1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন

ভেজালবিরোধী অভিযানে জব্দকৃত ৫৩ ড্রাম ভোজ্যতেলের কি হবে?

  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ৯ জুন, ২০২১

নালিতাবাড়ী (শেরপুর) : র‌্যাবের ভেজালবিরোধী অভিযানে নোংরা পরিবেশ, ভেজাল ভোজ্যতল ও বৈধ কাগজপত্র না থাকায় ভ্রামমাণ আদালত কর্তৃক জব্দকৃত ৫৩ ড্রাম ভোজ্যতেলের গতি হয়নি এক মাসেও। নিয়মিত মামলা হওয়ার কথা থাকলেও আলোর মুখ দেখছে না বিষয়টি। প্রশাসন বলছে, পরীক্ষাগারের রিপোর্ট হাতে পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জানা গেছে, গত ৫ মে র‌্যাব-১৪ জামালপুর পবিত্র রমজান উপলক্ষে নালিতাবাড়ী শহরের নিলামপট্টি মহল্লায় ভোজ্যতেল আমদানী ও উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানসমূহে ভেজালবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানকালে সুপার সয়াবিনের সাথে সরিষার তেল মিশিয়ে সরিষা তেল তৈরি ও ময়মনসিংহের জোড়া হাঁস মার্কা মোড়ক লাগিয়ে অবৈধ ভাবে তেল বাজারজাত করায় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তারিক ওয়েল মিলের স্বত্ত্বাধিকারী আনোয়ার হোসেনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হেলেনা পারভীন। একই সময়ে গোলাম মস্তুফার গোডাউনে অভিযান চালালে অস্বাস্থ্যকর নোংরা পরিবেশে তেল মওজুদ ও বিপণন, কথিত খাঁটি সরিষার তেলের পরিবর্তে ভেজাল ভোজ্যতেল ও সরকারী ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়া চালান বিহীন অবৈধভাবে আমদানীকৃত তেল বলে প্রতীয়মান হয়। এছাড়াও ভোজ্যতেলে একটি মরা টিকটিকি ভাসমান অবস্থায় পাওয়া যায়। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালত আমদানীকৃত তেলের বৈধ কাগজপত্র তলব করলে মালিকপক্ষ আত্মগোপনে থাকায় ওই গোডাউনটি সিলগালা করে দেওয়া হয়। বলা হয়, পরবর্তী সময়ে এ বিষয়ে নিয়মিত মামলা রুজু করা হবে।
এদিকে গোডাউনটি সিলগালা করা হলেও উত্তর পাশের একটি দরজা সিলগালা না করায় গোডাউন মালিক গোলাম মস্তুফা গোপনে ওই দরজা খোলে তেল আমদানী-রফতানী অব্যাহত রাখেন বলে গোপন সূত্র জানিয়েছে। শুধু তাই নয়, জব্দকৃত তেল বৈধ দাবী করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে কিছু কাগজপত্র দাখিল করেন তিনি। দাখিলকৃত ওইসব কাগজপত্রের মধ্যে তেল আমদানীর মেমো দেখানো হলেও চালান ফরম জমা দেননি।
সূত্র জানিয়েছে, জব্দকৃত ৫৩ ড্রাম তেল ফাঁক-ফোকরে বৈধ বানিয়ে তা বাজারজাত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে গোলাম মস্তুফা। এমতাবস্থায় বিষয়টি নিয়ে গেল মে মাসের মাসিক আইনশৃঙ্খলা সভায় বাংলার কাগজ এর পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দৃষ্টি আকর্ষণ করে জনস্বার্থে পরবর্তী আইনী পদক্ষেপ নেওয়ার দাবী জানানো হয়। কিন্তু এক মাস পেরিয়ে গেলেও জব্দকৃত তেলের কোন সুরাহা হয়নি।
অভিযোগ রয়েছে, গোলাম মস্তুফা শুধু ভোজ্য তেলই নয়, গবাদি পশুর খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত সরিষার খৈল বিক্রিতেও ভেজাল করে থাকেন। দীর্ঘদিন আগে খৈলে কাঠের গুঁড়া ও চালের কুড়া মিশিয়ে বিক্রি করলে বাড়ি নেওয়ার পর তা পানিতে মেশালে ধরা পড়ে। পরে এ নিয়ে ওই গ্রাহক মস্তুফার মধ্যবাজারস্থ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এসে জনসমক্ষে কড়া প্রতিবাদ করে রাস্তায় ঢেলে দেন।
সূত্র জানিয়েছে, জাহাজে ব্যবহৃত পোড়া মবিল প্রক্রিয়াজাত করে তাতে ঝাঁঝ ও গন্ধ মিশিয়ে তৈরি করা হয় কথিত খাঁটি সরিষার তেল। এছাড়াও সয়াবিনের সাথে ঝাঁঝ, গন্ধ ও খৈল মিশিয়ে মেশিনে পুনরায় রিফাইন করেও তৈরি করা হয়ে থাকে সরিষার তেল। শুধু তাই নয়, তেল আমদানীতেও রয়েছে শুভঙ্করের ফাঁকি। অধিকাংশ তেল আমদানীকারক সরকারী ভ্যাট ও ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে ভোজ্যতেল আমদানী করে থাকে। ফলে চ্যালেঞ্জ করলে অনেকেই চালান ফরম দেখাতে ব্যর্থ হন।
শহরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সাধারণ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক শামছুল আলম সওদাগর বলেন, এর আগেও ভেজালবিরোধী অভিযানে ভোজ্যতেল জব্দ করার পর কতিপয় ব্যক্তির সাথে যোগসাজশ করে কিছুদিন পর তা ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমি প্রায়ই ভেজাল তেল আমদানী করতে দেখি। এসব তেল মানুষ খেলে ধীরে ধীরে অসুস্থ হয়ে পড়বে। কাজেই প্রশাসনকে এ বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হেলেনা পারভীন জানান, জব্দকৃত তেলের নমুনা সাইন্স ল্যাবে (পরীক্ষাগারে) পাঠানো হয়েছে। এখনও রিপোর্ট আসেনি। রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!