1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০৩:৫০ পূর্বাহ্ন

মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই হাসমত আলীর

  • আপডেট টাইম :: সোমবার, ৩১ মে, ২০২১

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : ‘হাতের কাছে যা পাই, তাই করি। কখনও মাছ ধরে বিক্রি করি কখনও বা শ্রমিকের কাজ করি। যখন যা পাই তাই দিয়ে সংসার চালাই। কাজ না থাকলে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কষ্ট করি। নিজের ভিটে-মাটি কিছুই নেই বলে এখানে সেখানে অন্যের বাড়ি ওয়ালা থেকেছি। মানুষের কটু কথা শোনতে শোনতে বাধ্য হয়ে কম দামে বাসা ভাড়া নিয়ে খুব কষ্টে আছি। কিন্তু ভিটেমাটি তো দূরের কথা, সামান্য রোজগারে একটি ঝুপড়ি ওঠানোর টাকাও সংসার চালিয়ে হাতে থাকে না। কি করে মাথা গোঁজার ঠাঁই করব?’ কথাগুলো একজন সহায়-সম্বলহীন মৎসজীবির। পৈত্রিকভাবেই যিনি ভূমিহীন।
হাসমত আলী (৩৭) নামে এ অসহায় শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার রাজনগর ইউনিয়নের রাজনগর বন্দর এলাকায় বসবাস করছেন। সামান্য রোজগারে স্ত্রী-সন্তান আর এতিম পোষ্য নাতি নিয়ে অন্যের বাড়ি আশ্রয়ে থাকা হাসমত আলী জানান, আমার একটু ভিটেমাটিও নেই। চেয়ারম্যান-মেম্বারের কাছে অনেক গেছি। তারা কথাও দিয়েছেন। কিন্তু মাথা গোঁজার ঠাঁই আজও মিলেনি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কতো মানুষকে জমি-ঘর সবই দিচ্ছেন। তাঁর কাছে আমি প্রার্থনা করি, তিনি যেন আমাকে একটি থাকার জায়গা করে দেন।
স্ত্রী নাজমা বেগম (৩০) জানান, স্বামীর নুন আনতে পান্তা ফুরায়। ভিটেমাটি করবে কিভাবে? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি আমাদের দিকে মুখ তোলে তাকাতেন, আমরা খুব উপকৃত হতাম।
তৃতীয় শ্রেণি পড়ুয়া কন্যা হাসি জানায়, সংসার চালিয়ে আমার পড়ালেখাই ঠিকমতো চালাতে পারেন না বাবা। বাড়ি করবেন কেমনে? তাই সরকার যদি একটি বাড়ি আমাদের উপহার দিতো আমাদের খুব ভালো হতো।
স্থানীয় বাসিন্দা আশরাফুল ও মিজানসহ অনেকেই জানান, হাসমতের বাবাও ছিলেন একজন ভূমিহীন। হাসমত কোনমতে মাছ ধরে, দিনমজুরী করে দিন আনে দিন খায়। বাড়ি করার সাধ্য নেই। তার উপর আবার একটি এতিম নাতি পোষ্য নিয়েছেন। সে একজন প্রকৃত ভূমিহীন। আমরাও সরকারের কাছে তার জন্য একটি বাড়ির দাবী জানাই।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!