম্বন করেন তিনি। অভিযোগসমূহ আড়াল করতে তার সপক্ষে উন্নয়নের খবর করিয়ে দ্বিতীয় বারের মতো তার বিরুদ্ধে ওঠা সমালোচনাকে আরও বেগবান করেন।
এদিকে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার অধীনস্থ কর্মচারীদের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ১৬ মার্চ পরিচালক (স্বাস্থ্য) ময়মনসিংহ বিভাগ এ কার্যলয় থেকে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের কথা বলা হয়। পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ মোঃ শাহ আলম স্বাক্ষরিত ওই তদন্ত কমিটিতে ডাঃ ইশরাত জাহান সহকারী পরিচালক (স্বাস্থ্য) কে সভাপতি ও ডাঃ পরীক্ষিত কুমার পাড় ডেপুটি সিভিল সার্জন ময়মনসিংহ এবং সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানকে সদস্য করা হয়। কিন্তু দীর্ঘ দুই মাসেও শেষ হয়নি বেঁধে দেওয়া এক সপ্তাহ। অগ্রগতি হয়নি তদন্ত কাজের। ফলে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দুর্নীতির তদন্ত নিয়ে জনমনে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন।
এ বিষয়ে তদন্ত কমিটির সভাপতি ডাঃ ইশরাত জাহান সহকারী পরিচালক (স্বাস্থ্য) জানান, করোনার কারণে তদন্ত কাজ করা হয়নি। এখানে প্রভাবিত হওয়ার কোন কারণ নেই। অফিসে গিয়ে স্যারের (পরিচালক) সাথে কথা বলে তদন্ত কাজ শুরু করা হবে।
স্বাস্থ্য বিভাগের ময়মনসিংহ বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ মোঃ শাহ আলম জানান, করোনার কারণে তদন্তকাজ বিলম্বিত হয়েছে। এখন করোনার প্রভাব কিছুটা কমেছে। ৪-৫ দিনের মধ্যে তদন্ত কাজ শুরু করা হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!