1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন

নকলায় ২৬ লাখ টাকার পাকা সেতু পার হতে লাখ টাকার কাঠ-বাঁশের সাঁকো!

  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১

শফিউল আলম লাভলু, নকলা (শেরপুর): ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের অধীনে ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত পাকা সেতু পার হতে গেলে দুইপাশ থেকে আরও দুটি সাঁকো পারি দিতে হয়। কাঠ ও বাঁশের ওই সাঁকো দুটি আবার প্রায় লাখ টাকায় তৈরি করা হয়েছে।
শেরপুরের নকলা উপজেলার নারায়নখোলা গ্রামে এভাবেই প্রতিদিন হাজারো মানুষ পারাপার হয়। ফলে দুর্ভোগ যেমনি পোহাতে হয়, তেমনি রয়েছে ঝুঁকি।
জানা গেছে, উপজেলার নারায়নখোলা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ব্রহ্মপুত্র নদে হয়ে পিয়াপুর রেল স্টেশনে যাওয়ার কাঁচা সড়কে ২০১৪ সালে প্রায় ২৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা ব্যয়ে পাকা ব্রিজ নির্মাণ করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়। প্রায় তিন বছর আগে মাটি সরে যাওয়ার ফলে ব্রিজটির এক পাশের এপার্টমেন্ট ও মাঝখানের পায়ার ভেঙে হেলে পড়ে। বন্যার পানির তোড়ে দুইপাশের এপ্রোচ থেকে মাটি সরে বড় খাদের সৃষ্টি হয় এবং ব্রিজটি রাস্তা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এমতাবস্থায় ব্রিজটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়লেও ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ। বাধ্য হয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের শিকদার বাড়ি খেয়াঘাটের ইজারাদার প্রায় লাখ টাকা ব্যয়ে কাঠ এবং বাঁশ দিয়ে পাকা ব্রিজটির দুইপাশে দুটি সাঁকো নির্মাণ করেন। নিচে গভীর খাদ, তার উপর কাঠ-বাঁশের নড়বড়ে এ সাঁকো দুটিই এখন হাজারো মানুষের চলাচলের একমাত্র ভরসা।

খেয়াঘাটের নৌকার মাঝি সরোয়ারদী জানায়, নদের ওপারে পিয়ারপুর রেল স্টেশন থাকায় নকলা-নালিতাবাড়ীসহ বিভিন্ন অঞ্চলের অনেকেই এ পথে যাতায়াত করে। এছাড়াও ময়মনসিংহ, পিয়ারপুর, মুক্তাগাছা ও জামালপুরসহ বিভিন্ন অঞ্চলের প্রায় দেড় থেকে দুই হাজার লোক প্রতিদিন চলাচল করে এ পথে। ঈদের সময় চাপ থাকে কয়েকগুণ বেশি। যার ফলে ব্রিজটি নির্মাণ অত্যন্ত জরুরী।
ব্রহ্মপুত্র নদের শিকদারবাড়ি খেয়াঘাটের ইজারাদার লাভলু মিয়া জানান, ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রায় ১ লাখ টাকা ব্যয়ে বাঁশ ও কাঠ দিয়ে এই সাঁকোটি নির্মাণ করা হয়েছে। অথচ সরকারিভাবে ১৬ লাখ ১০ হাজার টাকায় ঘাট ইজারা দেওয়া হলেও ব্রিজ বা এপ্রোচ পুননির্মাণে কোন উদ্যোগ নেই কর্র্তৃপক্ষের ।
নকলা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সারোয়ার আলম তালুকদার বলেন, ব্রিজটি ভেঙে নতুন ব্রিজ করার জন্য আমরা ইতোমধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার সাথে কথা বলেছি।
নকলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান জানান, আপাতত ভাঙা ব্রিজটির দুই পাশে মাটি ভরাট করার জন্য ইউপি চেয়ারম্যানকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!