1. monirsherpur1981@gmail.com : banglar kagoj : banglar kagoj
  2. admin@banglarkagoj.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন

নকলায় সরকারী ঘর বরাদ্দে আর্থিক অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

  • আপডেট টাইম :: শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১

নকলা (শেরপুর) : শেরপুরের নকলা উপজেলায় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ভূমি ও ঘরহীন মানুষের জন্য দুর্যোগ সহনীয় ঘর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘ক’ শ্রেণির ঘর বিতরণে আর্থিক অনিয়ম এবং স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, ৭নং টালকি ইউনিয়নের মানসিক প্রতিবন্ধী শাকিল ওরফে ঝন্টুর কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা ও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী মফিদুল ইসলামের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা ঘুষ নেওয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর উপহার সরকারী ঘর বরাদ্দে। সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজামান বদ্দি ও ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম এ ঘুষ গ্রহণ করেছেন বলে অভিযোগ ওঠেছে।

পারভীন নামে এক নারী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমার শাশুড়ির নামে একটি ঘর বরাদ্দের জন্য চেয়ারম্যানকে তার দাবীকৃত ৩০ হাজার টাকা চুক্তি করে ২৯ হাজার ৫শ টাকা দেওয়া হয়। এতে ওই চেয়ারম্যান রাগ করলে তাকে পুরো ৩০ হাজার টাকাই ঘুষ দিতে হয়েছে। বিবিরচর বাজারের চা বিক্রেতা বাদল বলেন, সমিতি থেকে সুদে ঋণ নিয়ে চেয়ারম্যানকে ঘুষ দিয়ে ঘর পাইছি।

তবে সরকারী ঘর বরাদ্দে অবৈধভাবে অর্থ (ঘুষ) নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেন টালকি ইউপি চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজামান বদ্দি।

এদিকে একই পরিবারের একাধিক সদস্যের মাঝে ঘর বিতরণ ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে উপজেলার ৯ নং চন্দ্রকোনা ইউনিয়নে। ওই ইউনিয়নের বাছুর আলগী গ্রামের জমশেদ আলীর ছেলে লাভলু ও তার দুই ছেলেসহ একই পরিবারের ৪ সদস্য পেয়েছেন ‘ক’ শ্রেণির তালিকা অনুযায়ী সরকারী বরাদ্দের ঘর। একইভাবে বাছুর আলগী গ্রামের মৃত রজব আলীর ৩ ছেলে দেলোয়ার, লতিফ ও জয়নাল আবেদীনও পেয়েছেন ‘ক’ শ্রেণির সরকারী বরাদ্দের ঘর।

অন্যদিকে আশ্রয়ন কেন্দ্রের সামনে ৬৩ বছর বয়সী স্বামী-সন্তানহারা ঝুপড়ি ঘরে বসবাসকারী আমেনা বেগমের ভাগ্যে জুটেনি কোন সরকারী ঘর।
আশ্রয়ন কেন্দ্রে জীর্ণশীর্ণ ভাঙা ঘরে বসবাস করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম জমশেদ ওরফে জঙ্গু’র পরিবার। অসহায় এই পরিবারটির ভাগ্যেও জুটেনি সরকারী বরাদ্দের ঘর।

একই পরিবারের একাধিক সদস্যদের মাঝে ঘর বিতরণের স্বজনপ্রীতির অভিযোগের বিষয়ে ৯ নং চন্দ্রকোনা ইউপি চেয়ারম্যান সাইদ সিদ্দিকী সাজু বলেন, ঘর বরাদ্দ পাওয়া সবাই ভূমি ও গৃহহীন। অনিয়মের কোন ঘটনা ঘটেনি।

জানা গেছে, ২০২০-২০২১ অর্থবছরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে যারা ঘর বরাদ্দ পেয়েছেন তাদের বেশিরভাগই ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সী কর্মজীবী তরুণ।

এ প্রসঙ্গে নকলা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ঘর বরাদ্দের নীতিমালায় বলা নেই তরুণ না বৃদ্ধ মানুষকে দিতে হবে।

নকলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে অসহায় মানুষের জন্য ঘর বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হলে চেয়ারম্যানদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2011-2020 BanglarKagoj.Net
Theme Developed By ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!